Bangladesh
 13 Dec 19, 01:35 PM
 340             0

শেবাচিমের আইসিইউ: ডা. নয়নের মৃত্যুতে তদন্ত কমিটি ।।

শেবাচিমের আইসিইউ: ডা. নয়নের মৃত্যুতে তদন্ত কমিটি ।।

নিউজ ডেস্কঃ বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) ভেন্টিলেটর মেশিন (কৃত্রিম উপায়ে শ্বাসপ্রশ্বাস দেওয়ার যন্ত্র) বিকল থাকায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের পরিচালক ডা. বাকির হোসেন। তিনি জানান, ডা. মারুফ হোসেন নয়নের মৃত্যুতে কোনো ধরনের গাফিলতি ছিল কিনা তা খতিয়ে দেখবে এ তদন্ত কমিটি। তিনি আরো জানান, হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. জসীম উদ্দিন হাওলাদারকে প্রধান করে চার সদস্যের ওই কমিটিকে আগামী সাত কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য বলা হয়েছে। কমিটির বাকী সদস্যরা হলেন, অ্যানেসথেসিয়া বিভাগের প্রধান ও সহযোগী অধ্যাপক ডা. শফিকুল ইসলাম, মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. ইমরুল কায়েস ও আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মাশরেকুল ইসলাম। শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যার কারণে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজের প্রাক্তন ছাত্র ও ডায়বেটিক হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. মারুফ হোসেন নয়ন গত ১০ ডিসেম্বর শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি হন। পরের দিন সকালে তার অবস্থার অবনতি হলে কৃত্রিমভাবে শ্বাসপ্রশ্বাস দেয়ার জন্য আইসিইউ ইউনিটে নেয়া হয়।

স্বজনদের অভিযোগ, তাকে ওই ইউনিটে নেয়ার পর কৃত্রিম উপায়ে শ্বাসপ্রশ্বাস দেয়ার সবকয়টি যন্ত্র অর্থাৎ ভেন্টিলেটর মেশিন নষ্ট থাকায় তা আর সম্ভব হয়নি। পরে চিকিৎসকরা তাকে ঢাকায় নিয়ে যেতে বললে দ্রুত তাকে ওয়ার্ড থেকে ঢাকায় নেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়। কিন্তু এরআগেই তার মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছেন প্রয়াত চিকিৎসকের বাবা মোশারেফ হোসেন। নয়নের মৃত্যুতে চিকিৎসক সমাজের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হলে তদন্ত কমিটি করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি শোক জানিয়েছে স্থানীয় বিএমএ ও স্বাচিপসহ বিভিন্ন চিকিৎসক সংগঠন। অভিযোগ উঠেছে, দুই বছরের ব্যবধানে ১০ ভেন্টিলেশন মেশিন নষ্ট হলেও একটিও মেরামতের কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি। এতো অল্প সময়ে মেশিনগুলো নষ্ট হওয়ার পেছনে কারো হাত ছিলো কিনা তাও খতিয়ে দেখার দাবি উঠেছে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন