News71.com
 Sports
 22 Jun 16, 10:18 AM
 647           
 0
 22 Jun 16, 10:18 AM

ইউরোকাপ ফুটবল ।। ক্রোয়েশিয়ার কাছে ২-১ গোলের হেরে গেল স্পেন

ইউরোকাপ ফুটবল ।। ক্রোয়েশিয়ার কাছে ২-১ গোলের হেরে গেল স্পেন

স্পোর্টস ডেস্ক: বলা হচ্ছিল, ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ম্যাচটাতেই স্পেনের আসল পরীক্ষা হবে। নতুন আর পুরাতনের মিশেলে গড়া দলটার শক্তির আসল পরিচয় পাওয়া যাবে এই ম্যাচের পর। যদি এই ম্যাচটাকেই মানদন্ড ধরা হয়ে থাকে, তবে শক্তির পরীক্ষায় একটুর জন্য পাশ মার্ক পায়নি টানা দুবারের ইউরোজয়ী স্পেন। আক্রমণ-প্রতি আক্রমণে ভরা দুর্দান্ত ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার কাছে হেরে গেছে ২-১ গোলে।

শুধু স্পেনকে হারানোর গর্বই অনেক বেশি হওয়ার কথা, ইতিহাসে যে এ নিয়ে মাত্র দুই বার এই কৃতিত্ব দেখাতে পারল ক্রোয়াটরা।তবে উৎসবে রঙ চড়াচ্ছে আরও একটা ব্যাপার, এই জয়ে স্পেনকে সরিয়ে গ্রুপের শীর্ষে উঠে গেছে রাকিতিচ-মদরিচদের দল।

গ্রুপের অন্য ম্যাচটির অবশ্য এসব হিসেব-নিকেশের বাইরে চলে গেছে। প্রথম দুই ম্যাচেই হেরে যাওয়া তুরস্ক শেষ ম্যাচে এসে জ্বলে উঠল, ২-০ গোলে হারিয়ে দিল চেক প্রজাতন্ত্রকে।

সর্বশেষ এক দশক ধরে কতশত রেকর্ডের জন্ম দিয়ে আসা স্পেনকে আজ একটা প্রথমের স্বাদ দিয়ে গেল ক্রোয়েশিয়া। ইউরোতে এই প্রথম কোনো ম্যাচে এগিয়ে গিয়েও হারের মুখ দেখল স্প্যানিশরা।

পুরো ম্যাচে চিরায়ত টিকি-টাকার ছন্দে খেলে গেল স্পেন। ফলটাও হাতেনাতে চলে এল, ম্যাচের মাত্র ৭ মিনিটে। সার্জিও রামোস থেকে ইনিয়েস্তা-সিলভা-ফ্যাব্রেগাসদের পা ঘুরে মাত্র ৬টি পাসে বল চলে এল আলভারো মোরাতার পায়ে। পুরোটাই যেন ক্রোয়েশিয়ার বুক চিরে, মাঠের একেবারে মধ্যখান দিয়ে। এত সহজ, এত সুন্দর... মোরাতার শুধু পা লাগানোর দরকার ছিল। সেটিই করলেন স্প্যানিশ স্ট্রাইকার। এগিয়ে গেল স্পেন।

কিন্তু স্পেনের টিকি-টাকার জবাব দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়ে ছিল ক্রোয়েশিয়াও। চোটের কারণে লুকা মদরিচ ছিলেন না, তাতে কী! মাঝমাঠে রাকিতিচ, দুই উইং ধরে পেরিসিচ, সরনাদের গতি আর সঙ্গে স্ট্রাইকিংয়ে কালিনিচের ‘বিল্ড -আপ- প্লে’...প্রতি আক্রমণের সব রসদ নিয়েই হাজির ছিল ক্রোয়াটরা। ক্রমাগত স্প্যানিশদের প্রেসিং করে যাওয়াও কাজে দিয়েছে বেশ।

প্রথমার্ধেই এই প্রেসিং-এর সুবিধাটা পেতে পারত ক্রোয়েশিয়া। কিন্তু ডেভিড ডি গিয়ার ভুলের সুযোগে রাকিতিচের দুর্দান্ত চিপটা যেন গোল হবে না বলেই পণ করে রেখেছিল। গিয়ে লাগল বারে, সেখান থেকে পড়ল ঠিক গোললাইনে, এরপর পেছাতে থাকা জেরার্ড পিকের পায়ে লেগে চলে গেল দূরে...একটু এদিক-ওদিক হলেই যেটি গোল হয়ে যেতে পারত।

সেবার হয়নি, তবে প্রথমার্ধর শেষ মিনিটে গোলটা ফিরিয়ে দিল ক্রোয়েশিয়া। বাঁ প্রান্ত থেকে পেরিসিচের ক্রস...রামোসকে পেছনে ফেলে তাতে কালিনিচের ফ্লিক। ১-১! অবশ্য প্রথমার্ধেই ফ্যাব্রেগাস-সিলভাদের থ্রু পাসগুলো থেকে নলিতো-মোরাতারা গোল করতে পারলে অনেকটাই এগিয়ে যেতে পারত স্পেন।

দ্বিতীয়ার্ধেও একই কৌশল। এখন পর্যন্ত ইউরোতে সবচেয়ে সুন্দর ফুটবল উপহার দেওয়া দলগুলোর মধ্যে দুটি দলের আক্রমণ-প্রতি আক্রমণে জমজমাট ম্যাচ। ক্রোয়েশিয়াকেই বেশি প্রাণোচ্ছ্বল মনে হলো।

তবে এর মধ্যেই এগিয়ে যাওয়ার সবচেয়ে ভালো সুযোগটা পেল স্পেন। ৭০ মিনিটে পেনাল্টি পেয়েছিল দেল বস্কের দল। অবশ্য সিলভার ওভাবে বাতাসের ধাক্কায় পড়ে যাওয়াটাতে কীভাবে রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজালেন, সেটিও একটা চমক। একই রকম চমক হয়ে এল সার্জিও রামোসের পেনাল্টি নিতে আসা। কিন্তু স্পেন অধিনায়কের নেওয়া পেনাল্টিটা বেশ অনায়াসেই ফিরিয়ে দিলেন ক্রোয়াট গোলকিপার।

রামোসের পেনাল্টি মিসের দুঃখটা আরও বাড়িয়ে দিলেন পেরিসিচ। ম্যাচের একেবারে শেষ মুহূর্তে প্রতি আক্রমণে উঠে কালিনিচের পাস পেলেন স্পেন বক্সে। দুর্দান্ত শটটা ডেভিড ডি গিয়াকে ফাঁকি দিয়ে চলে গেল জালে।

গ্রুপের হিসেব পালটে দিল সেই গোলটা। এই জয়ে গ্রুপের দ্বিতীয় দল হয়ে শেষ ষোলোতে উঠল স্পেন। দ্বিতীয় পর্বে এখন তাদের প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়াতে পারে ইতালি। গত ইউরোর ফাইনালের দুই দল এবার প্যারিসে মুখোমুখি হচ্ছে দ্বিতীয় রাউন্ডেই।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন