News71.com
 Literature
 21 Nov 22, 10:48 PM
 346           
 0
 21 Nov 22, 10:48 PM

নিজের জীবন লিখে নোবেল পেলেন আনি আরনো

নিজের জীবন লিখে নোবেল পেলেন আনি আরনো

সাহিত্য ডেস্কঃ 'শল্যবিদের সূক্ষ্ণতা ও সাহসের সঙ্গে ব্যক্তিগত স্মৃতির শিকড়, বিচ্ছিন্নতাবোধ ও সামষ্টিক বাধাগুলোর স্বরূপ উন্মোচন করার জন্য' এ বছর সাহিত্যে  নোবেল পুরষ্কার পেয়েছেন ফরাসি কথাসাহিত্যিক আনি আরনো। মূলত নিজ জীবনকেই লেখালেখির উপজীব্য হিসেবে বেছে নিয়েছেন আনি আর্নো। নিজ জীবনের সঙ্গে মিশেছে তাঁর ইতিহাস ও সমাজবোধ।

তাঁর লেখার ভেতর দিয়ে বিগত কয়েক দশকের ফরাসি সমাজমানস উঠে এসেছে। ১৯৭৪ সালে প্রকাশিত হয় তাঁর প্রথম উপন্যাস 'লেজ আখ্‌মোয়াখ্‌ ভিদ্‌'। লেখাটি আত্মজৈবনিক। 'লা প্লাস, লা ওন্‌ত্‌' উপন্যাসের জন্য ১৯৮৪ সালে তিনি 'রেনোদো' পুরস্কার পান। এ উপন্যাসে জীবনে বেড়ে ওঠার বাঁকে বাবার সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের বিচিত্র রসায়ন উঠে এসেছে। এসেছে নিজ শহর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে জীবনপাত করতে থাকা বাবা-মায়ের কথা। 'স্‌-কিল্‌ দিসো উ খিয়া' উপন্যাসে তাঁর শেষ কৈশোর বর্ণনা করেছেন।

'লা ফাম জ্যেলে' উপন্যাসে তাঁর বিবাহিত জীবন; 'লেভেনোমো' গ্রন্থে তাঁর গর্ভপাতের স্মৃতি, 'ইউন্‌ ফাম্‌' গ্রন্থে তাঁর মায়ের জীবন উঠে এসেছে। 'লুসাজ্‌ দ্য লা ফোতো' বহন করছে স্তন ক্যান্সারের বেদনাবহ স্মৃতি।
সুইডেনের রাজা তৃতীয় গুস্তাফ ১৭৮৬ সালে দেশটির ভাষা ও সাহিত্যের উন্নতিকল্পে সুইডিশ একাডেমি প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯০১ সাল থেকে ১৮ সদস্যবিশিষ্ট এই একাডেমির নোবেল কমিটি সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার ঘোষণার ভার গ্রহণ করে, যা আজ অবধি চালু আছে। ব্যতিক্রম ১৯১৪, ১৯১৮, ১৯৩৫ ও ১৯৪০ থেকে ১৯৪৩ সাল। এই সাত বছর সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার দেওয়া হয়নি।
সুইডেনের বিখ্যাত রসায়নবিদ আলফ্রেড নোবেলের শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী গবেষণা, উদ্ভাবন ও মানবতার কল্যাণে অবদানের জন্য প্রতিবছর চিকিৎসা, পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, সাহিত্য, শান্তি ও অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার দেওয়া হয়। গত বছর সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন তাঞ্জানিয়ার সাহিত্যিক আবদুলরাজাক গুরনাহ। সাহিত্যে নোবেল পুরস্কারজয়ী উল্লেখযোগ্য সাহিত্যিকদের ভেতর সমসাময়িক যাঁরা, তাঁরা হলেন- লুইস গ্লিক, ওলগা তোকারচুক, কাজুও ইশিগুরো, সভেৎলানা আলেক্সেইভিচ, এলিস মুনরো, মারিয়ো ভার্গাস ইয়োসা, ওরহান পামুক প্রমুখ।
মানুষের হৃদয়জয়ী প্রয়াত নোবেলজয়ী সাহিত্যিকদের মধ্যে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, জর্জ বার্নার্ড শ, টমাস মান, রমা রলাঁ, আর্নেস্ট হেমিংওয়ে, জন স্টেইনবেক, পাবলো নেরুদা, নাদিন গর্ডিমার, অক্টাভিও পাজ, নাগিব মাহফুজ, ইউসুনারি কাওয়াবাতা, গ্যাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেজ, হোসে সারামাগো প্রমুখ। এ যাবৎ সাহিত্যে সবচেয়ে কম বয়সে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন রুডইয়ার্ড কিপলিং; ৪১ বছর বয়সে। সবচেয়ে বেশি বয়সে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন ডোরিস লেসিং; ৮৮ বছর বয়সে।
নোবেল কমিটির অন্যতম সদস্য ঔপন্যাসিক এলেন ম্যাটসন জানান, সারাবিশ্বে নির্বাচিত লেখক-দার্শনিকসহ প্রাজ্ঞ ব্যক্তিরা রয়েছেন, যাঁরা নোবেল পুরস্কারের জন্য কোনো সাহিত্যিককে প্রাথমিক মনোনয়ন দিয়ে থাকেন। তাঁদের দেওয়া মনোনয়ন অনুযায়ী নোবেল কমিটি রচনাবলি সংগ্রহ ও পাঠ করে থাকে এবং দীর্ঘ আলোচনা-সমালোচনার পর সেই বিশেষ সাহিত্যিককে চিহ্নিত করে, যাঁর লেখা সৌন্দর্য, সৌকর্য, গভীরতা ও স্বকীয়তায় অনন্য।
এ বছর সম্ভাব্য নোবল বিজয়ী হিসেবে পাঠকদের পছন্দের শীর্ষে যাঁরা ছিলেন তাঁদের ভেতর উল্লেখযোগ্য ভারতীয় ব্রিটিশ লেখক সালমান রুশদি, জাপানি লেখক হারুকি মুরাকামি, চেক লেখক মিলান কুন্দেরা, কানাডীয় লেখক মার্গারেট অ্যাটউড প্রমুখ।
আনি আরনো এ যাবৎ ২০টির বেশি বই লিখেছেন। ২০০৮ সালে প্রকাশিত 'লেজানে' আনি আরনোর শ্রেষ্ঠ সাহিত্যকীর্তি হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

 

১৯৪০ সালের ১ সেপ্টেম্বর আনি আরনো ফ্রান্সের নরম্যান্ডির ইভেতোতে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। শ্রমজীবী বাবা-মায়ের ঘরে, পারিপার্শ্বিক প্রতিকূল পরিবেশে বেড়ে ওঠা আর্নো আপন চেষ্টায় প্রথমে রুয়ন ও পরে বোর্দা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭১ সালে আধুনিক সাহিত্য বিষয়ে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেন। স্কুলশিক্ষকের চাকরির পাশাপাশি শুরু হয় তাঁর সাহিত্যচর্চা।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন