sports
 13 Apr 16, 10:16 AM
 303             0

বাফুফের হাতে এখন ৮ ফুটবলারের ভাগ্য ।।  

বাফুফের হাতে এখন ৮ ফুটবলারের ভাগ্য ।।   

স্পোর্টস ডেস্কঃ বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক মামুনুল ইসলামসহ শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব ছেড়ে যাওয়া আট খেলোয়াড় শেষ পর্যন্ত কোন দলে খেলবেন তা ঠিক করে দেবে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের প্লেয়ার স্ট্যাটাস কমিটি। আট খেলোয়াড়কে ফিরিয়ে নিতে শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবের করা একটি রিট আবেদনের চূড়ান্ত নিষ্পত্তি করে বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকী ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাই কোর্ট বেঞ্চ বুধবার এ রায় দেয়।

আদালতে বাফুফের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেওয়া ব্যারিস্টার মোহাম্মদ মেহেদী হাসান চৌধুরী  বলেন, বিষয়টি ‘প্লেয়ার স্ট্যাটাস কমিটিতে’ বিবেচনাধীন থাকা অবস্থায় হাই কোর্টে এই আবেদন করা হয়েছিল। আট খেলোয়াড় কোন দলে খেলবেন কমিটিই তা নির্ধারণ করবে।

ওই আট খেলোয়াড়ের শেখ জামাল ছাড়া অন্য কোনো দলে খেলার ওপর যে নিষেধাজ্ঞা এর আগে দেওয়া হয়েছিল, তা তুলে নেওয়া হলেও প্লেয়ার স্ট্যাটাস কমিটির সিদ্ধান্ত হওয়ার আগে তারা অন্য কোনো দলে খেলতে পারবেন না বলে মেহেদী হাসান বলেন।

শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবের আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল বলেন, রায়ের অনুলিপি হাতে পাওয়ার দুই সপ্তাহের মধ্যে বাফুফের প্লেয়ার স্ট্যাটাস কমিটিকে আট খেলোয়াড়ের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বলা হয়েছে।

চলতি বছরের ৩রা জানুয়ারি শেখ জামালের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পরও অন্য ক্লাবের কাছ থেকে তাদের অর্থ নেওয়ার বিষয়টি কাম্য নয় বলে পর্যবেক্ষণে বলেছে আদালত।

শেখ জামালের দাবি, সর্বশেষ দলবদলের সময় ‘চুক্তি ভেঙে’ ক্লাব ছাড়েন ওই আট ফুটবলার। তাদের মধ্যে মামুনুল ইসলাম, নাসিরউদ্দিন চৌধুরী, ইয়ামিন মুন্না, সোহলে রানা ও রায়হান হাসান যোগ দেন চট্টগ্রাম আবাহনীতে। শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রে চলে যান জামাল ভুইয়া ও শেখ আলমগীর কবির রানা। নতুন ঠিকানা হিসেবে গোলরক্ষক শহিদুল আলম সোহেল বেছে নেন ঢাকা আবাহনীকে।

বিষয়টি নিয়ে শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবের করা এক রিট আবেদনে ২৮ মার্চ হাই কোর্টের একই বেঞ্চ রুলসহ অন্তবর্তীকালীন আদেশ দেয়। আট খেলোয়াড়কে শেখ জামালে ফিরিয়ে না দেওয়া কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না- তা চার সপ্তাহের মধ্যে বাফুফেসহ বিবাদীদের জানাতে বলা হয় রুলে। সেই সঙ্গে রুল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ওই আট খেলোয়াড়কে শেখ জামাল ছাড়া অন্য কোনো ক্লাবে খেলানোর অনুমতি না দিতে বাফুফের প্রতি নির্দেশ দেওয়া হয়।

হাই কোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগে আবেদন নিয়ে যায় বাফুফে। এর প্রেক্ষিতে ৪ এপ্রিল আপিল বিভাগ বাফুফের করা লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) খারিজ করে হাই কোর্টে রুল নিষ্পত্তি করতে বলে। এর ধারাবাহিকতায় আদালত আজ এ রায় দিয়েছে  ।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')