News71.com
 Bangladesh
 09 Jun 21, 10:45 AM
 22           
 0
 09 Jun 21, 10:45 AM

সিলেটে ভূমিকম্প।। দুশ্চিন্তার কারণ ডাউকি ফল্ট

সিলেটে ভূমিকম্প।। দুশ্চিন্তার কারণ ডাউকি ফল্ট

 

নিউজ ডেস্কঃ দেশে বিপজ্জনক ভূকম্পনের প্রধান উৎস হচ্ছে সিলেটের জৈন্তাপুর এলাকার ডাউকি ফল্ট। গত ১০ দিনের ব্যবধানে সিলেটে যে ১০ দফা ভূমিকম্প হয়েছে, তার উৎপত্তিস্থল ছিল ডাউকি ফল্ট। এটাই দুশ্চিন্তার কারণ বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। ১৮৯৭ সালে ডাউকি ফল্টের পূর্ব প্রান্তে ৮.৭ মাত্রার একটি বড় ভূমিকম্প হয়েছিল, কিন্তু ডাউকি ফল্টের পশ্চিম প্রান্তে ৪০০ বছর ধরে বড় কোনো ভূমিকম্প হয়নি। এই প্রান্তে রয়েছে সিলেট ও সুনামগঞ্জের অবস্থান। ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে একই এলাকায় ভূমিকম্প অনুভূত হয়। ২০২০ সালের এপ্রিলে সিলেট অঞ্চলে আরেকটি ভূমিকম্প হয়। এগুলোও ছোট মাত্রার ভূমিকম্প ছিল।

 

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাধারণত বড় ভূমিকম্পের আগে বা পরে এমন দফায় দফায় মৃদু কম্পন হতে পারে। ফলে ভূমিকম্পের চরম ঝুঁকিতে রয়েছে সিলেট। আর সিলেট থেকে খুব বেশি দূরে নয় রাজধানী ঢাকার অবস্থান। সেখানে যদি ৬ মাত্রার বেশি ভূমিকম্প হয় তাহলে এর বড় প্রভাব পড়বে রাজধানীসহ দেশের অনেক অঞ্চলেই। জাতিসংঘের আর্থকোয়াক ডিজাস্টার রিস্ক ইনডেক্সেও ভূমিকম্পের ঝুঁকিতে ২০টি শহরের মধ্যে রাজধানী ঢাকা দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। ভূমিকম্পের ক্ষেত্রে ইরানের রাজধানী তেহরান রয়েছে শীর্ষে। ভূমিকম্প সংঘটিত হওয়া ও তা মোকাবেলার প্রস্তুতি মিলিয়ে এই ঝুঁকি নির্ধারণ করা হয়।

 

জানা যায়, বাংলাদেশ পৃথিবীর ভূমিকম্পপ্রবণ অঞ্চল, তথা হিমালয় বেল্টে অবস্থিত হওয়ায় প্রাচীনকাল থেকে এ দেশে ভূমিকম্প হয়ে আসছে। পৃথিবীর অন্যান্য দেশের তুলনায় ঢাকায় ভূমিকম্পে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ অনেক বেশি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে উল্লেখ করে এর কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, জাতিসংঘের সূচকে জনসংখ্যার ঘনত্ব, অধিক ভবন, অপরিকল্পিত অবকাঠামো, শহরাঞ্চলে খোলা জায়গার অভাব ও সরু গলিপথ, লাইফলাইনগুলোর দুরবস্থা। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে বিভিন্ন সময়ে করা জরিপে দেখা যায়, ঢাকা জেলায় মোট ১৩ লাখ, চট্টগ্রামে তিন লাখ এবং সিলেট জেলায় এক লাখ বহুতল ভবন রয়েছে। এসব ভবনের ৭৫ শতাংশ হচ্ছে ছয়তলা বা তার চেয়ে বেশি। ৭ মাত্রার ভূমিকম্প হলে এই ভবনগুলো এবং এর বাসিন্দারা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন