Technology
 26 Mar 16, 03:11 AM
 596             0

নভমন্ডলে নতুন ‘দৈত্যাকার নক্ষত্র’ আবিষ্কার !!

নভমন্ডলে নতুন ‘দৈত্যাকার নক্ষত্র’ আবিষ্কার !!

নিউজ ডেস্ক : 'হাবল স্পেস টেলিস্কোপ’ এটি ইউরোপীয় স্পেস এজেন্সি এবং নাসা দ্বারা পরিচালিত একটি দূরবীক্ষণ যন্ত্র। গত ২০-২৭ অক্টোবর, ২০০৯ ইং তারিখে হাবল ‘R136’ তারকা ক্লাস্টারের কিছু ফটো নেয়। যার দ্বারা পরবর্তীতে সুদীর্ঘদিন গবেষণার মাধ্যমে বের হয়ে এসেছে বিভিন্ন চাঞ্চল্যকর তথ্য। ছবিগুলো নিয়ে গবেষণার দ্বারা জানা যায় উক্ত তারকা ক্লাস্টারের নয়টি দৈত্যাকার নক্ষত্রের আয়তন ১০০টি সূর্যের আয়তন অপেক্ষাও বৃহৎ।

আয়তনের জন্য ‘R136a1’ মহাবিশ্বের সবচেয়ে ব্যাপক পরিচিত নক্ষত্র গুলোর মধ্যে একটি তারকা। এমনকি ‘R136’ এ যে যে সর্বাধিক ক্ষুদ্র নক্ষত্র আছে সেগুলোর আয়তনও অত্যাধিক বৃহৎ। যেখানে ১২টি নক্ষত্রের আয়তন ৫০টি সূর্যের আয়তনকেও ছাড়িয়ে যায়। এছাড়াও উক্ত নক্ষত্র সমূহ অবিশ্বাস্যরূপে উজ্জ্বল। প্রদত্ত রিপোর্ট অনুসারে এর নয়টি বৃহত্তম নক্ষত্র একত্রে একটি সূর্য অপেক্ষা 30 মিলিয়ন গুণ বেশি উজ্জ্বল।

R136 পৃথিবী থেকে প্রায় ১,৭০,০০০ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত। ‘ট্যেরেন্টুলা ন্যেবিউলা’ নামক একটি নেহারিকার অভ্যন্তরে এর অবস্থান। এই দূরত্বের একটি ধারণা প্রদানের ক্ষেত্রে বলা যায়, ‘আলফা সেন্টোরি’ -যেটি পৃথিবীর সবচেয়ে নিকটতম তারকা সেটি ৪.৩ আলোকবর্ষ দূরে বা প্রায় ২৫ ট্রিলিয়ন মাইল দূরে অবস্থিত।

নতুন এই আবিষ্কারের মাধ্যমে কসমিক স্কেলের শর্তাবলী অনুযায়ী এসব নক্ষত্রের নতুন নতুন গাঠনিক তথ্য জানা যায়। এসব নক্ষত্র সমূহ সুপারনোভায় পরিবর্তিত হতে মাত্র কয়েক মিলিয়ন বছর সময় নেয়।

ইউনিভার্সিটি অফ শেফিল্ড এস্ট্রোফিজিসিস্ট নামক একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রধান, পল ক্রোথার বলেন, "আমাদের কাজ প্রমান করে যে, ২৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে কক্ষপথে থাকার কারনে, সেখানে বিজ্ঞানের কিছু অঞ্চলে ‘হাবল’ এখনও স্বতন্ত্র ভূমিকা রাখতে সক্ষম হচ্ছে।" তিনি আরও বলেন এর পরবর্তী গবেষণা লব্ধ ফলাফল রয়েল অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটি’র মাসিক নোটিশে প্রকাশ করা হবে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন