bangladesh
 05 Dec 19, 10:48 PM
 34             0

কোন অপরাধীদের স্থান আওয়ামী লীগে নেই॥ সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদের

কোন অপরাধীদের স্থান আওয়ামী লীগে নেই॥ সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদের

নিউজ ডেস্কঃ অপকর্মকারীদের স্থান আওয়ামী লীগে নেই জানিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, টেন্ডারবাজ, চাঁদাবাজ, মাদকবিক্রেতা ও সন্ত্রাসীরা সাবধান। চলছে শেখ হাসিনার শুদ্ধি অভিযান। এসব অপরাধীদের স্থান আওয়ামী লীগে নেই। তিনি বলেন, দুঃসময়ের কর্মীদের বাদ দিয়ে পকেট কমিটি করা চলবে না। পকেট কমিটির লোকেরা সময় আছে সাবধান। শীতের মৌসুমী পাখি মৌসুমে আসে, মৌসুম চলে গেলে মৌসুমী পাখিদের হাজার পাওয়ারের বাতি জ্বালিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবে না। তাই ত্যাগী-পরীক্ষিত কর্মী চাই। মানসিকভাবে প্রস্তুত হোন। বৃহস্পতিবার (০৫ ডিসেম্বর) বিকেলে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন ও কাউন্সিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন ওবায়দুল কাদের। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বঙ্গবন্ধুর রক্তাক্ত বিদায়ের পর বাংলাদেশে গত ৪৪ বছরে সবচেয়ে সৎ রাজনীতিক, জনপ্রিয়, দক্ষ, সফল নেতার নাম শেখ হাসিনা। গত ৪৪ বছরে জনবান্ধব সরকারের নাম শেখ হাসিনা সরকার। এই মহান নেত্রীর নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পতাকা তলে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। ওবায়দুল কাদের বলেন, যদি আওয়ামী লীগ করেন, তবে দলের নিয়ম-কানুন, শৃঙ্খলা মেনে চলতে হবে। আওয়ামী লীগের নেতা টাকার বিনিময়ে হওয়া যায় না। যোগ্যতা, ত্যাগ, তিতিক্ষা দিয়ে হতে হয়। সু সময়ের সুবিধাবাদীদের আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দেওয়া যাবে না। জনপ্রিয়তার ভিত্তিতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেওয়া হবে।

মনোনয়ন বাণিজ্য চিরতরে বন্ধ করে দিতে হবে মন্তব্য করে তিনি বলেন, মনোনয়ন বাণিজ্য আওয়ামী লীগে শুনতে চাই না। মনোনয়ন বাণিজ্য যারা করেছেন, সাবধান হয়ে যান। মনে রাখবেন আওয়ামী লীগে কাউকে বাদ দেওয়া হয় না, দায়িত্বের পরিবর্তন হয়। দায়িত্বে পরিবর্তন মানে বাদ দেওয়া নয়, নবীনের সঙ্গে প্রবীণের মিলন ঘটানো, এনার্জির সঙ্গে এক্সপেরিয়েন্সের মিলন করে নতুন নেতৃত্বের প্রতিষ্ঠা করা হয়। বর্তমান প্রেক্ষাপটের ভিত্তিতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আওয়ামী লীগের নেতার অভাব নেই। কর্মী কমে যাচ্ছে, নেতা বেড়ে যাচ্ছে। কত নেতা, নেতার শেষ নেই, বড় নেতা, পাতি নেতা, আধুলি নেতা, সিকি নেতা, শুধুই নেতা। এখন পোস্টার লাগাতে কর্মী পাওয়া যায় না। এই আওয়ামী লীগের দরকার নেই। কর্মীরা পোস্টার লাগাবে, কর্মীরা বিলবোর্ড লাগাবে। মাঠে কর্মে দেখিনা, আর বিলবোর্ডে কত চেহারা। সামনে দেখি এক চেহারা, বিল বোর্ডে আরেক চেহারা।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')