international
 30 Oct 19, 11:15 AM
 6             0

পদত্যাগ করছেন লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি॥  

পদত্যাগ করছেন লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি॥   

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ দুই সপ্তাহ ধরে চলা বিক্ষোভের জেরে শেষ পর্যন্ত পদত্যাগ করলেন লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি। তিনি বলেন, লেবানন অচল হয়ে গেছে। আর এখন এই সংকট কাটাতে বড় এক ধাক্কার প্রয়োজন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা যায়। ২০১৯ সালের ১৭ অক্টোবর হোয়াটসঅ্যাপ এবং একই ধরনের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপসগুলোতে কর আরোপ প্রস্তাবের প্রতিবাদন জানিয়ে বিক্ষোভ শুরু হয় আন্দোলনকারীরা । ওই কর আরোপের প্রতিবাদ করতে গিয়ে অর্থনৈতিক সমস্যা, বৈষম্য ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে মানুষ ফুঁসে ওঠে। তীব্র সমালোচনার পাশাপাশি জনগণের ক্রয়ক্ষমতা কমে যাওয়া ও জীবনমানের অবনতির জন্য প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি’র সরকারের পদত্যাগের দাবিতে আওয়াজ তোলেন। লেবাননের পুরো রাজনৈতিক ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানোর দাবি জানিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা। প্রধানমন্ত্রীর দফতর এবং পার্লামেন্ট ভবন সংলগ্ন এলাকায় বিক্ষোভে অংশ নেন হাজার হাজার মানুষ। এ সময় তারা সরকারবিরোধী নানা স্লোগান দেয়। শুধু প্রধানমন্ত্রীর দফতরই নয়; তার আবাসিক ভবনের বাইরেও বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে ।

টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে হারিরি বলেন, তিনি দেশটির প্রেসিডেন্ট মিশেল আউনের কাছ তার এবং তার সরকারের পদত্যাগপত্র জমা দেবেন। তিনি বলেন, ১৩ দিন ধরে লেবাননের সাধারণ মানুষ সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় ছিলো। পরিস্থিতির অবনতি যেন না হয় সেজন্য রাজনৈতিক সমাধান চাইছিলো তারা। আমি চেষ্টা করেছি। জনগণের কথা শুনতে চেষ্টা করেছি। হারিরি বলেন, এই সংকট সামাল দিতে বড় একটি ধাক্কা দরকার ছিলো। এর আগে গত বৃহস্পতিবার (২৪ অক্টোবর) জাতির উদ্দেশ্যে টেলিভিশন ভাষণে লেবানিজদের রক্ষা করতে প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে হারিরি সরকার পুনর্গঠন ও অর্থনৈতিক সংকট দূর করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট আউন। তিনি বলেন, ‘বিক্ষোভকারীদের প্রতি আমার আহ্বান, আপনারাদের নির্দিষ্ট দাবিগুলো শুনতে আপনাদের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে আমি প্রস্তুত। অর্থনৈতিক পতনের বিষয়ে আমাদের আশঙ্কার কথাগুলোও আপনারা শুনবেন। সমস্যা সমাধানের সর্বোত্তম উপায় আলোচনা। আমি আপনাদের অপেক্ষায় রইলাম।’ তবে তার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে বিক্ষোভকারীরা ।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')