News71.com
 International
 27 Aug 21, 12:47 PM
 47           
 0
 27 Aug 21, 12:47 PM

আফগান সরকার গঠনে চরম অচলাবস্থা॥ আরও বড় ধরনের হামলার উস্কানি

আফগান সরকার গঠনে চরম অচলাবস্থা॥ আরও বড় ধরনের হামলার উস্কানি

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ এত স্পষ্ট সতর্কবার্তা থাকলেও কাবুল বিমানবন্দর এলাকার এই হামলা এড়ানো গেল না কেন? এর উত্তর লুকিয়ে রয়েছে কাবুল বিমানবন্দর ও তার চারপাশের বর্তমান পরিস্থিতির মধ্যে। গত কয়েক দিন ধরে এই বিমানবন্দর দিয়ে দেশ ছাড়ছেন হাজার হাজার মানুষ। কিন্তু যাঁরা বিমানে উঠছেন, তার থেকে কয়েক গুণ বেশি মানুষ রয়ে যাচ্ছেন পিছনে। বিমানবন্দরের ভিতরে রয়েছেন প্রায় সাত হাজার আমেরিকান সেনা আর নেটো বাহিনী। তাঁরাই ৩১ অগস্ট পর্যন্ত বিমানবন্দরের নিরাপত্তার দায়িত্ব সামলাচ্ছেন। কিন্তু বিমানবন্দরের বাইরে চূড়ান্ত অরাজকতা। তালিবান রক্ষীরা ভিড় সামলানোর চেষ্টা করলেও বিশেষ সাফল্য মিলছে না। মাঝেমাঝে এই তালিবান রক্ষীরা ভিড় নিয়ন্ত্রণ করতে গুলি চালান। তাতে হুড়োহুড়ি আরও বেড়ে যায়। গত কয়েক দিনে এই বিমানবন্দরের বাইরে ভিড়ে পদপিষ্ট হয়ে মারা গিয়েছেন অন্তত কুড়ি জন স্থানীয় আফগান।


কাবুল-সহ দেশের প্রায় পুরোটা দখল করে নেওয়া তালিবানের পক্ষে যতটা সহজ ছিল, দেশে সরকার গঠন করা তাদের পক্ষে এতটা সহজ হচ্ছে না। তাদের এই কাজে অন্যতম প্রধান অন্তরায় দেশের উত্তর প্রান্তে পঞ্জশির প্রদেশে নর্দার্ন অ্যালায়ান্সের প্রতিরোধ। সেখানে প্রয়াত আফগান হিরো আহম্মেদ শাহ মাসুদের অনুগতরা তার ছেলে আহম্মেদ মাসুদের নেতৃত্বে শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে। এছাড়াও দেশটিতে জাত-পাতের রাজনীতিও চরমে। সেখানে সিয়া-সুন্নি, পাশতুন, উজবেক, হাজারাসহ বেশ কয়েক শ্রেনীর মানুষের বসবাস। তাদের মধ্যে বিভেধও চরমে। এদের সরকলকে এক ছাতার তলায় আনা খুবই কঠিন হবে তালিবানের। বর্তমানে তালিবান গোষ্ঠীর বাইরে যে সব ক্ষমতাশালী নেতা রয়েছেন, তাঁদেরও এক ছাতার তলায় নিয়ে আসা সম্ভব হচ্ছে না তালিবানের পক্ষে। গত কয়েক দিন ধরে প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজ়াইয়ের সঙ্গে আলোচনা চালানোর পরে আজ তাঁকে গৃহবন্দি করে তালিবান। গৃহবন্দি করা হয়েছে আর এক গুরুত্বপূর্ণ নেতা, আশরফ গনি আমলের চিফ এগজ়িকিউটিভ অফিসার আবদুল্লা আবদুল্লাকেও। তাঁদের সব গাড়ি বাজেয়াপ্ত করেছে তালিবান।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন