bangladesh
 30 Oct 19, 10:53 PM
 211             0

ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের অভাবনীয় সাফল্য॥ ৭দিনেই অজ্ঞাত লাশের সুরাহা  

ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের অভাবনীয় সাফল্য॥ ৭দিনেই অজ্ঞাত লাশের সুরাহা   

নিউজ ডেস্কঃ ভারতের জনপ্রিয় টিভি সিরিয়াল ক্রাইম পেট্রোলের ঘটনাকেও হার মানিয়েছে ময়মনসিংহের পুলিশ। সল্পতম সময়ে অজ্ঞাত স্থানে খুন! লাশ এর ধড় ময়মনসিংহ পাটগুদাম ব্রীজের পাশে। এক পা কুড়িগ্রামে আর মাথা, এক পা ও দু’হাত কুড়িগ্রামের রাজার হাটে। খুনিরা অজ্ঞাত স্থানে খুন করে দেহের বিভিন্ন অংশ এভাবেই ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখে সারাদেশের বিভিন্ন স্থানে। শুধু তাই নয়, নিহতের লাশও থেকে যায় অজ্ঞাত! লাশের এই অংশ গুলো পাওয়া যায় ২০ অক্টোবর সকালে। সারা দেশে হৈ চৈ লেগে যায়। অনেকে এটাকে নাশকতা বলে দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিকে খারাপ বলে জাহির করতে থাকে। কিন্ত সমালোচকদের মুখে ঝামা ঘষে ময়মনসিংহের জেলা গোয়েন্দা সংস্থার পুলিশ ৭ দিনের মাথায় রহস্য উদঘাটন করেরেছে। গ্রেফতার করেছে ৪ খুনিকে, সনাক্ত করেছে লাশের পরিচয়। সত্যি নিখুদ তদন্ত। রূপ কথার গল্পকে যেন হার মানায়। আজ ৩০ অক্টোবর ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সংবাদ সম্মেলন করে পুলিশের সফলতা আর লোমহর্ষক খুনের ঘটনা বর্ণনা করেন।

ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ লাইনে পুলিশ সুপারের সাংবাদিক সন্মেলনে তিনি জানান গত ২০ অক্টোবর পাটগুদাম ব্রীজ সংলগ্ন স্থানে ট্রলি ব্যাগ পড়ে থাকতে দেখে জনগণ। পুলিশও সেখানে উপস্থিত হয়। ব্যাগে বোমা সন্দেহে ঘেরাও করে রাখে পুলিশ। রেঞ্জ ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝিসহ অধিনস্থ পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনা স্থলে হাজির হন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘটনাটি সারা বিশ্বে ভাইরাল হয়ে যায়। দেশবাসীর চোখ ছিলো ময়মনসিংহের দিকে। রাতেই আসে ঢাকা থেকে বোমা বিশেষজ্ঞ। পরদিন সকালে ব্যাগ খুলে পায় লাশ। অপর দিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খবর আসতে থাকে কুড়িগ্রমে পা, হাত ও মাথা পাওয়া গেছে। তৎপর হয়ে উঠে ময়মনসিংহে পুলিশ। প্রযুক্তি আর বিচনাতার সাথে হিসেব মিলাতে থাকে তারা। ময়মনসিংহ কোতোয়ালী মডেল থানায় একটি মামলাও তারা করেন। মামলা নং-১০২ তাং-২৫/১০/২০১৯ ইং।

বুদ্ধিদীপ্ত জেলা পুলিশ সুপার শাহ মোঃ আবিদ হোসেন পিপিএম (বার) এর নির্দেশে প্রযুক্তি আর বিচক্ষন বুদ্ধি নিয়ে মাঠে নামেন মূলত জেলার তিন জন পুলিশ কর্মকর্তা। তাদের মধ্যে পুলিশ পরিদর্শক শাহ মোঃ কামাল হোসেন, এস আই আকরাম হোসেন ও এ এস আই জুয়েল। তারা তাদের টিম নিয়ে ধাবরিয়ে বেড়ায় কুড়িগ্রাম, তারাকান্দা, পূর্বধলা ও গাজীপুর। তথ্য অনুসন্ধান, জিজ্ঞাসাবাদ ও আটকের মধ্যদিয়ে বেড়িয়ে আসতে থাকে সঠিক তথ্য। গত ২৮ অক্টোবর ময়মনসিংহের ডিবি পুলিশ গাজীপুর জেলার জয়দেবপুর থেকে হত্যায় জড়িত সন্দেহে অভিযান চালিয়ে ৪ জন আটক করে। তারা হলেন ফারুক মিয়া (২৫),হৃদয় মিয়া (২০), সাবিনা আক্তার (১৮) ও মৌসুমী আক্তার (২২)। তাদের কাছ থেকে ডিবি পুলিশ তাদের হাতে খুন হওয়া ভিকটিমের নাম জানতে পারে। আটককৃতরা ঘটনার দ্বায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় আদালতে জবানবন্দি দেন। পুলিশ তাদের কথামত হত্যায় ব্যবহার করা ছুরি, ব্যাগ, ইট ও মোবাইল ফোন উদ্ধার করে।

নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা উপজেলা হুগলা গ্রামের ময়েজ উদ্দীনের ছেলে বকুল। একই এলাকার প্রতিবেশী গ্রেফতার হওয়া সাবিনাকে খুন হওয়া বকুল ভালোবাসার জন্য প্রতিনিয়ত উত্যক্ত করতো। আর অপরাধিদের দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনায় খুন করা হয় বকুলকে। মোবাইল ফোনে ফুসলিয়ে বকুলকে গাজীপুরে জয়দেব পুরের খুনিদের ভাড়া বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। রাতেই খুনিরা তাদের ভাড়া বাসায় বকুলকে খুন করে। বকুলকে খুন করার পর লাশের দু’হাত, দুপা ও মাথা নিয়ে যায় সাবিনা ও তার ভাবী মৌসুমী। তারা এগুলো কুড়িগ্রাম জেলার দু’টি স্থানে ফেলে আসে। অপর দিকে বাকি দেহ হৃদয় ও ফারুক ময়মনসিংহের পাটগুদাম ব্রীজ মোড়ে ট্রলি ব্যাগে ভরে ফেলে যায়। পৃথক পৃথক স্থানে পুলিশ খুন হওয়া দেহের অংশ উদ্ধার করলেও খুনিরা অজ্ঞাত থেকে যায়।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')