international
 03 Apr 16, 11:57 AM
 176             0

ভারতীয় সীমান্তে পার্বণের আমেজ ।।

ভারতীয় সীমান্তে পার্বণের আমেজ ।।

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভোট দিতে তড়িঘড়ি বাংলাদেশের আত্মীয় বাড়ি থেকে ফিরেছেন রুনা চৌধুরী। আসামের সুতারকান্দী চেকপোস্টে তাঁর মালপত্র পরীক্ষা করছেন বিএসএফ সদস্যরা । ভারত-বাংলাদেশ চেকপোস্ট। চিত্রটা অনেকটা হরতালের সময়ের মতো। এরই মধ্যে ভারতে ঢুকে জিরো পয়েন্ট থেকে সামান্য পথ হেঁটে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) চেকপোস্টে এসে দাঁড়ালেন বছর তিরিশের এক নারী। দাঁড়াল তাঁর মালমাল বহনকারী ভারতের জাতীয় পতাকা শোভিত ছোট্ট ট্রলি ভ্যানটিও।

বিএসএফের নারী সীমান্তরক্ষী সদস্যদের তল্লাশি শেষে স্বস্তির নিশ্বাস ছেড়ে ওই নারী বলেন, তিনি ভারতীয়। নাম রুনা চৌধুরী। বাংলাদেশে তাঁর আত্মীয়ের বাড়ি থেকে তড়িঘড়ি চলে এসেছেন ভোট দিতে। প্রশ্ন উড়ে গেল, ‘কাকে ভোট দেবেন...!’ প্রশ্ন শেষ না করতেই উত্তরে বলেন, ‘আমার মামাশ্বশুর আবদুল আজিজ ভোটে দাঁড়িয়েছেন। তা ছাড়া আমি তো মুসলমান। তাই “ইউডিএফ”কেই ভোট দেব। রুনা চৌধুরী আর দাঁড়ালেন না, তল্পিতল্পা বুঝে পেয়ে এগিয়ে গেলেন নিজের গন্তব্যে।

ঘটনাস্থল সুতারকান্দী ভারত-বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট। এখান থেকে বাংলাদেশের সিলেট শহরের দূরত্ব মাত্র ৪৫ কিলোমিটার। আসামের বাঙালি-অধ্যুষিত বরাক উপত্যকার প্রায় ৪২ লাখ মানুষের জন্য একমাত্র চেকপোস্ট। মালামালও এই স্থলবন্দর দিয়ে আনা-নেওয়া হয়। তবে ভোট উপলক্ষে দুই দেশের সীমান্তবাণিজ্য এখন বন্ধ। এই পথে লোকজনের আসা-যাওয়া এমনিতেই কম। আর এখন তো প্রায় নেই বললেই চলে। তবু বিএসএফের কড়া নজরদারি। ‘হাই ভোল্টেজ’ ভোটের আগে ডগ স্কোয়াড থেকে শুরু করে সব রকম শক্তি কাজে লাগিয়ে বাড়তি সতর্কতা সীমান্তে ।

ভোটের হাওয়ার আঁচ নিতে ঢুঁ মারলাম পাশের গ্রাম চর খোলায়। রুনা চৌধুরীর কথা মাথায় রেখেই চর খোলার বছর পঁয়তাল্লিশের বাহারুদ্দিন চৌধুরীকে জিজ্ঞাসু দৃষ্টিতে বললাম, আপনি নিশ্চয় ইউডিএফ! অনেকটা রে-রে করেই তেড়ে এলেন বাহারুদ্দিন। বললেন, না, না, আমি বিজেপির সমর্থক। আমরা এই গ্রামের সবাই বিজেপিকেই ভোট দেব। সীমান্তবর্তী এই গ্রামের অন্যরাও কোরাসে সমর্থন দিলেন বাহারুদ্দিনকে। কিন্তু কেন! উত্তর এল ভিড়ের মধ্য থেকেই, তাঁর ভাষায়, বিজেপি তো হিন্দুদের দল নয়, রাজনৈতিক দল। আমরা হিন্দু-মুসলিম সবাই একসঙ্গেই বিজেপি করি ।

পরের গন্তব্য বরাক উপত্যকার করিমগঞ্জ জেলারই আরেক সীমান্তবর্তী গ্রাম বাকরশাল। কুমড়া তুলে ঘরে ফিরছিলেন গৃহবধূ চুমকি সেন। ভোট নিয়ে কথা বলতে চাইলে কিছুতেই রাজি হচ্ছিলেন না প্রথমে। অনেক চাপাচাপির পর বলেন, আমাদের গ্রামে কংগ্রেসই বেশি। আপদে-বিপদে কংগ্রেসকেই পাশে পাই । করিমগঞ্জের সীমান্তবর্তী বাকরশাল, মোবারকপুর, ওয়ারাঙ্গাবাদ, শেরালিপুর প্রভৃতি গ্রামের মানুষদের সঙ্গে কথা বলার পর এটা মোটামুটি স্পষ্ট—নিজেদের রাজনৈতিক পরিচয় লুকিয়ে রাখাটাই এখনো মানুষের বেশি পছন্দ। সেই সঙ্গে জাতীয় বা আন্তর্জাতিক ইস্যু থেকেও স্থানীয় সমস্যাকেই বেশি গুরুত্ব দেয় তারা ।

বরাক উপত্যকার তিনটি জেলায় ১২৮ কিলোমিটার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়ার কাজ শেষ। পাশাপাশি স্থানীয় লোকজনের জমির সমস্যাও অনেকটা মিটিয়ে এখন সীমান্তে জ্বলজ্বল করছে বর্ডার রোড আর বর্ডার লাইটিং। সীমান্তবাসী লোকজন বলেন, তাঁরা খুশি। আন্তসীমান্ত অপরাধ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। শেরালিপুরের কৃষিজীবী নিখিল বিশ্বাস জানান, চুরি-ছিনতাইয়ের মতো ঘটনা প্রায় বন্ধ বললেই চলে। অনুপ্রবেশও নেই এই এলাকায়। ঠিক তেমনি কাটিগড়ার জামালুদ্দিন লস্কর জানালেন, ‘অনুপ্রবেশ’ বা তথাকথিত ‘বাংলাদেশি বিতাড়ন’ নিয়ে তাঁরা মোটেই চিন্তিত নন ।

তাহলে স্থানীয় লোকজন কীসের ভিত্তিতে ভোট দিচ্ছেন? এবারই প্রথম ভোট দিতে যাওয়া কলেজপড়ুয়া মালতি শুক্ল বৈদ্য বলেন, গ্রামে বিজলি নাই। পানীয়জলের সমস্যা আছে। রাস্তা খারাপ। ভোট দেব এই সব ভেবেই! সরকারি কর্মচারী পরিমল শীলও মনে করেন, শহরে যা-ই হোক না কেন, গ্রামের লোকজন ভোট দেন বিভিন্ন সরকারি সুযোগ-সুবিধার নিরিখেই । ভোট যে যাকেই দিক, সীমান্তবর্তী গ্রামগুলোতে কিন্তু এখন উৎসবের আমেজ। চলছে বিভিন্ন দলের কানফাটানো প্রচার-প্রচারণা। তবে উত্তেজনা থাকলেও বরাকের গ্রামগুলো ঘুরে মনে হলো, ভোট যেন একটা ‘পার্বণ’ হয়ে দাঁড়িয়েছে। নেতাদের ওপর অনাস্থা বাড়লেও ভোট দিতে আগ্রহ বেড়েছে। রুনা চৌধুরীর বাংলাদেশ থেকে তড়িঘড়ি চলে আসাটা সেই ইঙ্গিতই দেয় ।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')