News71.com
 Bangladesh
 06 May 16, 03:31 PM
 603           
 0
 06 May 16, 03:31 PM

ব্যানারে সাইফুর’স এর নাম থাকায় বিদ্যুৎবেগে সভাস্থল বর্জন আইনমন্ত্রী ও ঢাবি ভিসির।। দাবী উঠেছে ইসলামি ব্যাংকেও সর্বস্তরে বর্জনের

ব্যানারে সাইফুর’স এর নাম থাকায় বিদ্যুৎবেগে সভাস্থল বর্জন আইনমন্ত্রী ও ঢাবি ভিসির।। দাবী উঠেছে ইসলামি ব্যাংকেও সর্বস্তরে বর্জনের

নিউজ ডেস্ক : আজ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে মেধাবী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান বর্জন করলেন আইনমন্ত্রী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য । বিষয়টিকে যে যেভাবেই দেখুক, দেশের সচেতন মানুষ এটিকে ইতিবাচক পদক্ষেপ বলেই মনে করছে । সরকার যেখানে কোচিং এর নামে প্রতারনা বন্ধে নানান পদক্ষেপ নিচ্ছে তখন কৌশলে সাইফুর'স এর মত কোচিং পরিচালনাকারি প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন অনুষ্টান স্পনসর করে আবার মুল স্রোতে আসার চেষ্টা করছে । তাদের লক্ষ একটাই সরকারের মন্ত্রী,এমপি সচীবসহ হাই প্রোফাইল লোকদের সহচর্যে এসে সেটাকে ভাঙ্গিয়ে আস্থা অর্জনের নামে জনগনকে প্রতারিত করা।

আজ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে মেধাবী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এবং বিশেষ অতিথি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। অনুষ্ঠান শুরু হলো সময়মতই। মন্ত্রী ও ঢাবির ভিসিও অনুষ্ঠানে এলেন যথাসময়েই। কিন্তু মাত্র ১৩ সেকেন্ড। হ্যাঁ, অনুষ্ঠানস্থলে পৌঁছার ১৩ সেকেন্ডের মধ্যেই সেখান থেকে দ্রুত প্রস্থান করলেন মন্ত্রী। তাকে অনুসরণ করলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য’ও।

তাদের এত দ্রুত অনুষ্ঠান বর্জন ও প্রস্থানের কারণ কি? কারন একটাই , ব্যানারে ছিলো অনুষ্ঠানের পৃষ্টপোষক সাইফুর’স এর নাম। ব্যানারে এই নামটি দেখেই যেন অনুষ্ঠানস্থল থেকে পালিয়ে হাফ ছেড়ে বাঁচলেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক । আর মন্ত্রীর এমন বিদ্যুৎ গতিতে প্রস্থান দেখে হতভম্ব বিশেষ অতিথি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য । তাই তিনিও মন্ত্রীর দেখানো পথ অনুসরণ করে অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করলেন।

আজ শুক্রবার বেলা সোয়া এগারোটায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে ঘটে এই বিরল ঘটনাটি দর্শন করেন উপস্থিত ছাত্র- শিক্ষক-জনতাসহ সন্মানিত অতিথিবৃন্দ ও আয়োজকবৃন্দসহ সন্মানিত সাংবাদিক বৃন্দ। সেখানে ২০১৫ সালের প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা (পিইসি) ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় সাফল্য লাভ করা ডিআরইউ’র সদস্যদের কৃতী সন্তানদের সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদানের আয়োজন করা হয়।

ডিআরইউ আয়োজিত এই সংবর্ধনা ও বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানের পৃষ্টপোষকতা করে বাংলাদেশের খ্যাতনামা কোচিং পরিচালনাকারি প্রতিষ্ঠান সাইফুর’স প্রাইভেট লিমিটেড। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, সাইফুর’স এর চেয়ারপার্সন শামসা আরা খান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাইফুর রহমান খান। অনুষ্ঠানের ব্যানারে তাদের নামও লেখা ছিলো।

পূর্ব নির্ধারিত সুচি অনুযায়ি আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সোয়া এগারোটায় অনুষ্ঠানস্থলে আসেন। ভেতরে প্রবেশ করেই তার চোখ পড়ে ব্যানারের দিকে। তাতে সাইফুর’স নাম লেখা দেখে মাত্র কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন তিনি। ডিআরইউ সাবেক সভাপতি শাহেদ চৌধুরী, বর্তমান সভাপতি জামাল উদ্দীন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কুদ্দুস আফ্রাদসহ অন্যান্যরা চেষ্টা করেও মন্ত্রীকে ফেরাতে পারেনি। একই ভাবে ফিরে যান ঢাবির ভিসিও।

উল্লেখ্য ইতিপূর্বে রাজধানিতে ডেইলি স্টারের এক নৈশভোজ অনুষ্টান থেকে এভাবেই মন্ত্রী এমপিরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করেছিলেন নোবেলজয়ী ড: ইউনুসকে অনুষ্ঠানস্থলে দেখে। কারন শান্তিতে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড: ইউনুস গ্রামীন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ ধরে রাখাসহ বহু বিতর্কিত কর্মকান্ডের কারনে বর্তমান সরকারের যথেষ্ট বিরাগভাজন।

প্রসঙ্গত বলা প্রয়োজন বাংলাদেশে বর্তমানে সাইফুর’স একটি বিতর্কিত নাম। অতিরঞ্জিত বিজ্ঞাপন এবং শিক্ষার্থীদের সঙ্গে প্রতারণার কারণে ইতোমধ্যেই জনমনে ব্যাপক ধিকৃত হয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। সর্বশেষ বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘ইংলিশ-এর ভুলে বাংলাদেশ ব্যাংকের ১৬০ কোটি ডলার হ্যাকারদের হাতছাড়া’-শীর্ষক একটি বিজ্ঞাপন দিয়ে ফের বিতর্কের জন্ম দেয় সাইফুর’স । তাদের এসব বাগাড়ম্বরপূর্ণ ও প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছিলেন শিক্ষামন্ত্রীও।

পরে এ নিয়ে সাংবাদিক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের অনেকেই সাইফুর’স এর ব্যাপারে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখান। শেষ পর্যন্ত প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি ছাড়াই চলে অনুষ্ঠানটি। সাইফুর’স এর কারণে আইনমন্ত্রী ও ঢাবির ভিসি অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করায় অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত অনেক সাংবাদিক নেতাই সাইফুর’স এর বিরুদ্ধ ক্ষোভ প্রকাশ করেন ।সাইফুর’স এর সমালোচনা করে ডিআরইউ এর সাবেক সভাপতি শাহেদ চৌধুরী বলেন, সাইফুর’স সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কিছু বির্তকের জন্ম দিয়েছে। আশা করবো তারা এর থেকে ফিরে আসবেন।

উল্লেখ্য বাংলাদেশ ইসলামি ব্যাংকও তাদের জন্মলগ্ন থেকে যথেষ্ট বিতর্কিত । বাংলাদেশের মানুষের কাছে এটা সর্বজন বিদিত যে ইসলামি ব্যাংকে জামায়াত ইসলামির টাকা লগ্নি করা হয়েছে । যে ব্যাংকে চাকুরি পাওয়ার অন্যতম শর্ত বা যোগ্যতা সক্রিয় ছাত্র শিবির করা । বাজারে রটনা এই ব্যাংকের অর্জিত টাকার সিংহভাগই বেনামে খরচ হয় জানায়াতের সাংগঠনিক কাজে। বর্তমান সরকার যখন জামায়াতের বিরুদ্ধে জিরো টলারেনস নীতি অনুসরন করছে তখন ইসলামি ব্যাংকও কৌশলে বাংলাদেশের জাতীয় ক্রিকেট দলসহ অনেক বড় প্রতিষ্টান ও সরকারি বেসরকারি অনেক আয়োজনে স্পনসর হয়ে নিজেদের শরীর থেকে জামায়াত ইসলামির তকমা মুছে ফেলার চেষ্টা করছে। তাদেরকে সর্বস্তরে বয়কট করা হোক এ দাবী আজ সময়ের পাশাপাশি সকল স্বাধীনতাকামি ও মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের মানুষের।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন