Features
 28 Dec 20, 03:00 PM
 46             0

অতিথি পাখির কলরবে মুখর জাবি ক্যাম্পাস

অতিথি পাখির কলরবে মুখর জাবি ক্যাম্পাস

 

 

ফিচার ডেস্কঃ অতিথি পাখির কলরবে মুখর হয়ে উঠেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) ক্যাম্পাস। এখানকার জলাশয়গুলোতে যেন আপন সাম্রাজ্য গড়ে তুলেছে অতিথি পাখিরা। লাল শাপলার ফাঁকে যেন বিহঙ্গের মেলা বসেছে। জলকেলি, ওড়াওড়ি ও খুঁনসুটিতে দিন কাটছে পাখিদের। পাখির কিচিরমিচির ও জলে ডানা ঝাপটানোর শব্দে মুখর পুরো ক্যাম্পাস। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয় সাময়িকভাবে বন্ধ। তাই পাখি দেখতে সীমিত পরিসরে আসছেন দর্শনার্থীরা। এছাড়া ক্যাম্পাসে বহিরাগত প্রবেশে বিধিনিষেধও রয়েছে।

                                                                                                                                                                                                     প্রতিবছরের চেয়ে এবার কিছুটা আগেই চলে এসেছে পরিযায়ী পাখি। সুদূর সাইবেরিয়া, মঙ্গোলিয়া বা হিমালয়ের উত্তরাঞ্চলের তীব্র শীত ও ভারী তুষারপাতে তাদের টিকে থাকা দায়। তাই একটু উষ্ণতার খোঁজে পাখিরা সুদীর্ঘ পথ পেড়িয়ে আসে বাংলাদেশে। জাবি’র প্রাণিবিদ্যা বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ১৯৮৬ সাল থেকে এখানকার জলাশয়গুলোতে অতিথি পাখি আসছে। এখন পর্যন্ত দেশি-বিদেশি ২০৪ প্রজাতির বিহঙ্গের দেখা মিলেছে ক্যাম্পাসে। এর মধ্যে ১২৬টি দেশি ও ৭৮টি বিদেশি প্রজাতির। অন্যান্যবারের তুলনায় এবার পাখির সংখ্যা বেশি হবে বলে আশা করছেন পাখি বিশেষজ্ঞ ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান।

 

তিনি বলেন, ‘অন্যান্য বছর ডিসেম্বর নাগাদ পাখির কিচিরমিচিরে লেকগুলো পরিপূর্ণ হতে দেখেছি। এবার বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকার কারণে নভেম্বরেই সেই চিত্র চোখে পড়েছে। আশা করছি, এ পাখির সংখ্যা অতীতের রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবে।’ অতিথি পাখির কোলাহলে মুখরিত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়াইল্ড লাইফ রেসকিউ সেন্টার, মনপুরা এলাকা, সুইমিংপুল এলাকা, বোটানিক্যাল গার্ডেনের পাশের লেক ও ট্রান্সপোর্ট চত্বরের লেকে বিপুলসংখ্যক পাখি চোখে পড়ছে। অতিথিদের মধ্যে বেশিরভাগ পাখিই হাঁস প্রজাতির।

 

এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য সরালি, গার্গেনি, পিচার্ড, মানিকজোড়, মুরগ্যাধি, জলপিপি, নাকতা, কলাই, ফ্লাইপেচার, পাতারি, চিতা টুপি ও লাল গুরগুটি প্রভৃতি। তবে ‘অনেক বছর পর এবার সুইমিংপুল সংলগ্ন জয়পাড়া লেকে আফ্রিকান কম্বডাক দেখা গেছে। তবে পাখিদের মধ্যে বেশিরভাগই সরালি। তাদের মধ্যে ছোট সরালির সংখ্যাই বেশি। এছাড়া বড় সরালি, গার্গেনি, জিরিয়া হাঁস, ল্যাঞ্জা হাঁস ইত্যাদি পাখি এখন পর্যন্ত লেকগুলোতে বেশি বিচরণ করতে দেখেছি।’  বলেছেন অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগ পরিযায়ী পাখি রক্ষায় সচেতনতা বৃদ্ধিতে প্রতিবছর পাখিমেলার আয়োজন করে থাকে। কিন্তু কোভিড ১৯ প্রাদুর্ভাবের কারণে সেই আয়োজন অনেকটাই অনিশ্চিত।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন