Opinion
 30 Jun 20, 10:37 PM
 414             0

অন্য রকম সাদা মনের ‘মানবিক’ পুলিশ

অন্য রকম সাদা মনের ‘মানবিক’ পুলিশ

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে সম্মুখযোদ্ধা পুলিশের ত্যাগ, মানবিকতা কাজ দেখে জনগণ বিমোহিত। বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর অর্জনের পাল্লা, সুনামের খাতা প্রতিনিয়ত বেড়ে যাচ্ছে। পুলিশ সম্পর্কে মানুষের নেতিবাচক ধারণা এ সব কাজে বদলেছে। করোনা পরিস্থিতিতে পুলিশ পেশাগত দায়িত্বের বাইরে গিয়েও কাজ করেছে। বাস্তবতাই দেশে করোনা সংক্রমণ শুরুর পর থেকে পুলিশ যেভাবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে তাকে মানবিক পুলিশের এক নতুন প্রতিচ্ছবি বলছেন অনেকেই।

বছর জুড়ে আলোচনা-সমালোচনায় পুলিশের খারাপ দিকগুলোই বেশি মুখরোচক হয়ে ওঠে। পুলিশ যে জনগণের বন্ধু, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করার পাশাপাশি সারা বছরই তারা যে মানবিক কাজের ক্ষেত্রেও পিছিয়ে নেই, তা আমরা ভুলে যাই। দু-একজনের অপকর্মে পুরো পুলিশ বাহিনীকে সমালোচনায় বিদ্ধ হতে হয়। তবে বাংলাদেশ পুলিশ বিভাগে রয়েছে হাজারো মানবিক গুণসম্পন্ন বড় মনের অফিসার, যারা সাধারণ মানুষকে সহযোগিতার মতো মানবিক কাজগুলোও নৈতিক দায়িত্ব বলে মনে করেন। ঝিনুকের মধ্যে যেমন মুক্তা থাকে, তেমনি কিছু মানবহিতৈষী সাদা মনের মানুষও পুলিশ বাহিনীতে আছে। তেমনি একজন মানবহিতৈষী সাদা মনের পুলিশ অফিসার হলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের গুলশান জোনের সিনিয়ার সহকারী পুলিশ কমিশনার জনাব মোঃ রফিকুল ইসলাম পিপিএম স্যার। এই অসাধারণ, বিনয়ী, ভদ্র মানষটির সাথে কাজ করার অভিজ্ঞতা খুব বেশিদিনের নয়। দেখেছি অল্প সময়ে স্যার কিভাবে সাধারণ মানুষ এবং জুনিয়র ও সিনিয়র অফিসারদের আস্থার প্রতীক। তিনি ঢাকা মহানগর পুলিশের এক অনন্য ব্যক্তিত্ব, অসীম ধৈর্যশীল এবং ভীষণরকম পরোপকারী মানুষ হিসাবে পরিচিত। তিনি সারা বছরই মাঠে থেকে যে কাজ করছে দায়িত্ববোধের সাথে, যা মানুষকে ভালোবাসার এক অন্যরকম বহিঃপ্রকাশ।

সিনিয়ার সহকারী পুলিশ কমিশনার মোঃ রফিকুল ইসলাম স্যার শুধু পুলিশের দায়িত্ব বলে শেষ করে দেয় না। তিনি তো এক স্বতন্ত্র ব্যক্তিত্বের অধিকারী, যার মধ্যে আছে মানবিক আদর্শবোধ, কর্তব্য, দায়িত্ব ও বিপদগ্রস্ত মানুষের প্রতি গভীর ভালোবাসা, যে ভালোবাসা তিনি পোষণ করেন নিজের পরিবারের জন্য। তার সততার বিষয়ে কোন সন্দেহের অবকাশ নেই। এই শ্রেণির মানবিক অনুভূতি তিনি অর্জন করেছেন আদর্শবোধ থেকে। তার এই মানবিক অনুভূতি ও আদর্শবাদই একজনকে অন্যায়ের হাত থেকে রক্ষা করতে পারে। শিক্ষা দেয় সব মানুষই সমান, সবারই সমান অধিকার আছে। স্যার সেবা করে যাচ্ছে সবার অগোচরে, অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে কোনো প্রত্যাশা বা প্রাপ্তির জন্য নয়, মানুষের কল্যাণের জন্য। দিন নেই, রাত নেই সারাক্ষণই মানুষের সেবায় অকাতরে কাজ করে যাচ্ছেন। কতটা মনোবল, ধৈর্য্য, সদিচ্ছা আর সেবার মন থাকলে বছরের পর বছর ধরে এমনটা করতে পারছেন। নিজের ওপর অর্পিত দায়িত্ব শেষ করে ঘরে ফেরেন না, ছুটে যান মানুষের কাছে। যে কারোও সমস্যা, খুঁজে বের করে নিজের সাধ্যমত সহয়তা করেন। আর এজন্য ‘সাদা মনের’ পুলিশ হিসেবে ইতোমধ্যে সবার কাছে পেয়েছে গ্রহণযোগ্যতা। স্যারের মধ্যে যে সততা ও  মানবিকতা আছে, তার সান্নিধ্যে গেলে নিভৃত মানব সেবার ঘটনা দেখে মাথা নিচু হয়ে আসবে শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায়। রফিক স্যারের মতো দেশের জন্য নিবেদিত, নিরহংকার, হৃদয়বান, সৎ ও দক্ষ অনেক পুলিশ অফিসার রয়েছে। যারা সারা বছরই নিঃস্বার্থভাবে মানবসেবা করে যাচ্ছে। যাদের সঙ্গে কাজ করতে পারাও গর্ববোধের। পুলিশের অনেক কাজ মানুষের জানার বাইরে থাকে, অধিকাংশ ভালো কাজ জনসম্মুখে সামনে আসে না। তেমনি ডিএমপির সিনিয়ার সহকারী পুলিশ কমিশনার মোঃ রফিকুল ইসলাম স্যারের এসব মানবিক কর্মের বিষয়গুলি উঠেছে আসেনি সোশ্যাল মিডিয়াতে।

একদিন স্যারের কথা শুনে বিস্মিত ও অভিভূত হয়ে ছিলাম। স্যার বলেন, ভালো কাজের জন্য  দরকার ইচ্ছাশক্তি, অনৈতিকতার ঊর্ধ্বে থেকে কারো সহযোগিতায় পাশে থাকাটাকেও দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। মানুষের অসুবিধে বা বিপদের সময় মানুষের পাশে এসে দাঁড়নো বা সমস্যা নিরসনে সহায়তা করাই পুলিশের দায়িত্ব।

আজ সারা বিশ্বকে থমকে দিয়েছে করোনাভাইরাস। বৈশ্বিক এ মহামারী একা কখনোই মোকাবেলা করা সম্ভব না।  মহান আল্লাহ পাকের রহমতে দেশের মানুষের সচেতন আর সহযোগিতার মধ্য দিয়েই একদিন করোনামুক্ত হবে বাংলাদেশ। সেই সাথে স্যারের মতো ''মানবতা, মানবিকতা ছড়িয়ে পড়ুক সর্বত্র। বাংলাদেশ পুলিশে অসংখ্য রফিকুল ইসলাম স্যারের জন্মগ্রহণ হোক মানবিক আদর্শের পতাকা নিয়ে।                                                                                                                      

লেখকঃ মোহাম্মদ সাব্বির রহমান, অফিসার ইনচার্জ (ওসি), নানিয়ারচর থানা

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')