international
 24 Aug 19, 06:25 PM
 12             0

ভারতের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী অরুন জেটলির মহা প্রয়াণ॥ আগামীকাল শেষকৃত্য, মমতার শোকপ্রকাশ

ভারতের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী অরুন জেটলির মহা প্রয়াণ॥ আগামীকাল শেষকৃত্য, মমতার শোকপ্রকাশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: মারা গেলেন ভারতের প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা অরুণ জেটলি। দিল্লীর অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্স- এইমসে চিকিত্সাধীন অবস্থায় আজ দুপুরে ৬৬ বছর বয়সি এই নেতার মৃত্যু হয়। বর্তমানে তার মৃতদেহ শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য দিল্লিতে বিজেপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে রাখা হয়েছে । অরুন জেটলির মৃত্যুতে ভারতের রাজনৈতিক মহলে এক শোকাবহ পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলসহ সকল শ্রেনী পেশার মানুষ শোক প্রকাশ করেছেন। আগামীকাল দুপুরে তার শেষকৃত্য অনুষ্ঠিতে হবে। এদিকে অরুন জেটলির প্রয়াণে গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমুল কংগ্রেস প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এক টুইটে তিনি অরুন জেটলিকে একজন অসাধারণ সাংসদ ও সুদক্ষ আইনজীবী বলে উল্লেখ করেছেন। জেটলির প্রয়াণে তিনি গভীরভাবে শোকাহত বলেও জানিয়েছেন টুইটে। গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন তার পরিবারের প্রতি। মুখ্যমন্ত্রী তার বার্তায় লিখেছেন, সব রাজনৈতিক দলের কাছেই ছিলেন শ্রদ্ধার মানুষ ছিলেন অরুণ জেটলি। ভারতীয় রাজনীতিতে তাঁর অবদান অনস্বীকার্য।

উল্লেখ্য গত ৯ অগাস্ট প্রবল শ্বাসকষ্ট নিয়ে রাজধানীর এইমস-এ ভর্তি হয়েছিলেন অরুণ জেটলি। তারপর থেকেই তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। চিকিত্সার দায়িত্বে থাকা ডাক্তারদের দল প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীকে ভেন্টিলেশনে স্থানান্তরিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। ২০ অগাস্ট থেকেই তাঁকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল। কিন্তু বিপদ এড়ানো গেল না কোনওভাবেই। গতকালই এইমস সূত্রে জানা যায়, অরুণ জেটলির শারীরিক অবস্থার চূড়ান্ত অবনতি হতে শুরু করেছে। আজ দুপুর ১২টা বেজে ৭ মিনিটে প্রয়াত হন দেশের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী।

উল্লেখ্য দীর্ঘদিন কিডনী সমস্যায় ভোগা ভারতের প্রাক্তন এই মন্ত্রীর গত বছর তাঁর কিডনি প্রতিস্থাপন হয়েছিল। তার পর চলতি বছর ক্যান্সারও ধরা পড়ে। শারীরিক অবস্থার প্রবল অবনতি হওয়ায় ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে রাজি হননি অরুণ জেটলি। নির্বাচনে অংশ না করলেও লোকসভায় বিজেপির বিরাট বিজয়ের পর প্রধানমন্ত্রী মোদী তাকে তার মন্ত্রীসভায় যোগদানের আমন্ত্রণ জানান। কিন্ত জেটলি ভিতরে ভিতরে বুঝতে পারছিলেন তার সময় ফুরিয়ে আসছে । তাই বিনয়ের সাথে প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণ ফিরিয়ে দেন তিনি। উল্লেখ্য, মোদী-১ ক্যাবিনেটে তিনি অর্থমন্ত্রী থাকার সময়ই জিএসটি ও নোটবন্দির মতো বলিষ্ঠ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')