News71.com
 Business
 05 Sep 22, 02:58 PM
 248           
 0
 05 Sep 22, 02:58 PM

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আইন ও রাজনৈতিক অর্থনীতি

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আইন ও রাজনৈতিক অর্থনীতি

নিউজ ডেস্কঃবিশ্ব অর্থনীতির সময় মোটেও ভালো যাচ্ছে না। ২০২০-২১ সালে করোনার ধাক্কায় বিশ্ব ছিল যারপরনাই পর্যুদস্ত। বলা হয়, ১৯২৯ সালের মহামন্দার পর অর্থনীতিতে এত বড় আঘাত আর আসেনি। এর আগে ২০০৭-০৮ সালের আর্থিক মন্দা সম্পদ ও ব্যবসার প্রভূত ক্ষতি করেছিল, যদিও তার প্রভাব সীমিত ছিল উন্নত দেশগুলোতে। উন্নয়নশীল ও অনুন্নত অনেক দেশ, যাদের আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক তুলনামূলকভাবে কম, আর্থিক মন্দা থেকে তারা অনেকটাই সুরক্ষিত ছিল। কিন্তু বিশ্বজুড়ে করোনার প্রভাব ছিল সমান্তরাল ও অভাবনীয়। এ প্রভাব কাটিয়ে উঠতে বিশ্ব যখন উন্মুখ, ঠিক তখনই শুরু হলো রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। এতে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের গতি অনেকটাই কমে গেছে। বিশেষ করে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির মাধ্যমে সারা বিশ্বে ‘মূল্যস্ফীতি’ নামের এক অর্থনৈতিক খড়্গ আরোপ করেছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। বর্তমানে বিশ্বের প্রায় সব দেশের মূল সমস্যা হচ্ছে উচ্চ মূল্যস্ফীতি।

বিশ্বের ধনী দেশগুলোর ক্লাব ওইসিডির বর্তমান মূল্যস্ফীতি ৯ দশমিক ২ শতাংশ, যা গত তিন দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ। আগস্টে ইউরো অঞ্চলের মূল্যস্ফীতি দাঁড়িয়েছে ৯ দশমিক ১ শতাংশ। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যে মূল্যস্ফীতি ১০ শতাংশের ঘরে। তুরস্কের মূল্যস্ফীতি এখন অনেকটাই ধরাছোঁয়ার বাইরে—৭৯ দশমিক ৬ শতাংশ, যা ২৩ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। ইউরো অঞ্চলের দেশগুলোর মূল্যস্ফীতিও লক্ষ্যের তুলনায় অনেক বেশি।

এখন কথা হচ্ছে, মূল্যস্ফীতি মোকাবিলায় কী করা হয় বা কী করা যায়। আমরা জানি, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সাধারণত মূল্যস্ফীতি মোকাবিলায় সংকোচনমূলক মুদ্রানীতি গ্রহণ করে, কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, সেটাই কি যথেষ্ট? সংকোচনমূলক মুদ্রানীতির মাধ্যমে সাধারণত অর্থনীতিতে মুদ্রার সরবরাহ হ্রাস করতে নীতি সুদহার বৃদ্ধি করা হয়। চলতি বছর উচ্চ মূল্যস্ফীতির বাস্তবতায় বিশ্বের প্রায় সব দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক নীতি সুদহার বৃদ্ধি করেছে, কিন্তু তাতে যে মূল্যস্ফীতির রাশ টেনে ধরা যাচ্ছে, তা নয়। এ পরিস্থিতিতে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থনীতির দেশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ইনফ্ল্যাশন রিডাকশন অ্যাক্ট বা মূল্যস্ফীতি হ্রাস আইন করা হয়েছে। জনগণকে উচ্চ মূল্যস্ফীতির করাল গ্রাস থেকে রেহাই দিতে এ আইন করা হয়েছে।

১৬ আগস্ট মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মূল্যস্ফীতি হ্রাস আইনে সই করেছেন। অর্থাৎ সেদিন থেকে তা আইন হিসেবে কার্যকর। বাইডেন আরও বেশ কিছু গরিববান্ধব নীতি প্রণয়নের চেষ্টা করছিলেন, সেগুলো করতে পারলেও এ আইন তাঁকে কিছুটা স্বস্তি দেবে বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকেরা। সামাজিক ও জলবায়ুবিষয়ক উচ্চাকাঙ্ক্ষী নীতি প্রণয়নের ইচ্ছা ছিল বাইডেনের। তিনি চেয়েছিলেন, ধনীদের ওপর আরও বেশি হারে করারোপ করবেন। তবে এই মূল্যস্ফীতি হ্রাস আইনে স্বাস্থ্য ও ওষুধ খাতে বড় ধরনের বিনিয়োগের কথা আছে, ধনী করপোরেশনের ওপর আরও বেশি হারে করারোপের কথাও আছে।

এই আইনের বেশ কিছু ধারা ২০২৫ সালের আগপর্যন্ত কার্যকর হবে না বলেই জানা গেছে, যেমন ওষুধের দাম হ্রাস, বয়স্ক মানুষের ওষুধ খরচ সীমার মধ্যে রাখা ইত্যাদি।

উন্নত দেশগুলো ব্যবস্থা নিচ্ছে

আমেরিকা মূল্যস্ফীতি হ্রাস আইন করেছে। অন্যদিকে যুক্তরাজ্য জ্বালানির ব্যয় হ্রাস করতে নানা ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছে, ভর্তুকি দিচ্ছে। এ মাসেই সেখানে নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হবেন। প্রধানমন্ত্রী পদের দুই প্রার্থী ঋষি সুনাক ও লিজ ট্রাস উভয়ের মূল প্রতিশ্রুতি হচ্ছে মূল্যস্ফীতি মোকাবিলায় সহায়তা করা। তাঁরা নানা ধরনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলো জনগণের ভার লাঘবে তেমন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না, স্বল্পমূল্যে চাল, তেল ও পেঁয়াজ বিক্রি করা ছাড়া। একই সঙ্গে বাজারের ওপর সরকারের লাগাম নেই বললেই চলে, অথচ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশে ওষুধের দাম নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। যুক্তরাজ্যে গ্যাসের দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে।

এখন দেখা যাক, আমেরিকার এই মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ আইনে আর কী ব্যবস্থা আছে। বলা হচ্ছে, সামাজিক নিরাপত্তা খাত ঢেলে সাজাতে সেখানে যে বিল্ড ব্যাক বেটার বিল পেশ করা হয়েছিল, এই মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ আইন তার একটি ক্ষুদ্র সংস্করণ। এর মূল দিকগুলো একবার দেখে নেওয়া যাক—

১৫ শতাংশ করপোরেট কর: যেসব করপোরেশনের বার্ষিক আয় ১০০ কোটি ডলার, তাদের করপোরেট করের নতুন হার হবে ১৫, তবে ব্যক্তি ও পারিবারিক কর বাড়ানো হবে না। এ ছাড়া করপোরেশনগুলোর স্টক বাইব্যাকের ক্ষেত্রে ১ শতাংশ এক্সাইজ শুল্ক আরোপিত হবে।

পরামর্শপত্রের ওষুধের মূল্য সংস্কার: এ আইনের আলোকে মেডিকেয়ার-সুবিধাপ্রাপ্ত মানুষের ওষুধের দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হবে। অর্থাৎ মেডিকেয়ারপ্রাপ্ত মানুষের বার্ষিক চিকিৎসাপত্রে নির্দেশিত ওষুধের ব্যয় বার্ষিক ২ হাজার ডলারের বেশি হবে না, যা শুরু হবে ২০২৫ সালে।

জ্বালানি নিরাপত্তা: উল্লিখিত বিষয়াদি ছাড়াও জলবায়ু সুরক্ষায় নানা ধরনের বিধান রাখা হয়েছে আইনে। যেসব পরিবার জ্বালানি ব্যয় সাশ্রয় করবে বা কার্বন নিঃসরণ হ্রাস করবে, তাদের কর ছাড়সহ নানা ধরনের সুবিধা দেওয়া হবে।

রাজনৈতিক অর্থনীতি

এই আইন মার্কিন জনগণের জন্য বড় ধরনের স্বস্তি নিয়ে না এলেও এ ধরনের উদ্যোগ মানুষকে অন্তত আশ্বস্ত করে, সরকার তাদের জন্য কিছু করছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বের শীর্ষ অর্থনীতির দেশ। এ দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ৬০ হাজার ডলারের ওপরে। তা সত্ত্বেও সেই দেশের সরকার মূল্যস্ফীতির প্রভাব হ্রাসে নানা উদ্যোগ নিচ্ছে। এর আগে কোভিডের সময়ও দেখা গেছে, তারা জনগণকে কয়েক ধাপে নগদ সহায়তা দিয়েছে। সে জন্য তাদের সরকারি ঋণ জিডিপির আকারের চেয়ে বড়। আমাদের মানুষের মাথাপিছু আয় আড়াই হাজার ডলার ছাড়িয়েছে (হিসাব নিয়েও দ্বিমত আছে অনেকের)। অথচ সরকার কেবল বড় শিল্পগোষ্ঠী ও ব্যবসায়ীদের সুবিধা দিয়েই ক্ষান্ত। অর্থাৎ যাঁরা চুঁইয়ে পড়া নীতির প্রবর্তক, তাঁরা সেই নীতি থেকে বেরিয়ে এলেও আমরা নতুন করে তা আঁকড়ে ধরছি। তবে তার কারণ অবশ্য রাজস্বঘাটতি। দেশে বিপুলসংখ্যক মানুষের কর দেওয়ার সামর্থ্য থাকলেও অনেকেই দেন না। এমনকি তাঁদের করজালে নিয়ে আসার বিশেষ উদ্যোগও দেখা যায় না। যাঁরা কর দেন, শুধু তাঁদের ওপরই করের বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয়।

এদিকে জনগণের ক্রয়ক্ষমতার সক্ষমতা বিবেচনা না করে বা ধনীদের কাছ থেকে উইন্ডফল (হঠাৎ প্রাপ্ত মুনাফার ওপর কর) কর না নিয়ে সরকার এক ধাপে জ্বালানি তেলের দাম ৪১ থেকে ৫১ শতাংশ বাড়াল। এতে নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনযাত্রার ওপর আরও চাপ পড়েছে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন