Technology
 05 May 16, 11:06 AM
 367             0

পৃথিবীর খুব কাছেই বাসযোগ্য আরও ৩ গ্রহ, দেখা মিলতে পারে এলিয়েনদেরও!!

পৃথিবীর খুব কাছেই বাসযোগ্য আরও ৩ গ্রহ, দেখা মিলতে পারে এলিয়েনদেরও!!

নিউজ ডেস্কঃ সৌরজগতের কাছাকাছি একটি অনুজ্জ্বল নক্ষত্রকে প্রদক্ষিণ করছে তিনটি গ্রহ। আর এ গ্রহগুলো নিয়েই নতুন করে আশাবাদী হয়ে উঠছেন গবেষকরা। কারণ বৃহস্পতি গ্রহের তুলনায় সামান্য বড় এ নক্ষত্রটির চারপাশে পদক্ষিণরত গ্রহগুলো জীবনধারণের উপযোগী।

মহাকাশ গবেষকরা যে নক্ষত্রটি নিয়ে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন তার নাম ২ম্যাসজে২৩০৬২৯২৮-০৫০২২৮৫। এ নক্ষত্রটি পাওয়া গেছে চিলির একটি টেলিস্কোপ থকে, যার নাম ট্র্যাপিস্ট (TRAnsiting Planets and PlanetesImals Small Telescope- TRAPPIST). এ টেলিস্কোপ থেকেই দেখা গেছে, নক্ষত্রটির অজানা তথ্য। এ কারণে তার নাম দেওয়া হয়েছে ট্র্যাপিস্ট ১। এটি সূর্যের তুলনায় প্রায় দুই হাজার গুণ অনুজ্জ্বল। গবেষকদের একটি দল এই নক্ষত্রটির চারপাশেই আবর্তনরত তিনটি গ্রহের সন্ধান পেয়েছেন। ট্র্যাপিস্ট ১ সূর্যের তুলনায় অনেক ঠাণ্ডা ও লাল বর্ণের। আর সেটি বৃহস্পতি গ্রহটির চেয়ে খানিকটা বড়।

গবেষকদলের অন্যতম সদস্য ও বেলজিয়ামের ইউনিভার্সিটি অব লিজ এর গবেষক মাইকেল গিলন বলেছেন, ওই তিন গ্রহ তারকাটির অনেক কাছাকাছি থেকে ঘুরছে। সূর্য থেকে পৃথিবীর যা দূরত্ব তার ২০ থেকে ১০০ ভাগ কম দূরত্ব হবে ওই গ্রহগুলোর। গবেষকরা মনে করছেন তিনটি গ্রহই বসবাসযোগ্য হবে, আর এখন ওই গ্রহগুলোই তাদের গবেষণায় বড় গুরুত্ব পাচ্ছে। তারা বলছেন, যন্ত্রপাতি ও প্রযুক্তি যা রয়েছে তা দিয়েই এখানে গবেষণা এগিয়ে নেওয়া সম্ভব। আর প্রাণের অস্তিত্ব থাকলে তার বের হয়েও আসবে।

ট্র্যাপিস্ট ১ নক্ষত্রটির অপেক্ষাকৃত কাছের দুটি গ্রহ তার চারিদিকে একবার ঘুরে আসছে পৃথিবীর হিসেবে ১.৫ দিন ও ২.৪ দিনে। আর তৃতীয়টি এখনো কিছুটা অগোছালো তথ্য দিচ্ছে। হতে পারে সেটি চার থেকে ৭৩ দিনে একবার প্রদক্ষিণ করছে। বিজ্ঞানীরা এই তৃতীয়টিকেই সবচেয়ে গুরুত্ব দিচ্ছেন। তাদের ধারণা, এ গ্রহেই এলিয়েন বা ভিনগ্রহের প্রাণী থাকার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি।

নতুন আবিষ্কৃত এই তিন গ্রহে দিনরাত আসে বলেই ধারণা করচ্ছেন গবেষকরা। এ কারণে তারা এখানে প্রাণীর উপস্থিতি নিয়ে খুবই আশাবাদী। বর্তমানে এই গ্রহের বায়ুমণ্ডলে কী রয়েছে তা জানার চেষ্টা করছেন গবেষকরা। পৃথিবীর সঙ্গে এ তিন গ্রহের আকারেও যথেষ্ট মিল রয়েছে। গবেষকরা বলছেন, এ গ্রহগুলোর ব্যাস পৃথিবী থেকে মাত্র ১০ ভাগ বেশি। ফলে তা পৃথিবীর মতোই বাসযোগ্য হতে পারে, এমন আশাই করছেন গবেষকরা।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')