bangladesh
 21 Feb 20, 11:14 PM
 39             0

করোনার কূপ্রভাব॥ ২৫ জানুয়ারি থেকেই কাঁকড়া-কুচের রপ্তানী বন্ধ, বিপাকে কয়েক হাজার মানুষ

করোনার কূপ্রভাব॥ ২৫ জানুয়ারি থেকেই কাঁকড়া-কুচের রপ্তানী বন্ধ, বিপাকে কয়েক হাজার মানুষ

তন্ময় ভক্তঃ চীনের প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের প্রভাব বাংলাদেশ থেকে কাঁকড়া ও কুঁচে রপ্তানি বাণিজ্যে ধস নেমেছে। এতে কাঁকড়া ও কুঁচে উৎপাদনে নিয়োজিতদের পথে বসার উপক্রম হয়েছে। চীনে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের কাঁকড়া ও কুঁচে চাষিদের ওপর। গত ২৫ জানুয়ারি থেকে চীনে আর রফতানি হচ্ছে না কাঁকড়া ও কুঁচে। ফলে এই দুই রফতানি পণ্য চাষ ও আহরণের সঙ্গে যুক্ত কয়েক হাজার মানুষ বিপাকে পড়েছেন। দেশের বাজারেও কাঁকড়ার দাম অন্তত ছয় গুণ কমে গেছে। এছাড়া বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা চীনের আমদানিকারকদের কাছে কাঁকড়া ও কুঁচের দাম বাবদ ১৫০ কোটি টাকা পাবেন, তা হাতে না আসায় অনেক ব্যবসায়ী আর্থিক সংকটে পড়েছেন । স্থানীয় চাষিরা জানান, সাতক্ষীরায় দুই প্রকার কুঁচের চাষ হয়। মিষ্টি পানির কুঁচে কেজি প্রতি ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকায় বিক্রি হয়। আর লোনা পানির কুঁচে বিক্রি হয় কেজি প্রতি ১০০ থেকে ১১০ টাকায়। কয়েক বছর আগে চিনসহ মধ্যপ্রাচের কয়েকটি দেশ বাংলাদেশের কাঁকড়া ও কুঁচে আমদানিতে আগ্রহী হয়। ফলে বাংলাদেশ থেকে ওইসব দেশে কাঁকড়া ও কুঁচে রপ্তানি শুরু হয়। কাঁকড়া গ্রেড অনুযায়ি বিক্রি শুরু হয়। কাঁকড়ার আকার ও গুণগত মান অনুযায়ি কেজি প্রতি চীনে বিক্রি হতো এক হাজার ৮০০ থেকে দু’ হাজার টাকায়।

চীনে রপ্তানির জন্য সাতক্ষীরা থেকে দু’তিন দিন পরপর পাঁচ থেকে ছয় টন কুঁচে ঢাকার উত্তরায় পাঠানো হতো। করোনাভাইরাসে আক্রমণের ফলে গত ২৫ জানুয়ারি থেকে চীনে কাঁকড়া ও কুঁচে রপ্তানি বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে খরিদ্দার না থাকায় সংগ্রহকৃত কুঁচে থেকে প্রতিদিনই কিছু কিছু কুঁচে মারা যাচ্ছে। মারা যাওয়া কুঁচে শুকিয়ে কাঁকড়া ধরার কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে শ্যামনগর উপজেলার মুন্সিগঞ্জ, কলবাড়ি ও বুড়িগোয়ালিনিতে। শুকনা কুঁচে কেজি প্রতি ২৫০ থেকে ৩০০ টাকায় বিক্রি হয়। যে কাঁকড়ার দাম ছিল ২০০০ টাকা, সেই কাঁকড়ার দাম এখন ৩০০ টাকা। সাতক্ষীরা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান জানান, গত বছরে জেলায় ৩১০.৯ হেক্টর জমিতে কাঁকড়া চাষ হয়। ওই জমি থেকে ২১৯০.৪ মেট্রিকটন ও সুন্দরবন থেকে ১১০৯ মেট্রিকটন কাঁকড়া সংগ্রহ করা হয়। তবে কুঁচে কি পরিমান সংগ্রহ করা হয়েছিল তা তিনি নিশ্চিত করতে পারেননি। করোনাভাইরাসের কারণে কাঁকড়া আমদানি বন্ধ রেখেছে চীন। এর ফলে খুলনার উপকূলীয় এলাকায় খামারে উৎপাদিত কাঁকড়া বিক্রি কমে গেছে। এতে বিপাকে পড়েছেন এ অঞ্চল কয়েক হাজার কাঁকড়া চাষী।


কাঁকড়া চাষীরা জানান, খুলনার কয়রা, পাইকগাছা, দাকোপ ও বটিয়াঘাটায় বাণিজ্যিকভাবে কাঁকড়া উৎপাদিত হয়। এসব কাঁকড়া ঢাকার ব্যবসায়ীরা সরাসরি চাষীদের কাছ থেকে কিনে নেন। ঢাকা থেকে এসব কাঁকড়া চীনসহ পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করা হয়। চাষীরা রপ্তানিযোগ্য কাঁকড়া বিক্রি করেন বেশি দামে। অন্যদিকে স্থানীয় বাজারে বিক্রি হয় অনেক কম দামে। রপ্তানিকারক কাঁকড়া না কিনলে স্থানীয় বাজারে এই দাম আরও কমে যাবে। জেলা মৎস্য অফিস থেকে জানা গেছে, গত বেশ কয়েক বছর ধরে চীন, তাইওয়ান, বেলজিয়াম, যুক্তরাজ্য, নেদারল্যান্ড, জার্মানি এবং অস্ট্রেলিয়ায় কাঁকড়ার বড় বাজার তৈরি হয়েছে। এর মধ্যে অস্ট্রেলিয়ায় নরম খোসার কাঁকড়া, অন্য দেশগুলোতে স্বাভাবিক কাঁকড়া রপ্তানি হতে থাকে। শুরুর দিকে শুধুমাত্র সুন্দরবন থেকে কাঁকড়া আহরণ করা হতো। জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আবু সাঈদ পূর্বাঞ্চলকে জানান, বিশ্ববাজারে চাহিদা বাড়ায় বাণিজ্যিক ভিত্তিতে কাঁকড়া চাষে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা হয়। বর্তমানে খুলনা জেলার ২৮ হাজার ৫৪৬ হেক্টর জমিতে কাঁকড়া চাষ হচ্ছে। গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এসব এলাকা থেকে ৬ হাজার ৯৮৯ মেট্রিক টন কাঁকড়া উৎপাদন হয়েছে। চলতি অর্থবছরে ৭ হাজার মেট্রিক টন কাঁকড়া উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

কয়রা উপজেলা কাঁকড়া ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি প্রদীপ কুমার ঘরামি জানান, জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসকে এ অঞ্চলে কাঁকড়ার মৌসুম ধরা হয়। কারণ এ সময় সুন্দরবনে কাঁকড়া ধরা বন্ধ থাকে। ঢাকার ব্যবসায়ীরা এ সময় সরাসরি খামার থেকে কাঁকড়া কেনেন। কিন্তু ঢাকার রপ্তানিকারকরা এই মুহূর্ত কাঁকড়া কিনতে আগ্রহ দেখাচ্ছেন না। একই সঙ্গে তাদের কাছে পাওনা টাকাও দিতে চাইছেন না তারা। এতে উভয় দিক থেকেই বিপদে পড়েছেন স্থানীয় চাষীরা। তিনি জানান, চীনে রপ্তানির জন্য কয়রা ও পাশর্^বর্তী এলাকা থেকে প্রতি সপ্তাহে গড়ে পাঁচ থেকে ছয় টন কাঁকড়া রাজধানীর বিভিন্ন আড়তে পাঠানো হতো। আড়তদাররা জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাসের কারণে গত ২৫ জানুয়ারি থেকে চীনে কাঁকড়া রপ্তানি বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে আড়ৎগুলোতে ব্যবসায়ীরা এক প্রকার হাত গুঁটিয়ে বসে আছে।

অন্যদিকে উৎপাদিত কাঁকড়া বিক্রি করতে না পারায় কাঁকড়া খামারীরাও দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছেন। অচলাবস্থা না কাটলে এ অঞ্চলের প্রায় ৪ হাজার ছোট বড় খামারীকে কয়েক কোটি টাকা লোকসান গুণতে হবে। মৎস্য পরিদর্শন ও মান নিয়ন্ত্রণ বিভাগের উপ-পরিচালক মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, খুলনা অঞ্চলের কাঁকড়া ও কুঁচে সরাসরি ঢাকা থেকে রপ্তানি হয়। এজন্য কী পরিমাণ পণ্য রপ্তানি বন্ধ রয়েছে সেই তথ্য আমাদের কাছে নেই। তবে উৎপাদনের পরিমাণ দেখে বোঝা যাচ্ছে বিপুল সংখ্যক চাষী রপ্তানি বন্ধে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। কয়রা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আলাউদ্দীন হোসেন জানান, গত বছর এ উপজেলায় ৩১০ হেক্টর জমিতে কাঁকড়া চাষ হয়। ওই জমি থেকে ২ হাজার ১৯০ মেট্রিক টন ও সুন্দরবন থেকে ১ হাজার ১০৯ মেট্রিক টন কাঁকড়া সংগ্রহ করা হয়। এলাকায় এবার কাঁকড়া চাষীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় লক্ষ্যমাত্রাও দ্বিগুণ ধরা হয়েছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে রপ্তানি বন্ধ থাকায় সবাই হতাশ হয়ে পড়েছেন।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')