Bangladesh
 21 Aug 20, 06:40 PM
 89             0

উপকুলে নদী ভাঙন॥ সুন্দরবন উপকূলীয় জনগণ লোকালয় প্লাবিত হওয়ার শঙ্কা

উপকুলে নদী ভাঙন॥ সুন্দরবন উপকূলীয় জনগণ লোকালয় প্লাবিত হওয়ার শঙ্কা

খুলনা সংবাদদাতা: ভাদ্র মাসের লাগাতার বর্ষন ও বঙ্গোপ সাগরে লঘুচাপের প্রভাবে উপক’লীয় জেলা খুলনার তিনটি উপজেলার মানুষ চরম আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। ইতোমধ্যে কয়রার কয়েকটি স্থানে এবং পাইকগাছা উপজেলার সোলাদানা ইউনিয়নের বয়ারঝাপা এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডেও বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ ভেঙ্গে বিস্তৃর্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ভেসে গেছে চিংড়ি ঘের। তলিযে গেছে সদ্য রোপনকৃত রোপা আমন। এছাড়া বিল এলাকা পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় অবশিষ্ট জমিতে আমন রোপন ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায় , খুলনার সুন্দরবন উপকূলীয় উপজেলা কয়রার নদ নদীতে জোয়ারের পানির ¯্রােত ও উচ্চতা বেড়েছে। বৃষ্টি, নদীর স্রোত ও দমকা বাতাসে পানি উন্নয়ন বোর্ড নিমির্ত বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। কোন কোন স্থানে ভাঙ্গনে রুপ নিচ্ছে। কয়রার বেদকাশী ইউনিয়নের গাজিপাড়া, গাববুনিয়া, কাশিরহাটসহ বেশ কয়েকটি স্থানে আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্ত বাধে বিকল্প বেড়ি বাঁধ দেয়া হলেও তা ভেঙ্গে গেছে। আতঙ্কে রয়েছেন আম্ফানের তান্ডবের শিকার এই উপজেলার মানুষ।


ঈানি উন্নযন বোর্ড কয়রার সেকশান অফিসার মো: সেলিম হোসেন মিয়া জানান কয়রার কাজী পাড়া, পুটিহারী, হরিণখোলা, কাশির হাট খোলা, ঘাটাখালি, দুই নম্বর কয়রা এলাকায় হঠাৎ করে অতিরিক্ত জোয়ারের পানিতে ডুবে পড়েছে। আবহাওয়া বৈরি হওয়ায় হরিণখোলা, ঘাটাখালি, দুই নম্বর কয়রার রিং বাঁধ উপচে কপোতাক্ষ নদের পানি গ্রামে প্রবেশ করেছে। এলজিইডির রিং বাঁধ ভেঙে গ্রামে পানি ডুকছে। প্রায় প্রতিটি ঘরে তিন থেকে চার ফুট পানি উঠেছে। এমন অবস্থা দাকোপ উপজেলারও বেশ কিছু এলাকা বলে জানিয়েছেন পানি উন্নয়ন বোর্ড খুলনার নিবাহি প্রকৌশলী পলাশ কুমার ব্যানার্জী। তিনি জানান প্রচন্ড দমকা বাতাস, নদীর পানি বৃদ্ধি এবং ভাটার সময়ে পানি না নেমে যাওয়ায় বাধ ভেঙ্গে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।


তবে পানি উন্নয়ন বোর্ড সার্বক্ষনিক তদারকি করছে। অপরদিকে কয়রা উপজেলায় ভেঙ্গে যাওয়া বেড়িবাঁধ শুক্রবার সকাল থেকে স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে উপজেলা নির্বাহি অফিসারের তত্বাবধানে মেরামত করা হচ্ছে। দ্রুততম সময়ের মধ্যে বাঁধ আটকাতে পারবেন এমনটাই প্রত্যাশা প্রশাসনের। মৎস্য খাতের ক্ষয়ক্ষতি নিরুপনে মাঠ পর্যায়ে কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন জেলা মৎস্য অফিসার মো: আবু ছাইদ। কয়রা, পাইকগাছা ও দাকোপ উপজেলায় চিংড়ি ও মৎস্য ঘেরের সংখ্যা প্রায় ১৩ হাজার। কয়রা উপজেলা নির্বাহি অফিসার অনিমেষ বিশ^াস জানান, এলাকাবাসীর অংশগ্রহনে ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধ মেরামত করা হচ্ছে। এয়াড়া নারী, শিশু ও প্রাণিসম্পদের যাতে জীবনহানি না ঘটে সেলক্ষে প্রশাসন যথেষ্ট তৎপর।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')