Technology
 29 May 16, 03:05 PM
 507             0

বুগাত্তি চিরন: পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী বিলাসবহুল গাড়ি!!

বুগাত্তি চিরন: পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী বিলাসবহুল গাড়ি!!

নিউজ ডেস্ক : চোখ ধাঁধানো পারফর্মেন্স, উত্তেজনাকর স্টাইল, অবিশ্বাস্য হর্স পাওয়ার আর হৃষ্টপৃষ্ট অংকের দাম! এই কয়েকটা বিষয়ই যথেষ্ট বর্তমান সময়ের যেকোন একটি সুপার কারের সংজ্ঞায়। তবে গাড়ি প্রেমিদের ঠোঁটে সবসময় কয়েকটি প্রশ্ন লেগেই থাকে। আর তা হলো পৃথিবীর সবচেয়ে সেরা গাড়ি কোনটি? সবচেয়ে দ্রুতগতির গাড়ি কোনটি? কিংবা সবচেয়ে শক্তিশালী কোনটি?

গাড়ির গতি নির্ভর করে মূলত গাড়ির শক্তির উপর। তবে এই শক্তি কিন্তু কুস্তি খেলায় প্রতিপক্ষকে হারিয়ে দেবার শক্তি নয়। এই শক্তি হচ্ছে গাড়ির অশ্ব ক্ষমতা। পৃথিবীর সেরা ৫ গাড়ির মধ্যে আগে থেকেই ছিল বুগাত্তি ভেরন সুপার স্পোর্টস কার। এবার বুগাত্তির বহরে যুক্ত হল পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী গাড়ি - বুগাত্তি চিরন। গাড়ি যাঁদের প্যাশন তাঁদেরকে আর বুগাত্তি নামটার সঙ্গে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দিবার কিছু নেই ।

পৃথিবীর সবচেয়ে দামি গাড়ি প্রস্তুতকারকদের মধ্যে অন্যতম এই কোম্পানি। সেরা ৫ গাড়ির তালিকায় আগেই ছিল বুগাত্তি ভেরন সুপার স্পোর্টস, যার বাজার মূল্য প্রায় ২.৪ মিলিয়ন ডলার। সর্বোচ্চ গতিবেগ ৪০৮.৮৪ কিমি প্রতি ঘণ্টায় । এবার কোম্পানির গাড়ির তালিকায় সংযুক্ত হল নতুন গাড়ি বুগাত্তি চিরন। কোম্পানির দাবি এটিই পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী গাড়ি। কারণটা এ গাড়ির হর্স পাওয়ার ।

সাধারণ গাড়ির গড় হর্স পাওয়ার থাকে ১০০ থেকে ১২৫ এর মধ্যে। বুগাত্তি চিরন-এর ক্ষেত্রে সংখ্যাটা দাঁড়িয়েছে ১৪৭৮ হর্স পাওয়ার! যা কিনা বুগাত্তি ভেরনের চেয়েও ৩০০ হর্স পাওয়ার বেশি। এই গাড়িতে রয়েছে ৮.০ লিটার ডব্লিউ ১৬ কোয়াড টার্বো ইঞ্জিন। মাত্র ২০০০ আরপিএমে ১৬০০ এনএম টর্ক নিতে পারে এই গাড়ি। টু-স্টেজ টার্বোচার্জিং সিস্টেমের এই গাড়িতে রয়েছে ৪ টি টার্বোচার্জার। বুগাত্তি ভেরনের মতোই এই গাড়ির কাঠামোতে ব্যবহার করা হয়েছে কার্বন ফাইবার। স্বাধীন সাসপেন্স এর এই গাড়ির সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘন্টায় ৪২০ কিমি এবং স্টার্ট দিয়েই ১০০ কিমি প্রতি ঘণ্টার স্প্রিন্ট নিতে পারে ২.৪ সেকেন্ডে। সম্প্রতি জেনেভা মোটর শোতে আনভেইল করা হয়েছে এই গাড়ি এবং তাক লাগিয়ে দিয়েছে সারা পৃথিবীর মোটর বিশেষজ্ঞদের ।

উল্লেখ্য যে, গাড়িটির নামকরন করা হয়েছে বুগাত্তির অন্যতম সেরা রেসার লুইস চিরনের নামে। ২০১৬ সালের শেষ নাগাদ এই গাড়িটি বাজারে পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছেন এর প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান এবং এর বাজার মূল্য নির্ধারন করা হয়েছে প্রায় ২.৬৬ মিলিয়ন ডলার ।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')