health
 26 Jul 16, 07:52 PM
 260             0

মাছের তেলে হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বাড়ে

মাছের তেলে হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বাড়ে

হেলথ ডেস্কঃ  মাছ খেলে সতেজ থাকে হৃদযন্ত্র, হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা কমে। প্রচলিত এই ধারণা আসলে আগাগোড়া ভুলে ভরা, জানাচ্ছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা। মাছের চর্বিতে রয়েছে ২ ধরনের ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড এপিএ এবং ডিএইচএ, যা অ্যাস্পিরিনের মতোই রক্তের তরলীকরণ প্রক্রিয়ায় সাহায্য করে এবং ধমনীতে জমাট বাঁধার সম্ভাবনা কমায়। গবেষণাগারের পরীক্ষায় দেখা গেছে, ওমেগা-৩ অ্যাসিড প্রদাহ হ্রাস করে, রক্তের প্রবহমানতা বৃদ্ধি করে, রক্তচাপ কমায় এবং স্নায়ুতন্ত্রের কাঠামো শক্তপোক্ত করতে সাহায্য করে।

দুঃখের বিষয়, মাছের তেলের এই সব উপকারিতা শুধুমাত্র গবেষণাগারের চার দেওয়ালের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। বাস্তবে তা মানুষের কাজে লাগে না। হাজার হাজার মানুষের ওপর পরীক্ষা করার ফলে এমনই জানা গেছে। আমেরিকান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের জার্নাল (JAMA)-র সাম্প্রতিক অনুসন্ধানে ৭০ হাজার মানুষের ওপর করা পরীক্ষায় দেখা গেছে, নিয়মিত মাছের তেল খাওয়ার জন্য হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক বা অল্পবয়সে মৃত্যুর মতো ঘটনা ঠেকানো যাচ্ছে না।

উল্টে চিকিত্স্কদের হুঁশিয়ারি, অ্যাস্পিরিন বা রক্ত তরলীকরণের কোনো ওষুধের সঙ্গে মাছের তেল খেলে রক্তবাহী শিরায় ফাটল দেখা দিতে পারে এবং নাক-মুখ দিয়ে রক্তক্ষরণের মতো ঘটনা ঘটাও বিচিত্র নয়। তাঁদের মতে, অক্সিজেনের সংস্পর্শে এসেই মারাত্মক হয়ে উঠছে মাছের তেল বা তার থেকে তৈরি সাপ্লিমেন্ট। তৈলাক্ত মাছ থেকে তেল বের করতে সেগুলি পেষাই করা হয়। হার্ভার্ড মেডিক্যাল স্কুলের বিজ্ঞানী প্রেস্টন মেসন জানিয়েছেন, ফিশ অয়েল সাপ্লিমেন্ট তৈরি করার জন্য মাছ গুঁড়ো করার পর তা সূর্যের আলোর নিচে শুকোতে দেওয়া হয়। এই সময় হাওয়ার স্পর্শে মাছের তেল অক্সিডাইজড বা জারিত হয়। জারিত মাছের তেলে থাকে অক্সিডাইজড লিপিডস, যা মানুষের দেহকোষের ভেতর দ্রুত হারে পরিবর্তন ঘটায় যার জেরে ফুসফুস ও হার্ট সংক্রান্ত বিভিন্ন অসুখ দেখা দিতে পারে।

প্রশ্ন উঠছে, তাহলে মাছের তেলে হার্ট সুস্থ রাখার গল্প কীভাবে চাউর হল?

সত্তরের দশকে ডেনমার্কের দুই গবেষক ডক্টর হ্যান্স ওলাফ ব্যাং এবং ডক্টর জর্ন ডায়ারবার্গ সিদ্ধান্তে পৌঁছান, গ্রিনল্যান্ডবাসী ইন্যুইট প্রজাতির মধ্যে হৃদরোগের সমস্যা বিরল। তাঁদের মতে, ওই প্রজাতির মানুষের খাদ্য তালিকায় মাছ, সিলমাছ ও তিমির দেহাংশের উপস্থিতি হৃদরোগের সম্ভাবনা দূর করেছে। দুই গবেষক জানান, মাছের তেল ও দেহাংশে উপস্থিত ওমেগা-৩ অ্যাসিডই এই অসাধ্য সাধন করেছে। পরবর্তীকালে তাঁদের সিদ্ধান্ত ভুল প্রমাণ করেন ওটাওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডক্টর জর্জ ফোডর। তিনি প্রমাণ দাখিল করে দেখিয়ে দেন, ইন্যুইটদের মধ্যেও হৃদরোগের সমস্যা যথেষ্ট রয়েছে। কিন্তু ততদিনে ডেনমার্কের বিজ্ঞানীদের মতবাদ হাতিয়ার করে ফুলেফেঁপে উঠেছে দুনিয়ার মাছের ব্যবসা। তার ওপর নব্বইয়ের দশকে ইতালির বিজ্ঞানীদের গবেষণায় জানা যায়, ভিটামিন ই-র থেকে অনেক বেশি উপকারী ফিশ অয়েল। তার জেরে আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশন হার্টের রোগীদের জন্য ঢালাও মাছের তেল খাওয়ার পরমায়েশ দেয়। সুযোগ কাজে লাগিয়ে লক্ষ কোটি ডলার কামাতে তত্পজর হয় মাছ ব্যবসায়ী মহল। আর এইখানেই বিপণন দুনিয়ার কেরামতি।

প্রসঙ্গত, বহু বছর আগে বিশ্বের অন্য সব প্রজাতির মাংসকে টেক্কা দিতে মুরগির মাংসকে 'হোয়াইট মিট' তকমা দেওয়ার কৌশল কাজে লাগায় এক বিপণন সংস্থা। বিজ্ঞাপনে বলা হয়, সুস্থ শরীরের জন্য রে়ডমিট ছেড়ে একমাত্র মুরগির মাংসেই আস্থা রাখা চলে। ঘটনা হল, কোলেস্টেরল, চর্বি বা শরীরে পক্ষে ক্ষতিকর অন্যান্য অনেক কিছু পাঁঠা-শুকর-গরুর মাংসের মতো মুরগির মাংসেও উপস্থিত। কিন্তু জনমানসকে প্রভাবিত করার লড়াইয়ে বিজ্ঞাপনের চেয়ে কবেই বা বিজ্ঞান এগোতে পেরেছে? বিপণনের হাত ধরে তাই স্বাস্থ্য রক্ষার জন্য বিশ্বজুড়ে এখন মুরগিরই রমরমা। একই মন্ত্র কাজে লাগিয়ে সফল মাছ ব্যবসাও। পকেট খসিয়ে যেচে বিপদ ডেকে আনছেন সারা বিশ্বের স্বাস্থ্য সন্ধানীরা।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')