bangladesh
 02 Dec 19, 12:37 PM
 100             0

১৫ দফা দাবিতে চলছে ২৬ জেলায় পেট্রোল পাম্প ধর্মঘট॥ যান চলাচল মারাত্মক ব্যাহত

১৫ দফা দাবিতে চলছে ২৬ জেলায় পেট্রোল পাম্প ধর্মঘট॥ যান চলাচল মারাত্মক ব্যাহত

নিউজ ডেস্কঃ ১৫ দফা দাবিতে বাংলাদেশ পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক লরি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ ও জ্বালানি তেল পরিবেশক সমিতির ডাকে ২৬ জেলায় অনির্দিষ্টকালের এই কর্মবিরতির কারণে তেলে চালিত যানবাহন একপ্রকার বন্ধ হয়ে গেছে। পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক লরি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি এম এ মোমিন দুলাল সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, বেলা ১১টায় ঢাকার সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের (বিপিসি) কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক রয়েছে তাদের। সেই বৈঠকে আমাদের দাবি নিয়ে আলোচনা হবে। যদি সন্তোষজনক আলোচনা হয়, তাহলে আমরা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেব।গত ২৬ নভেম্বর বগুড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে ১ ডিসেম্বর থেকে অনির্দিষ্টকালের এই ধর্মঘটের ঘোষণা দিয়েছিলেন পেট্রোল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন ও ট্যাংক লরি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় মহাসচিব ও রাজশাহী বিভাগীয় সভাপতি মিজানুর রহমান রতন। সে অনুযায়ী তিন বিভাগের সব জেলায় রোববার সকাল থেকে পেট্রোল পাম্পে তেল বিক্রি বন্ধ করে দেওয়া হয়।

পাশাপাশি পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা তেল ডিপোর শ্রমিকরা তেল উত্তোলন, বিপণন ও সরবরাহ বন্ধ রাখায় ২৬ জেলায় জ্বালানি তেল সরবরাহও বন্ধ হয়ে যায়। এই অবস্থায় বিপাকে পড়েন গাড়ি চালকরা। পাম্পে এসে তেল না পেয়ে তাদের ফিরে যেতে হয়। পাম্পগুলোতে ১৫ দফা দাবি সম্বলিত পোস্টার টাঙিয়ে রাখতে দেখা যায়। তেল না পেয়ে রোববার দুপুরের পর থেকেই উত্তর ও দক্ষিণ-পশ্চিমের জেলাগুলোতে যাত্রীবাহী বাসের সংখ্যা কমে যা্য়। বিভিন্ন পরিবহন সংস্থার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, যেসব বাস গ্যাসে চলে কেবল সেগুলোই তারা চালাতে পারছেন। পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক লরি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের নেতা দুলাল বলেন, তাদের ১৫ দফা দাবি পূরণ করতে সরকারকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু জ্বালানি মন্ত্রণালয় কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ায় তারা ধর্মঘটে যেতে ‘বাধ্য হয়েছেন’।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')