features
 07 Jan 17, 02:16 PM
 324             0

ছোট্ট পাখি বুবুনের স্বপ্ন, বুবুনের ভাবনা

ছোট্ট পাখি বুবুনের স্বপ্ন, বুবুনের ভাবনা

মিলন দাস, ব্যারাকপুর-কলকাতা : চাই ক্ষুদ্রতম পাখীর মর্যাদা, চাই জাতীয় পাখীর সন্মান। না হলে নানা ভাবে নানা পথে মানুষ নিধন চলছে চলবে। কামান দেগে, বিষ ছড়িয়ে আমাদের ধ্বংস করা যায় না যাবে না। দুনিয়ার মশা একসাথে, মানুষ তুমি হুঁশিয়ার। পৃথিবীর মশা বিনাশ বন্ধ হোক। শ্লোগান শুনে চমকে ওঠে বুবুন। কি ভয়ঙ্কর জেহাদি শ্লোগান। মশারা লড়াই করছে মানুষের সাথে? বেশ মনে আছে- কে যেন একবার কথা প্রসঙ্গে বলেছিল “ হাতি ঘোড়া গেল তল, মশা বলে কত জল” সেই কথার রেশ টেনেই মশারা বলছে “ হাতি মরে ডুবে, মশা বানায় বাসা, মানুষ যদি এতই বড়, নৌকোয় কেন যাওয়া আসা? বুবুন ভাবলো সত্যিই তো, হাতিতো জলে ডুবে যাওয়ারই কথা। মশার পা টুকুওতো জলে ডোবে না। তা হলে মশাকে নিয়ে এই রকম বিদ্রুপ একদম ঠিক হয়নি। কে বা কারা এই ধরনের টিটকারি প্রচলন করেছে জানেনা বুবুন। কিন্তু আজকের এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে তাদের উপর ভীষন রাগ হল বুবুনের। কি এমন চাহিদা মশাদের? ক্ষুদ্রতম পাখীর মর্যাদা আর জাতীয় পাখীর স্বীকৃতি। এ টুকু দিলে কি এমন ক্ষতি হতো। এদিকে ভীড় বাড়ছে মশাদের। বাড়ছে জেহাদি শ্লোগানের মাত্রা। “মানুষ তুমি পৃথিবী ছাড়ো” শ্লোগানে ছয়লাপ বুবুনের চতুর্দিক। সকলে মিলে যেন গিলতে আসছে বুবুনকে।

এত ভয়ঙ্কর জেহাদ কোনদিন দেখেছে শুনেছে বলে মনে পড়ে না বুবুনের। নন্দীগ্রামে পুলিশের হিংসাশ্রয়ী আক্রমন টিভিতে দেখেছে বুবুন। মমতা পিষির “ সি,পি,এমের মৃত্যুঘন্টা আন্দোলন”, ২১ শে জুলাই আন্দোলন। ৭০ এর দশকে নকশাল আন্দোলন, মাওবাদী আন্দোলন, গোর্খাল্যান্ড আন্দোলন এমন অনেক কিছু নিজের চোখে টিভিতে দেখেছে বা শুনেছে বুবুন। কিন্তু মশাদের এমন মানুষ নিধন আন্দোলন কোনদিন দেখেওনি শোনেওনি। বুবুন স্পষ্ট শুনলো মশারা বলছে, মশারী টাঙিয়ে, ধুপ জ্বালিয়ে, স্প্রে করে, কামান দেগে, ব্লিচিং ছড়িয়ে আমাদের রোখা যাবেনা। মানুষ যত ফন্দি আঁটবে আমরা ততই মারমুখী লড়াই চালাবো। ম্যালেরিয়া, এনকেফেলাইটিস, চিকুনগুনিয়ার ওষুধ তৈরী করে খুব আদিখ্যাতা বেড়েছে। এবার ডেঙ্গুতে কি করি দেখো। কয়েক জন উঁচুতলার মানুষ ইতি মধ্যে মারা যাওয়াই তো সাধারন মানুষ থেকে নেতা মন্ত্রী পর্যন্ত আমাদের ধ্বংশ করতে রাস্তায় নেমে পড়েছে। কেউ কেউ গাল দিচ্ছে পৌরসভা, পঞ্চায়েত আর করপোরেশনকে। তাদের দোষ জমা জল ঠিকমতো পরিষ্কার করা হয়না বলেই এতো মশা জন্মে। তারাও ঝেড়ে ফেলতে চাই সাধারন মানুষের প্লাস্টিক, থার্মোকোল ইত্যাদি ব্যবহারের দোষ দিয়ে। ফরমান জারি করে বলছে কোথাও জল জমতে দেওয়া চলবে না।

বাড়ীর ফুলের টব, চায়ের ভাঁড়, কাটা টায়ার, ডাবের খোলা ইত্যাদিতে জল যেন না জমতে পারে। এত বুদ্ধিমান মানুষ জেনেও জানেনা যে পৃথিবীর তিন ভাগ জল। ঐ দু ঘটি জল গেল আর থাকলো তাতে মশাদের কি এসে যায়। গত কয়েক দিন ধরে বেশ কয়েক জন নানা বয়সের মানুষ ডেঙ্গুতে মারা যাওয়াই এতটাই ভয় ছড়িয়েছে যে বুবুন নিজেও সেই আতঙ্কে আতঙ্কিত। মশা দেখলেই মনে হচ্ছে ঐ বুঝি ডেঙ্গু মশা ধেয়ে আসছে তার দিকে। ছোট্ট একটা পতঙ্গ দুঃখিত “পাখী” যার মুখ দাঁত আছে কিনা আজও জানেনা বুবুন। ছোট্ট একটা সরু হুল বা শুঁড় অবশ্য দেখেছে মশার মুখে। সেই হুলের সাহায্যে রক্ত রস ইত্যাদি পান করে সেটাও জানে। কিন্তু সেই হুলের ভিতর দিয়ে এতো সাংঘাতিক মারন ব্যাধি ছড়াতে পারে ভেবে অবাক হয় বুবুন।

একটা মশা বুবুনের কানের কাছে পিনপিনিয়ে বলে উঠলো এইসব মারন ব্যাধির সৃষ্টি কারা করছে? আমরা তো বেশীর ভাগ খাবার খেয়ে থাকি জীব জন্তু কিম্বা মানুষের ফেলে দেওয়া জিনিষ থেকে। রোগ তো আমরা তৈরী করি না। রোগ ঢোকে আমাদের খাবারের মধ্যে থেকে। তোমরা অখাদ্য কুখাদ্য খাবে আর বাতিল খাবার ফেলবে আস্তাকুঁড়ে। তোমাদের দুষিত রক্ত খেয়ে আমাদের মধ্যে রোগ ঢুকছে। অবশ্য আমাদের কোন ক্ষতি হবে না তাতে। যদি হতো তাহলে আর কামান দাগার প্রয়োজন হতো না। অবাক করার মতো কথা কি জানো? সম্প্রতি মানুষ আবিষ্কার করেছে পরমাণু গবেষনা কেন্দ্র, লালবাজার, রাষ্ট্রপতি ভবন, রাজভবন সব আমাদের দখলে। ভাবতে পারো আমাদের হাত থেকে বাঁচতে প্রতিদিন কত টাকা খরচ হয় পৃথিবীতে? কত রকম প্রতিরোধ ব্যবস্থার মধ্যে ২৪ ঘন্টা থাকতে হয়। কত হাজার কর্মশালায় আমাদের বিনাশ আবিষ্কার চলছে। তা চলুক। আমাদের তাতে বয়েই গেল। আমাদের দাবী আদায়ে আমাদের সংগ্রাম চলছে, চলবে। আমাদের শ্লোগান “ তোমরা মোদের যতই মারো, আমরা দ্বিগুন বাড়বো আরও।

ভয়ে আঁৎকে ওঠে বুবুন। ঘুমটাও যায় ভেঙে। বুঝলো ঘুমিয়ে এতক্ষন স্বপ্ন দেখছিলো সে। হোক স্বপ্ন। কিন্তু মশাদের বিষয়টা চেপে বসে বুবুনের মাথায়। সত্যিই তো, মশা উড়তে পারে। মশা ডিম পাড়ে। পৃথিবীতে সব জীব জন্তুর চেয়ে মশার সংখ্যা যথেষ্ট বেশী বলেই মনে হয়। তা হলে তাদের ক্ষুদ্রতম পাখীর মর্যাদা আর জাতীয় পাখীর সন্মান দিলে ক্ষতিটা কি? অনেক ভেবে বুবুন ঠিক করলো বিষয়টা মুন্না কাকুকে বুঝিয়ে বলবে। মুন্না কাকু মমতা পিষির দলের লোক। রাস্তায় গাড়ীতে ধাক্কা খাওয়া কুকুরের সেবা, পরের উপকারে ঝাঁপিয়ে পড়া। অসুস্থ রুগীর জন্য হাসপাতালে রাত্রি জাগা। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো এসব কাজে মুন্না কাকুর খুব সুনাম আছে। যদি মুন্না কাকু, মমতা পিষি বা তাদের দলের মাধ্যমে বিষয়টা জাতীয়স্তরে আলোকপাত করতে পারে তা হলে হয়তো মশাদের হাত থেকে চিরকালীন মুক্তি পাওয়া যাবে। হয়তো মানুষের মৃত্যুর কারন মশা এই বদনাম নিয়ে আর বাঁচতে হবে না তাদের। ছোট্ট বুবুনের আবেদন, বিষয়টা সকলে একটু ভেবে দেখবেন। (সংকলিত)

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')