international
 21 Mar 16, 11:19 AM
 277             0

পাহাড় থেকে শহর, ভোট প্রচারের শীর্ষে মমতাই ।।

পাহাড় থেকে শহর, ভোট প্রচারের শীর্ষে মমতাই ।।

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সেই ভোটপ্রচার৷ সেই ভিড়৷ আর সেই জনজোয়ার কেটে দীর্ঘপথ হেঁটে পাড়ি দেওয়া৷ এবং একা সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সঙ্গে দলীয় প্রার্থী আর নেতানেত্রীরা ছিলেন বটে৷ কিন্ত্ত প্রতিবারের মতো এবারও লম্বা মিছিলের একমাত্র উপলক্ষ সেই মুখ্যমন্ত্রীই৷ ভোট চাইতে এ দিন বিকেলে জিটি রোড ধরে দক্ষিণ থেকে উত্তর হাওড়ায় টানা ৯ কিলোমিটার হাঁটলেন মমতা৷ বিকেল সওয়া চারটে নাগাদ শালিমার লাগোয়া ব্যাতাইতলা ফাঁড়ি থেকে পদযাত্রা শুরু হয়ে শেষ হল সালকিয়া চৌরাস্তার অদূরে সম্মিলনী পার্কে৷

মিছিল শেষ অবশ্য হওয়ার কথা ছিল আরও দেড় কিলোমিটার আগে , পিলখানা মোড়ে৷ ঘাসফুল দিয়ে সাজানো মঞ্চও সেখানে তৈরি ছিল৷ কিন্ত্ত সেখানে উঠেও নেমে এলেন মমতা৷ 'কর্মসূচিটা মিছিলের , মিটিংয়ের নয় ' জানিয়ে বাঁধভাঙা ভিড়ের উদ্দেশে সাতসকালেই জোড়াফুলে ভোট দেওয়ার আবেদন জানালেন তিনি৷ তার পর সটান হাঁটা লাগালেন আরও উত্তর দিকে৷ পুলিশকর্তারা তখন প্রমাদ গুনছেন , ভাগ্যিস মুখ্যমন্ত্রী ফের জনসমুদ্রে ডুব দিয়ে মিছিলে মিশলেন ! তা না -হলে হয়তো অপরিসর পিলখানা মোড়ে পদপিষ্ট হয়ে যেতেন বেশ কিছু তৃণমূল সমর্থক৷

এ দিনের পুলিশি ব্যবস্থা অবশ্য মমতার আর পাঁচটা পদযাত্রার সঙ্গে মানানসই ছিল না৷ পরিস্থিতি এমন দাঁড়ায় যে বার বারই রাস্তায় দৌড়োদৌড়ি করতে দেখা যায় খোদ পুলিশ কমিশনার ডি পি সিংকেও৷ ভিড় সামলাতে এত বেগ পুলিশকে আগে কখনও খেতে হয়নি ,' বলছিলেন হাওড়া কমিশনারেটের এক কর্তা৷ ব্যাতাইতলা বাজার , কাজিপাড়া , সন্ধ্যাবাজার , মল্লিক ফটক , হাওড়া ময়দান , গোলাবাড়ি মোড় , পিলখানা মোড় হয়ে সীতারাম ঘোষ লেনের কাছে সম্মিলনী পার্কে মিছিল শেষ করতে অবশ্য খুব বেশিক্ষণ নেননি মমতা৷ অরূপ বিশ্বাস ও ববি হাকিমের পাশাপাশি স্থানীয় প্রার্থীদের মধ্যে ডোমজুড়ের রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় , মধ্য হাওড়ার অরূপ রায় , উত্তর হাওড়ার লক্ষ্মীরতন ছিলেন আগাগোড়া৷ ছিলেন হাওড়া সদরের সাংসদ প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়ও৷ তবে পারিষদ যতই থাকুন , দলের স্বার্থে ঘাম ঝরানোর প্রশ্নে যে এখনও মমতাই একমেবাদ্বিতীয়ম , তা স্পষ্ট পাঁচ বছর রাজ্যপাট চালানোর পরও৷

পাঁচ বছর আগের মমতা আর এখনকার মমতার মধ্যে যদি কোনও একটি বিষয়ে বিন্দুমাত্র ফারাক না -থাকে , তা হল দলীয় ভোটের জন্য এই রাজ্য চষে বেড়ানোটাই৷ আগের বিধানসভা ভোটে অবশ্য মমতা প্রার্থী ছিলেন না৷ ফলে কোচবিহার থেকে কাকদ্বীপ তিনি দৌড়ে বেড়িয়েছিলেন ২৯৪ প্রার্থীর (এর মধ্যে ৬৫ জন কংগ্রেসের প্রার্থীও ছিলেন ) জন্যই৷ এ বার কিন্ত্ত পরিস্থিতি আলাদা৷ একে তো পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকার পর সাধারণ নিয়মেই প্রতিষ্ঠান বিরোধিতার হাওয়া (৩৪ বছরের বাম -রাজত্বের সঙ্গে তুলনীয় না -হলেও ) কিছুটা হলেও আছেই৷ তার উপর এ বার তিনি নিজেও প্রার্থী৷ ফলে দলের ২৯৩ জন প্রার্থীর পাশাপাশি প্রচারসূচিতে তাঁর নিজের ভবানীপুর কেন্দ্রের জন্যও সময় বাঁচিয়ে রাখতে হবে৷ তা -ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বিরামহীন , ঠিক পাঁচ বছর আগের রেলমন্ত্রীর মতোই৷

শুধু তা -ই নয়৷ প্রচারের ক্ষেত্রে তিনিই যে দলের একমাত্র মুখ , তা নিয়ে কোনও কালেই কোনও বিতর্ক না -থাকলেও , বিষয়টি এ বার তিনি খুল্লমখুল্লা বলেও দিচ্ছেন ভোটারদের৷ ২০১১ সঙ্গে তুলনা করলে দেখা যাচ্ছে , এ বার তিনি আরও এক কদম এগিয়ে রাজ্যবাসীকে সাফ বার্তা দিন স্রেফ আমাকে দেখে৷ ' রাজনৈতিক মহলের ব্যাখ্যা , এ কথা বলে তিনি শুধু আম ভোটারদেরই নয় , দলীয় নেতাদের উদ্দেশেও কড়া বার্তা দিতে চেয়েছেন৷ ক্ষমতায় থেকে স্বাভাবিক নিয়মেই দলে বেড়েছে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের চোরাস্রোত , সময়ে সময়ে যা উন্মুক্ত হয়ে পড়ে ন্যক্কারজনক ভাবে৷ সম্প্রতি তাতে আবার যোগ হয়েছে ঘুষকাণ্ডের স্টিং -ফুটেজ৷ এ সবে যে আখেরে দলেরই ক্ষতি হচ্ছে , তা বিলক্ষণ বোঝেন নেত্রী৷ তাই মমতা দলীয় ঘোঁটবাজদের ব্যাকফুটে ঠেলে দিতেই প্রার্থীর মুখের দিকে তাকিয়ে নয় , বরং তাঁর মুখের দিকে তাকিয়েই ভোটারদের ইভিএমের বোতাম টিপতে বলেছেন ঘাসফুলে৷

এবং দলীয় প্রচারে সে জন্য দলনেত্রী আক্ষরিক অর্থেই আরও বেশি অক্লান্ত৷ শ্যামবাজার থেকে ডোরিনা ক্রসিং , খিদিরপুর থেকে মোমিনপুর আর জোকা থেকে বেহালা --- তিন থেকে সাড়ে সাত কিলোমিটারের লাগাতার তিনটি পদযাত্রা করেই তিনি উত্তরঙ্গে ছোটেন৷ সেখানে পদযাত্রা করেই কলকাতায় ফিরে এসে ইডেনে হাজিরা দেন৷ পর দিনই ফের শালিমার থেকে সালকিয়ার ৯ কিলোমিটার হাঁটতে থাকেন লাখো লোকের দিকে টানা হাতজোড় করে৷ দলীয় নেতা -কর্মী -সমর্থক থেকে পুলিশের কর্মী -আধিকারিক -বাদবাকি সকলেই হাঁফিয়ে উঠছেন ঘামে জবজবে হয়ে৷ ক্লান্ত হন না শুধু মমতা৷ শাড়ির আঁচলে ঘাম মুছে হাঁটতেই থাকেন তিনি ।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')