News71.com
 Business
 03 Oct 22, 12:27 AM
 1438           
 0
 03 Oct 22, 12:27 AM

পর্যটন ব্যবসায় বিনিয়োগ বাড়ছে, সমস্যাও অনেক

পর্যটন ব্যবসায় বিনিয়োগ বাড়ছে, সমস্যাও অনেক

কুয়াকাটা জিরো পয়েন্ট থেকে পশ্চিম দিকে মাত্র ৩০০ মিটার দূরে প্রস্তাবিত মেরিন ড্রাইভ সড়কসংলগ্ন এলাকায় ৪৩ শতক জমির ওপর নির্মিত হচ্ছে পাঁচ তারকা মানের ‘বে-ব্রিজ হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট’। গোল্ড স্যান্ডস হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট লিমিটেড এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক (বিক্রয় ও বিপণন) বাহার শাহদাত হোসেন বলেন, ‘পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় তিন মাস ধরে কুয়াকাটায় পর্যটকের সংখ্যাও বহুগুণ বেড়েছে। এ কারণে বিনিয়োগ করতে সাহস পেয়েছি।’ কুয়াকাটায় ‘গোল্ড স্যান্ডস ট্যুরিজম সিটি’ নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে উল্লেখ করে শাহদাত হোসেন বলেন, এ সিটিতে থাকছে থিম পার্ক, আউটডোর পার্ক, ফেয়ার এক্সিবিশন গ্রাউন্ড, হেরিটেজ সাইট, কালচারাল ফ্যাসিলিটিজ, স্পোর্টস অ্যান্ড রিক্রিয়েশন ফ্যাসিলিটিজ, ট্যুরিজম ইভেন্টস ইত্যাদি।

সরেজমিন ঘুরে ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বে-ব্রিজের মতো আধুনিক সুযোগ-সুবিধাসংবলিত নতুন অন্তত ২০টি আবাসিক হোটেল নির্মাণের কাজ চলছে। চার-পাঁচটি উন্নত মানের খাবার হোটেলও চালু হয়েছে।

২০১০ সালে কুয়াকাটা পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হয়। ‘তৃতীয় শ্রেণির’ এই পৌরসভার সবচেয়ে বড় সমস্যা সড়কব্যবস্থা। জলাবদ্ধতা দূর করতে পাকা নর্দমা, কালভার্ট নেই। ফলে বর্ষার সময় স্থানীয় মানুষসহ পর্যটকদের ভোগান্তির শেষ থাকে না। এ ছাড়া স্থায়ী বাস টার্মিনাল না থাকায় সৈকতে যাতায়াতের প্রধান সড়কটির পাশে দূরদূরান্ত থেকে আসা বাস, মাইক্রোবাস, প্রাইভেট কার দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। এতে পর্যটকসহ স্থানীয় মানুষের চলাচলে দারুণ ভোগান্তি হয়।

কুয়াকাটায় বেড়াতে এসে ময়লা–আবর্জনা নিয়েও পর্যটকদের ভোগান্তিতে পড়তে হয়। সরেজমিনে দেখা যায়, প্লাস্টিকের বোতল, ডাবের খোসা, চানাচুরের প্যাকেট, কাটা মাছের বর্জ্য চারদিকে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে। দুর্গন্ধে পর্যটকেরা স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে পারছেন না।

সৈকত এলাকায় গড়ে ওঠা মাছ ভাজার দোকানদার, চা-পানের দোকানদার, চটপটি বিক্রেতা, শুঁটকি বিক্রেতাদের অসচেতনতার কারণে পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। স্থানীয় প্রশাসন যদি কঠোর না হয়, তাহলে এসব ঠিক করা যাবে না বলে মনে করেন গবেষণাপ্রতিষ্ঠান ওয়ার্ল্ডফিশের ইকোফিশ-২ অ্যাকটিভিটির পটুয়াখালীর সহযোগী গবেষক সাগরিকা স্মৃতি।

পৌরসভার অভ্যন্তরীণ সড়ক, নর্দমা নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন কুয়াকাটা পৌরসভার মেয়র মো. আনোয়ার হাওলাদার। তিনি বলেন, ১৩ কোটি ৬ লাখ টাকা ব্যয়ে বাস টার্মিনাল নির্মাণের কাজ চলছে। আগামী বছরের জুন মাসের মধ্যে পুরো কাজ শেষ হবে। সৈকতের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমকে আরও ত্বরান্বিত করার কথাও বলছেন মেয়র।

কুয়াকাটা সৈকতের জিরো পয়েন্টসংলগ্ন এলাকাসহ পূর্ব ও পশ্চিম দিকের অন্তত পাঁচ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেলচালক ও বাণিজ্যিক আলোকচিত্রীদের বিচরণ। মাঝেমধ্যে তাঁরাও পর্যটকদের ভোগান্তির কারণ হয়ে দাঁড়ান বলে অভিযোগ রয়েছে। ঢাকা থেকে আসা পর্যটক এহসান কবীর বলেন, ‘মোটরসাইকেলচালক আর ফটো তোলার কাজের সঙ্গে জড়িতদের উৎপাতে সৈকতে টেকা যায় না। এরা না চাইলেও কাছে গিয়ে ছবি তোলার জন্য এবং মোটরসাইকেলে করে বেড়ানোর জন্য উৎপীড়ন করতে থাকে, যা বড় বেদনাদায়ক।’

প্রায়ই কুয়াকাটায় বেড়াতে আসেন কলাপাড়া শহরের বাসিন্দা ফারজানা ইয়াসমিন। তিনি বলেন, ‘সৈকতে নামলেই ফটোগ্রাফারদের কবলে পড়ি। কোনো নিষেধ শোনে না। অনেক সময় না বলেও অনেকের ছবি তুলে ফেলে। পরে ওদের ইচ্ছামাফিক মূল্য পরিশোধ করতে হয়।’ পর্যটন এলাকার স্বার্থের কথা বিবেচনা করে এসব বিষয় নিয়ে ভাবা দরকার বলে মনে করেন তিনি।

কুয়াকাটায় পর্যটনের সবচেয়ে বড় আকর্ষণ হচ্ছে সৈকত। সৈকতে অব্যাহত ভাঙনে সেই আকর্ষণ হুমকির মুখে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। কুয়াকাটা পৌরসভার পাঞ্জুপাড়া এলাকায় প্রধান সড়কের পাশে নির্মাণাধীন ‘ব্লু-ওশান’ নামের একটি আবাসিক হোটেলের প্রকল্প ব্যবস্থাপক মো. আরিফ হোসেন বলেন, সৈকত ক্রমে ভেঙে সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে। এ নিয়ে কারও চিন্তা আছে বলে মনে হচ্ছে না।

কুয়াকাটা সৈকত রক্ষা ও উন্নয়নে ১ হাজার ২১১ কোটি টাকার একটি প্রকল্প প্রস্তাব পরিকল্পনা কমিশনে জমা দেওয়া হয়েছে বলে জানান কলাপাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফ হোসেন। তিনি বলেন, সৈকতের ১২ কিলোমিটার এলাকা রক্ষার জন্য প্রস্তাব করা হয়েছে। প্রস্তাবটি অনুমোদিত হলে কাজ শুরু হবে।

কুয়াকাটা সব সময়ই অবহেলার শিকার বলে অভিযোগ কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোতালেব শরীফের। তিনি বলেন, কুয়াকাটার সৈকত রক্ষায় বিজ্ঞানসম্মত ও টেকসই পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। পাশাপাশি ভেতরের দিকের অবকাঠামো এবং জানমাল রক্ষায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ উঁচু করে নির্মাণ করতে হবে। অন্যথায় সবার বিনিয়োগ ভেস্তে যাবে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন