bangladesh
 06 Sep 19, 01:20 PM
 23             0

যশোরে পুলিশ ও সোর্সের বিরুদ্ধে ওঠা গৃহবধূকে ধর্ষণ অভিযোগের প্রমাণ মিলেছে॥

যশোরে পুলিশ ও সোর্সের বিরুদ্ধে ওঠা গৃহবধূকে ধর্ষণ অভিযোগের প্রমাণ মিলেছে॥

নিউজ ডেস্কঃ যশোরে গণধর্ষণের অভিযোগ তুলে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে আসা সেই নারীকে ধর্ষণের প্রমাণ মিলেছে। ডাক্তারি পরীক্ষার পর বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার ওই গৃহবধূর আলামত সংগ্রহ করে তা পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়। সেখান থেকে পাওয়া রিপোর্টে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে যশোর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. আরিফ আহমেদ বিষিয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ধর্ষণে কে বা কারা জড়িত তা চিহ্নিত করতে ডিএনএ টেস্টের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত, গত ২ সেপ্টেম্বর রাতে শার্শার লক্ষণপুর এলাকায় ওই গৃহবধূর বাড়িতে গিয়ে তার কাছে গোড়পাড়া ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই খায়রুল ও তার সোর্স ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন বলে অভিযোগ ওঠে। ওই টাকা দিলে তার স্বামীর বিরুদ্ধে ৫৪ ধারায় মামলা দেখিয়ে জামিনে সহায়তা করবেন বলে জানান। ফেনসিডিল মামলায় জেলহাজতে থাকা তার স্বামীকে কীভাবে ৫৪ ধারা দেবেন এ নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়।


বাকবিতন্ডার একপর্যায়ে খায়রুল ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। এরপর এসআই খাইরুল ও সোর্স কামরুল ওই নারীকে ধর্ষণ করেন। ৩ সেপ্টেম্বর সকালে ওই নারী নিজেই যশোর জেনারেল হাসপাতালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য এলে বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায়। হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. আরিফ আহমেদ বলেন, গত ৩ সেপ্টেম্বর ওই গৃহবধূর আলামত সংগ্রহ করে তা পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়। সেখান থেকে পাওয়া রিপোর্টে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। কিন্তু কে বা কারা ধর্ষণে জড়িত তা ডিএনএ টেস্ট ছাড়া বলা যাবে না। সিআইডির মাধ্যমে ডিএনএ টেস্ট করাতে হয়। ডিএনএ টেস্ট রিপোর্ট পাওয়া গেলেই জানা যাবে এক নাকি একাধিক ব্যক্তি ধর্ষণে জড়িত। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সিআইডির পক্ষ থেকে আমাদের বলা হয়েছে, আলামত প্রস্তুত রাখতে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')