Technology
 02 Apr 16, 12:20 PM
 616             0

অ্যাপলের পণ্য পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণে উদ্ভাবন হয়েছে রোবটিক সিস্টেম ।।

অ্যাপলের পণ্য পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণে উদ্ভাবন হয়েছে রোবটিক সিস্টেম ।।

 

নিউজ ডেস্কঃ অ্যাপলের পণ্য পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণের জন্য প্রতিষ্ঠানটি উদ্ভাবন করেছে একটি রোবটিক সিস্টেম। লিয়াম নামের এ রোবটিক সিস্টেম অ্যাপলের আইফোন , আইপ্যাড এবং কম্পিউটারের উচ্চ মানসম্পন্ন ধাতু পুনঃপ্রক্রিয়াজাত করে আবারো ব্যবহারোপযোগী করে তুলবে। এতে ই-বর্জ্যের পরিমাণ কিছুটা হলেও কমবে বলে মনে করছে অ্যাপল কর্তৃপক্ষ ।

বিশ্বব্যাপী দিনদিনই বাড়ছে ই-বর্জ্যের পরিমাণ। অথচ অ্যাপলের মতো জনপ্রিয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের পণ্য পুনঃপ্রক্রিয়াজাত করা যায় না। আর এ কারণে দুষ্প্রাপ্য টাংস্টেন জাতীয় ধাতুর বিপুল পরিমাণ রয়ে যায় অব্যবহৃত। এ অভিযোগ কোনভাবেই মেনে নেয়ার মতো বলেই আইফোন, আইপ্যাড এবং কম্পিউটারের উচ্চ মানসম্পন্ন ধাতু পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণের জন্য লিয়াম নামের এই রোবটিক সিস্টেমের উদ্ভাবন করেছে অ্যাপল। এ মেশিন তৈরিতে অ্যাপলের সময় লেগেছে ৩ বছর। মেশিনটি বেশ নিখুঁতভাবে এবং যত্নের সাথেই অ্যাপলের যেকোন পণ্য পুনঃপ্রক্রিয়াজাত করে ।

পরিবেশ বিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট লিসা জ্যাকসন বলেন, অ্যাপল লিয়াম যা করতে পারে বিশ্বের অন্য কোন মেশিন তা করতে পারে না। এটি ক্যালিফোর্নিয়ায় অ্যাপেলের প্রকৌশলীরা তৈরি করেছে। এই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে আমরা পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণের কাজে আরো এক ধাপ এগিয়ে গেলাম । আপাতত ক্যালিফোর্নিয়ায় অ্যাপলের প্রধান কার্যালয়ে আইফোন সিক্স নিয়েই কাজ করছে লিয়াম। প্রতিটা আইফোনের জন্য সময় নিচ্ছে মাত্র ১১ সেকেন্ড। এভাবে কাজ করলে প্রতি বছর কয়েক লাখ আইফোন পুনঃপ্রক্রিয়াজাত করতে পারবে রোবটিক এ মেশিন ।

লিসা জ্যাকসন বলেন, অ্যাপল লিয়াম আইফোনের সব যন্ত্রাংশ এমন যত্নের সাথে আলাদা করে যে আমরা এগুলোকে অন্য কোন পণ্যে অনায়াসেই ব্যবহার করতে পারবো। কারণ আইফোনের সব যন্ত্রাংশ অন্য কোন না কোন যন্ত্রে ব্যবহার করা যাবে। তাছাড়া এটা আমাদের পরিবেশের জন্যেও ভাল । ভবিষ্যতে অন্যান্য টেক পণ্যে অ্যাপলের রিসাইকেল করা ধাতু ব্যবহারের আশাও রয়েছে অ্যাপল কর্তৃপক্ষের ।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন