entertaintment
 23 Jun 16, 12:34 PM
 347             0

'নবাব সিরাজউদ্দৌলা' ছবির মধ্যেই বাঙালি খুঁজে পেয়েছিল মুক্তির স্বাদ, স্বাধীনতার সপ্ন...

'নবাব সিরাজউদ্দৌলা' ছবির মধ্যেই বাঙালি খুঁজে পেয়েছিল মুক্তির স্বাদ, স্বাধীনতার সপ্ন...

বিনোদন ডেস্কঃ সিরাজউদ্দৌলা ছিলেন বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব। ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন দিনটিতে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির সঙ্গে যুদ্ধে নবাবের বাহিনী পরাজিত হয়। নবাবের পক্ষের লোকদের বিশ্বাসঘাতকতার কারণেই নবাবের পরাজয় নিশ্চিত হয়েছিল।

এ কথা অনেকেই জানেন, বাংলা-বিহার-উড়িষ্যার মসনদে সিরাজের ব্যাপ্তিকাল খুব বেশি নয়। ১৭৫৬ সালের এপ্রিল থেকে ১৭৫৭ সালের জুন পর্যন্ত সিংহাসনে অধিষ্ঠিত ছিলেন তিনি। সিরাজ স্বদেশের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা বা দেশ বিক্রি করেননি, তাই বাঙালির মনে তাঁর সিংহাসন অটুট রয়েছে।

সিরাজউদ্দৌলাকে নিয়ে বাংলা চলচ্চিত্র তৈরি হয় ১৯৬৭ সালে। খান আতাউর রহমান ছবিটি পরিচালনা করেন। নাম ভূমিকায় অভিনয় করেন আনোয়ার হোসেন। ‘নবাব সিরাজউদ্দৌলা’ ছিল বাংলা চলচ্চিত্র জগতের প্রথম সার্থক ঐতিহাসিক ছবি। সময়টাও ছিল ছবিটির ব্যাপারে আবেগ-জাগানিয়া।

১৯৬৬ সালের ছয় দফা, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার পথ ধরে দেশ তখন ফুঁসছিল। ফলে স্বাধীনতার স্বপ্ন প্রগাঢ় হচ্ছিল দেশবাসীর মনে। ‘বাংলার ভাগ্যাকাশে’ যে ‘দুর্যোগের ঘনঘটা’ দেখা দিয়েছিল, তা কাটানোর একটা স্বপ্নের বীজও যেন বোনা হচ্ছিল শেষ স্বাধীন নবাবের শেষ সংলাপের পথ ধরে।

স্বাধীনতা ও জাতীয়তাবোধে উদ্দীপ্ত এ ছবিতে ঐতিহাসিক উপাদানের চেয়ে নাটকীয়তা ছিল বেশি। বাঙালি এই ছবির মধ্যেই খুঁজে পেয়েছিল মুক্তির স্বাদ। আর ছবির সাফল্যে অভিনেতা আনোয়ার হোসেন যেন বনে গেলেন সত্যিকারের ‘সিরাজউদ্দৌলা’—বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')