international
 09 May 18, 11:10 AM
 67             0

ইরানের সাথে পরমাণু চুক্তি বাতিলের মার্কিন সিদ্ধান্তে ইউরোপ জুড়ে ক্ষোভ ।। সমর্থন সৌদি আরবের  

ইরানের সাথে পরমাণু চুক্তি বাতিলের মার্কিন সিদ্ধান্তে ইউরোপ জুড়ে ক্ষোভ ।। সমর্থন সৌদি আরবের   

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানের সাথে পরমাণু চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করার ঘোষণা দেবার পর ইউরোপের পক্ষ থেকে এ চুক্তি বজায় রাখার জন্য ইরানকে আহ্বান জানানো হয়েছে। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে,জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল এবং ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রো এক যৌথ বিবৃতিতে এ আহ্বান জানিয়েছেন। বিবৃতিতে বলা হয়েছে,যুক্তরাষ্ট্রের সিদ্ধান্তের প্রতিক্রিয়ায় আমরা ইরানকে সংযম প্রদর্শনের জন্য উৎসাহ দিচ্ছি। এ চুক্তির আওতায় ইরানের দিক থেকে যেসব বাধ্যবাধকতা আছে,সেগুলো তারা যেন অবশ্যই মেনে চলে। এ চুক্তি বাতিলের ঘোষণায় হতাশা প্রকাশ করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের ভাইস প্রেসিডেন্ট ফ্রেডরিকা মঘরিনি বলেছেন,ইরান যতক্ষণ পর্যন্ত এ চুক্তির বিষয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, ততক্ষণ পর্যন্ত ইউরোপীয় ইউনিয়ন এ চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য পূর্ণ সমর্থন দিয়ে যাবে। তবে আমেরিকার ঘনিষ্ঠ মিত্র ইসরায়েলের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের প্রশংসা করেছেন।

অন্যদিকে,পরমাণু চুক্তি থেকে আমেরিকার সরে আসার ঘোষণায় ইরান ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে। ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেছেন,তিনি ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করার কাজ পুনরায় শুরু করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্র ঘোষণা করলো যে তারা নিজেদের প্রতিশ্রুতির কোন মর্যাদা রাখে না। ইরানের প্রেসিডেন্ট বলেন,তারা কয়েক সপ্তাহ অপেক্ষা করবেন এবং এ চুক্তির পক্ষে যেসব মিত্র দেশগুলো আছে,তাদের সাথে কথা বলবেন। সবকিছু ইরানের জাতীয় স্বার্থের উপর নির্ভর করবে। জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরেস ট্রাম্পের ঘোষণায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। রাশিয়া মনে করেন,ডোনাল্ড ট্রাম্পের এ সিদ্ধান্ত দুই কোরিয়ার শান্তি প্রক্রিয়াকে সন্দেহের দিকে ঠেলে দিয়েছে। বারাক ওবামা যখন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ছিলেন সে সময় ইরানের সাথে পৃথিবীর বৃহৎ শক্তিগুলো পরমাণু চুক্তি করেছিল। সে চুক্তির মুল বিষয় ছিল,ইরান পরমাণু কার্যক্রম বন্ধ রাখবে এবং আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি কমিশন ইরানের যে কোন পরমাণু স্থাপনায় যে কোন সময় পরিদর্শন করতে পারবে।

অর্থাৎ ইরান যাতে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি করতে না পারে সেজন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ইরানকে নজরদারীর মধ্যে রাখতে পারবে। এর বিনিময়ে ইরানের উপর থেকে অর্থনৈতিক অবরোধ তুলে নেয়া হয়েছিল। চুক্তি থেকে আমেরিকার সরে আসার বিষয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যে ঘোষণা দিয়েছেন সেটিকে মারাত্নক ভুল হিসেবে বর্ণনা করেছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। ওবামা বলেন,ইরানের সাথে পরমাণু চুক্তি ভালোভাবেই কাজ করছিল। ২০১৫ সালে ইরানের সাথে যখন এ চুক্তি করা হয়েছিল তখন সেখানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন তৎকালীন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি। চুক্তি থেকে আমেরিকার প্রত্যাহারের ঘোষণায় কেরি বলেছেন,এ ধরনের সিদ্ধান্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে তাদের মিত্রদের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন করবে।

অপরদিকে এই চুক্তি বাতিল নিয়ে ইউরোপে জুড়ে ক্ষোভ ও হতাশা বাড়লেও মধ্যপ্রাচ্যের মার্কিন মিত্র খ্যাত সৌদি আরব প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার যে ঘোষণা দিয়েছেন তাকে স্বাগত জানিয়ে তার প্রতি সমর্থন ঘোষণা করেছে । সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে,পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার বিষয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে ঘোষণা দিয়েছেন তাকে সৌদি আরব স্বাগত জানাচ্ছে এবং তার প্রতি সমর্থন ঘোষণা করছে। পাশাপাশি ইরানের বিরুদ্ধে যে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের সিদ্ধান্ত নিয়েছে আমেরিকা তার প্রতিও সমর্থন দিচ্ছে।

বিবৃতিতে দাবি করা হয়েছে,পরমাণু সমঝোতা সইয়ের পর ইরানের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের ফলে তেহরান তার সুবিধা নিয়ে মধ্যপ্রাচ্যকে অস্থিতিশীল করার জন্য অর্থ খরচ করছিল। সৌদি আরবের মিত্র দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং বাহরাইনও ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের প্রতি সমর্থন জানিয়ে বিবৃতি প্রকাশ করেছে। এছাড়া,ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন,তেল আবিব ট্রাম্পের ঘোষণার প্রতি পূর্ণ সমর্থন দিচ্ছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানের সঙ্গে ছয় জাতিগোষ্ঠীর সই হওয়া পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')