health
 27 Jun 16, 01:21 PM
 282             0

হৃদরোগ থেকে সুরক্ষায় আপনার করণীয়

হৃদরোগ থেকে সুরক্ষায় আপনার করণীয়

হেলথ ডেস্ক:

হৃৎযন্ত্রকে অবহেলা নয়: অনেকেরই ধারণা নারীদের হদরোগ হয় না। যদিও বাস্তবে নারীদের হৃদরোগের ঝুঁকি মোটেই কম নয়। হৃদরোগে বহু নারীর মৃত্যু হয়। তাই সর্বদা হৃদরোগ থেকে সাবধান থাকা উচিত।

ওজন বৃদ্ধি: অনেক নারীরই দেহের ওজন বাড়ার প্রবণতা দেখা যায়। আর এর সঙ্গে যদি শারীরিক কার্যক্রমে ঘাটতি থাকে তাহলে হৃদরোগ ও ডায়াবেটিসসহ নানা রোগের আশঙ্কা অনেক বেড়ে যায়। এছাড়া পেটের চর্বি হৃদরোগের ঝুঁকি বৃদ্ধি করতে পারে। তাই পেটের চর্বি যেন বৃদ্ধি না পায় সেজন্য সচেষ্ট থাকা উচিত।

আগে থেকেই সতর্ক হোন: হৃদরোগ হয়ে যাওয়ার পর নিরাময় নয় বরং রোগ হওয়ার আগে থেকেই সতর্ক হওয়া প্রয়োজন। এক্ষেত্রে চর্বি নিয়ন্ত্রণ, চিনি ও মিষ্টি খাওয়া সীমিত করা উচিত। এছাড়া ক্ষতিকর কোলস্টেরলযুক্ত খাবার, শিল্প-কারখানায় প্যাকেটজাত খাবার, বাড়তি লবণ ইত্যাদি থেকে দূরে থাকতে হবে। এছাড়া ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য গ্রহণ ত্যাগ করা উচিত।

হৃদরোগের জটিলতা: নারীদের হৃদরোগ হওয়া মানে শুধুই হৃদরোগ নয়। এর সঙ্গে থাকতে পারে আরও বিভিন্ন রোগের ঝুঁকিও। অনেকেই হৃদরোগের পাশাপাশি হাইপারটেনশন, ডায়াবেটিস ও স্থূলতার মতো জটিলতায় আক্রান্ত হন। গবেষণায় দেখা গেছে, হৃদরোগে আক্রান্ত নারীরা প্রায়ই বিষণ্ণতা ও দুর্বল স্বাস্থ্য সমস্যায় ভুগে থাকেন।

সঠিক চিকিৎসা: অনেক চিকিৎসকই নারীদের চিকিৎসায় বয়স ও আর্থিক সামর্থের বিষয়টি বিবেচনায় নেন না। এতে প্রায়ই রোগ নিরাময়ের তুলনায় রোগটি ঠেকিয়ে রাখাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়। যদিও সঠিকভাবে রোগ নির্ণয়ের পর প্রয়োজন অনুযায়ী শল্যচিকিৎসা নিতে দেরি করা উচিত নয়। জীবন রক্ষার জন্য এ ধরনের ব্যবস্থার গুরত্ব রয়েছে।

মেনোপজ ঝুঁকি: পঞ্চাশোর্ধ নারীদের হৃদরোগের ঝুঁকি বেড়ে যাওয়ার পেছনে মেনোপজের ভূমিকা রয়েছে। অল্পবয়সে নারীদের এস্ট্রোজেন হরমোনের কারণে হৃদরোগ কম হতে পারে। কিন্তু বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এ ঝুঁকি বাড়তে থাকে। তবে হরমোন চিকিৎসায় এ ঝুঁকি কমানো যায়।

ক্ষতিকর কোলস্টেরল: এস্ট্রোজেনের অভাব ছাড়াও আরও কয়েকটি কারণে হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়তে পারে। এক্ষেত্রে ক্ষতিকর কোলস্টেরল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এটি রক্তে বেড়ে গেলে তা ভালো কোলস্টেরল দূর করে এবং হৃদরোগের ঝুঁকিও বেড়ে যায়।

হাইপারটেনশন: বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নারীদের পুরুষের তুলনায় বেশিমাত্রায় হাইপারটেনশনের আশঙ্কা বাড়তে থাকে। অল্পবয়সে যদি ক্ষতিকর খাবার, ধূমপান ও অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করার অভ্যাস থাকে তাহলে বয়স বাড়লে হাইপারটেনশনের আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়।

হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে ফলমূল, সবজি, শিম জাতীয় খাবার, বাদাম, বিভিন্ন ধরনের দানাযুক্ত খাবার বেশি করে খাওয়া উচিত। শুধু খাবারই নয়, সুস্থ হৃৎপিণ্ডের জন্য নিয়মিত শারীরিক পরিশ্রম করাও প্রয়োজনীয়। এক্ষেত্রে প্রতিদিন কমপক্ষে ৫০ মিনিট শারীরিক অনুশীলন করা উচিত।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')