health
 25 Jul 16, 01:56 AM
 256             0

যে ৫ কারণে কিছু মানুষকে বেশি কামড়ায় মশারা

যে ৫ কারণে কিছু মানুষকে বেশি কামড়ায় মশারা

স্বাস্থ্য ডেস্ক: আপনি কি কখনো খেয়াল করেছেন যে, মশারা শুধু আপনাকেই বেশি বেশি কামড়ায়? আশপাশে আরো অনেকে বসে থাকলেও মশার আগ্রহ যেন আপনাকে নিয়েই থাকে। এটা আসলে কেবল আপনার কল্পনা নয়। এটা সত্য বল জানান আমেরিকান মসকিউটো কন্ট্রোল অ্যাসোসিয়েশনের টেকনিক্যাল অ্যাডভাইজার জোসেপ এম কনলোন। আসলে কিছু মানুষের ত্বক সবান অগোচরে এমন রাসায়নিক পদার্থ উৎপন্ন করে যা মশাদের আকৃষ্ট করে। এখানে আপনাকে বেশি মশা করড়ানোর সম্ভাব্য ৫টি কারণ তুলে ধরেছেন বিশেষজ্ঞরা। সেগুলো হলো:

১. গর্ভাবস্থা : পরিবেশে কার্বন ডাই অক্সাইড শনাক্তকরণে স্ত্রী প্রজাতির মশার বিশেষ গ্রন্থি রয়েছে। বিগত ২০০২ সালে 'দ্য ল্যানসেট' জার্নালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গর্ভাবস্থায় নারীরা অন্যান্য নারীদের চেয়ে ২১ শতাংশ বেশি কার্বন ডাই অক্সাইড নিঃসরণ করেন। এই পরীক্ষায় দেখা গেছে, গর্ভবতী নারীরা মশাকে আকৃষ্ট করেন। বিশেষ করে গর্ভাবস্থার তৃতীয় ৩ মাসের সময় নারীরা বেশি কার্বন ডাই অক্সাইড বাতাসে ছাড়েন। কর্নেল ইউনিভার্সিটির এন্টোমলজির প্রফেসর লরা হ্যারিংটনের মতে, এই ঘটনার মশাকে আকৃষ্ট করে।

২. বেশি ঘাম বের হয় : অনেকেই আছে যাদের ঘাম অনেক বেশি বের হয়। পরিশ্রমের কারণে ঘামের সঙ্গে ল্যাকটিক এসিড নামের এক পদার্থ বের হয়। এর গন্ধ মশাকে টেনে আনে। দেহের তাপমাত্রা বেশি থাকলে ঘাম বের হয়। দেহের এই উষ্ণতা মশার কাছে আকর্ষণীয় পরিবেশ। এজন্য মশারা তাদের দিকেই ছুটে যায়।

৩. 'ও' গ্রুপের রক্ত : মশারা রক্ত খেতেই আপনার দেহে বসে। 'জার্নাল অব মেডিক্যাল এন্টোমলজি'তে এক গবেষণাপত্রে বলা হয়, মশাকে আকর্ষণের ক্ষেত্রে রক্তের গ্রুপ ভূমিকা রাখে। 'ও' গ্রুপের রক্তে বিশেষ ধরনের গন্ধ রয়েছে। আর তাই মশার আগ্রহ কাড়তে যথেষ্ট, জানান কনলন।

৪. বিয়ার খেয়ে থাকলে : পশ্চিম আফ্রিকায় মশাদের নিয়ে গবেষণা চালায় 'প্লস ওয়ান'। কোন ধরনের জলীয় খেলে মশারা আকৃষ্ট হয় তার ওপর গবেষণা পরিচালিত হয়। এতে করে দেখা গেছে, বিয়ার খেলে মশারা আকৃষ্ট হয়। এছাড়া জাপানে স্বল্প পরিসরে পরিচালিত আরেক গবেষণায় বলা হয়, যারা বিয়ার খান তাদের কামড়াতে উৎসাহী থাকে মশারা।

৫. জেনেটিক : বিকশিত জেনেটিক পরিবর্তন মশাকে আকৃষ্ট করে। লন্ডন স্কুল অব হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিক্যাল মেডিসিন এক গবেষণা প্রতিবেদনে বলে, মশাকে আকৃষ্ট করতে মানুষ প্রাকৃতিকভাবেই কিছু পদার্থ তৈরি করে। আর তা জেনেটিকভাবে নিয়ন্ত্রিত হয়।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')