bangladesh
 13 Mar 18, 06:44 AM
 177             0

ফেনীর বহুল আলোচিত একরাম হত্যায় ৩৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, খালাস ১৬ ।।  

ফেনীর বহুল আলোচিত একরাম হত্যায় ৩৯ জনের মৃত্যুদণ্ড, খালাস ১৬ ।।   

নিউজ ডেস্কঃ বহুল আলোচিত ফেনীর ফুলগাজী উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি একরামুল হক একরাম হত্যার মামলার রায় ঘোষণা করা হয়েছে। রায়ে ৩৯ জন আসামিকে মৃত্যুদণ্ড এবং ১৬ জনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে। ফেনী জেলা ও দায়রা জজ আমিনুল হক এই মামলার রায় ঘোষনা করেন। মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্তদের মধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আদেল,পৌর কমিশনার আবদুল্লাহিল মাহমুদ শিবলু, ফুলগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ চৌধুরীসহ ৩৯ জন আসামি রয়েছেন। মামলার প্রধান আসামি বিএনপি নেতা মাহাতাব উদ্দিন চৌধুরী মিনার ও জেলা যুবলীগ নেতা জিয়াউল আলম মিষ্টারসহ ১৬ জনকে খালাস দেয়া হয়েছে। ২০১৪ সালের ২০ মে প্রকাশ্যে শহরের একাডেমি এলাকায় একরামকে গুলি করে, কুপিয়ে ও গাড়িসহ পুড়িয়ে নৃংশসভাবে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। হত্যার ঘটনায় জড়িত একের পর এক হত্যাকারীরা গ্রেফতার হতে থাকলে মুখোষ উম্মোচিত হয় ঘটনার নৈপথ্য কাহিনী। বেরিয়ে আসে সরকার দলীয় অন্তঃকোন্দলের কারণে হত্যা করা হয় একরামকে। হত্যার সাথে রাঘব-বোয়ালদের নাম বেড়িয়ে এলে গা ঢাকা দিয়ে আত্মগোপনে যায় হত্যাকারীরা। হত্যার পর ফুসে ওঠে এলাকাবাসী,হরতাল-অবরোধ-বিক্ষোভসহ মাসব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে তারা।

একরাম হত্যার ঘটনায় তার বড় ভাই রেজাউল হক জসিম বাদী হয়ে বিএনপি নেতা মাহাতাব উদ্দিন আহম্মেদ চৌধুরী মিনারের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৩০-৩৫ জনকে আসামি করে মামলা করে। হত্যার একশত দিন পর ২০১৪ সালের ২৮ আগষ্ট মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ ৫৬ জনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগ পত্র (চার্জশীট) দাখিল করে। আদালত আড়াই মাস পর ওই বছরের ১২ নভেম্বর আলোচিত এ হত্যা মামলার অভিযোগপত্র গ্রহণ করে। অভিযোগপত্র দাখিলের ১৬ মাস পর ২০১৭ সালের ১৫ মার্চ আদালত মামলার চার্জফ্রেম (বিচারকাজ) গঠন করে। পরবর্তীতে স্বাক্ষ্য গ্রহণের মাধ্যমে বিচারকাজ শুরু হয়। আদালত মামলার বাদী একরামের বড় ভাই রেজাউল হক জসিম,ছোট ভাই এহসানুল হক,নিহতের স্ত্রী তাসমিন আক্তার,গাড়ি চালক আবদল্লাহ আল মামুনসহ ৫০ জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্যগ্রহণ করেছে। মামলার অভিযোগপত্রে পুলিশ ৫৯ জনকে স্বাক্ষী করেছিলো। এদের মধ্যে সাধারণ স্বাক্ষী রয়েছে ২৮ জন। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ১৬ জন আসামি হত্যার দ্বায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছেন। হত্যায় ব্যবহৃত একাধিক চাপাতি ও ৫টি পিস্তলের মধ্যে উদ্ধার হয়েছে মাত্র দুটি পিস্তল ও কয়েকটি চাপাতি।

এই মামলায় বর্তমানে গ্রেফতার আছেন ৩৬ জন। মামলার শুরু থেকে পালাতক রয়েছেন ১০ জন। জামিন নিয়ে পালাতক রয়েছেন ৯ জন। রুটি সোহেল নামে একজন জামিনে থাকা অবস্থায় র্যা বের ক্রস ফায়ারে নিহত হয়েছেন। মামলার আসামি পক্ষের আইনজীবী আহসান কবির বেঙ্গল বলেন,আমরা এই মামলার রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যাব। আমরা ন্যায় বিচার পাইনি। সরকার পক্ষের আইনজীবী হাফেজ আহম্মদ বলেন,রায় প্রত্যাশিত। আমরা সন্তুষ্ট। একরামের পরিবারের কাউকে আদালত ভবন এলাকায় পাওয়া যায়নি।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')