bangladesh
 19 Jul 18, 06:38 PM
 408             0

এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর মিষ্টির দোকানে ক্রেতাদের ভিড়  

এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর মিষ্টির দোকানে ক্রেতাদের ভিড়   

মিথুন কুমার: বাড়ির ছেলে-মেয়ে পাস করেছে, আর আর বাড়ি বা আশেপাশের প্রিয়জনেরা মিষ্টি খাবেনা, সেটা আবার হয় নাকি। পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর সবাইকে মিষ্টিমুখ করানোর রীতি এ দেশে বহুকাল ধরেই প্রচলিত হয়ে আসছে। আজ বৃহস্পতিবার এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশের দিনে ভোজনরসিক বাঙালির মিষ্টি খাওয়ার এই উপলক্ষটি আবারও এসে হাজির হয়েছে। খুলনার বিভিন্ন এলাকা সজমিনে ঘুরে দেখা গেছে বিকেলের পর থেকে মানুষের ভিড় জমতে শুরু করেছে বিভিন্ন মিষ্টির দোকানে। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, এইচএসসির ফল উপলক্ষে খুলনা শহরের মিষ্টি দোকানগুলোতে ১৫ থেকে ২০ আইটেমের মিষ্টি সরবরাহ করা হয়েছে। এগুলোর মধ্যে সন্দেশ, কাঁচাগোল্লা, চমচম, মিষ্টি চমচম, রসমালাই, রাজভোগ, চাঁদ ভোগ, লাড্ডু, মিষ্টি দই, জিলাপি, সরমলাই, জাফরান ভোগ, কালো জাম, উল্লেখযোগ্য। সব থেকে বেশি বিক্রি হচ্ছে সন্দেশ, চমচম,কাঁচাগোল্লা ও জিলাপি।
তবে অন্য দিনের তুলনাই একটু বেশি দামেই মিষ্টি কিনে ঘরে ফিরতে হচ্ছে ক্রেতাদের।

খুলনার ময়লাপোতা এলাকার একটি দোকান থেকে মিষ্টি কিনেছেন তপন বিশ্বাস তিনি নিউজ"৭১ ডট কম জানান, তার ছেলে সোহাগ বিশ্বাস এবার বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ নিয়ে পাস করেছে। এই অনন্দে নিজেরা এবং প্রতিবেশীদের মিষ্টিমুখ করাতেই মিষ্টি কেনা। তবে অন্য দিনের তুলনায় আজ মিষ্টির দাম একটু বেশি। খুলনার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে জানা যায়, পরীক্ষার ফলাফলকে কেন্দ্র করে বাজারে মিষ্টির চাহিদা বেড়ে যায় বহুগুণ। আর সেজন্যই একটু বাড়তি দাম রাখছেন ব্যাবসায়ীরা। ব্যবসায়ীদের মতে, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশের দিন এবং পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি মিষ্টি বিক্রি হয় তাই একটু দাম বেশি বাড়ে। খুলনার গল্লামারি, নিরালা,ময়লাপোতা, শিববাড়ী,রয়েলের মোড়, ডাকবাংলা, সার্কিট হাউজ,রুপসা ঘাট মোড়, নিউ-মার্কেট, দৌলতপুর,খালিসপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় সাতক্ষীরা ঘোষ ডেয়ারি, লাবণ্য সুইট, চন্দন ডেয়ারি,তন্ময় ডেয়ারিসহ আরও বেশ কয়েকটি মিষ্টি দোকানের মালিক ও বিক্রয়কর্মীর সঙ্গে কথা বলে প্রায় একই রকম বক্তব্য পাওয়া যায়। তাদের মতে, কয়েক বছর আগে এসএসসি, এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশের পর যে পরিমাণ মিষ্টি বিক্রি হতো বর্তমানে সেই অবস্থা আর নেই। বর্তমানে আনন্দ প্রকাশের ধরণে পরিবর্তন এসেছে। আনন্দের মাএা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')