features
 28 Sep 16, 01:36 AM
 348             0

শরৎ ও চন্দনা

শরৎ ও চন্দনা

শরৎ ও চন্দনা

এফ এম খায়রুল আলম (অপু)
--------------------------------------------------

বর্ষার বিদায় লগ্ন জানিয়ে দেয় ষড়ঋতুর নাট্যমঞ্চে শরৎসুন্দরীর আগমনীবার্তা। নিঃশব্দ চরণে সে এসে হাজির হয় তার রুপের ডালি সাজিয়ে বাঙালি হৃদয়ে। অনেক সময় তা বোঝায় যায় না। তারপর একদিন ঘুম থেকে উঠে যখন দেখা যায় শিশিরসিক্ত দুর্বাঘাসের ওপর সূর্যকিরণে হাজারো মুক্তদানার রুপ ধারণ করে অাছে কিংবা উঠানের কোনায় শিউলি গাছটির তলায় হাজারো ফুলের ছড়াছড়ি, তখন অামাদের মন থেকেও সাড়া পাওয়া যায় যে শরৎ এসেছে।

এমনই এক শরৎ বিকেল স্মৃতিতে সমুজ্জ্বল। সেদিন রাস্তায় হাঁটতে হাঁটতে দেখলাম দূরে মৃদু বাতাসে উষ্ণ আলিঙ্গনরত সাদা কাশফুল। যেন শান্ত সাগরে ঢেউ উঠেছে।তখন স্নিগ্ধ কিরণে সবুজ প্রান্তর ঝলমল করছিল।অাকাশে সাদা মেঘের ভেলা। সুনীল আকাশের ছায়ায় শান্ত জলাশয়। কাশবন আমাকে যেন হাতছানি দিয়ে ডাকছে। ছুটে গেলাম। দীর্ঘক্ষণ জড়াজড়ি করলাম কাশফুলের সাথে।দু চোখ ভরে দেখলাম আর দু'হাতের মুঠো ভরে তুলে নিলাম। তারপর ফুলগুলো হাতে সন্ধ্যা পর্যন্ত দাঁড়িয়ে ছিলাম তিন রাস্তার মোড়ে চন্দনার জন্য। বাংলা ক্লাসে একদিন চন্দনাকে বলতে শুনেছিলাম তার পছন্দের কাশফুলের কথা।

তাই সেদিন ফুলতলা উপজেলার নির্বাহী অফিসার সাহিত্যপ্রেমিক খলিলুর রহমান স্যারের আয়োজনে ফুলবিষয়ক সেমিনারে আমার জন্য নির্ধারিত বিষয় 'ফুল ও ফুলদানি ' প্রসঙ্গে আলোচনায় মনের অজান্তেই ব্যতিক্রমী ফুলের পরিচয়ে কাশফুলের নামই বলছিলাম। তারপর থেকে শরতের কাশফুলের অপরুপ সৌন্দর্য অন্তদৃষ্টি দিয়ে উপলব্দি করেছি।সেই কাশফুল হাতে যখন চন্দনার জন্য অপেক্ষা করছি,তখন মাথার উপর পূর্বাকাশ মোরগফুলের মতো লাল হয়ে উঠেছিল। আকাশে বলাকা দল সাঁই সাঁই শব্দে উঠে যাচ্ছিল কোন এক মানস সরোবরের দিকে। আর আকাশে-বাতাসে শোনা যাচ্ছিল শারদ উৎসবের আগমনী বার্তা। বাঙালির গৃহাঙ্গন নতুন সাজে সজ্জিত হতে ব্যস্ত।চন্দনাও বলেছিল,শারদ উৎসবে তার প্রিয় ঋতু শরতের রঙের সঙ্গে মিল করে পোশাক বানাবে। বিলের হাঁটুপানিতে মুখোমুখি দাঁড়িয়ে সাদা বকগুলোর হৃদয়ের নিবিড় বিনিময় চলছিল তখন।অামি দাঁড়িয়ে সেই অপরুপ দৃশ্য দেখছিলাম অার ভাবছিলাম চন্দনাকে কাশফুল গুলো দিয়ে বলবো, তোমার জন্য শারদ শুভেচ্ছা।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')