bangladesh
 15 May 19, 05:04 PM
 21             0

নাটোর পুলিশ সুপারের ডাকা মাদকের বিরুদ্ধে ঘৃণা আন্দোলনে ব্যাপক সাড়া॥

নাটোর পুলিশ সুপারের ডাকা মাদকের বিরুদ্ধে ঘৃণা আন্দোলনে ব্যাপক সাড়া॥

নিউজ ডেস্কঃ নাটোর পুলিশ সুপারের ডাকা মাদকের বিরুদ্ধে ঘৃণা আন্দোলনে ব্যাপক সাড়া মিলেছে।সর্বস্তরের মানুষ পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুনের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন । স্থানীয় সচেতন মহল মনে করছেন, সরকারের দেশব্যপী মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি বর্তমান পুলিশ সুপারের নাটোরে যোগদান করায় আরও বেশী বেগবান হয়েছে। তারই ফলশ্রুতিতে মানুষ এখন ধীরে ধীরে সচেতন হচ্ছে। মাদকের বিরুদ্ধে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চলমান অভিযানে জনমনে আস্থার সঞ্চার হয়েছে। সরকার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দায়িত্বের পাশাপাশি এবার মানুষও সচেতনতার সাথে নিজেদের দায়িত্ববোধের প্রকাশ ঘটাচ্ছে। ফলে সরকারি এই কাজে বেড়েছে জন সম্পৃক্ততা, মিলেছে সফলতা।


বর্তমানে নাটোর শহরের ব্যস্ততম ট্রাফিক মোড়ে ছায়াবানী হলের নীচে টানানো একটি বিলবোর্ড সকলের নজর কাড়ছে। সাইনবোর্ডের দিকে যিনিই তাকাচ্ছেন, তার চোখেই বিস্ময়। পুলিশ সুপার নাটোরের ভাবনায় নির্মিত দৃষ্টিনন্দন এই সাইনবোর্ডটিতে বেশ সুন্দর বাংলায় লেখা রয়েছে, ‘অপকর্ম রোধে অপকর্মের ব্যবহার, মাদক বিক্রেতার বাড়ি হবে গণশৌচাগার’, প্রচারে- নাটোরবাসী।’ শহরের ব্যস্ততম নাটোর-রাজশাহী-ঢাকা সড়কের প্রাণকেন্দ্র ছায়াবানী সিনেমা হলের মোড়। চার রাস্তার এ মোড় দিয়ে শহরে কেনাকাটার কেন্দ্রস্থল পিলখানা, কাপুড়িয়াপট্টি ও লালবাজারে যেতে হয়। তাই এই এলাকাটি খুবই জনবহুল। আর এই পথে মাদকের প্রতি চুড়ান্ত ঘৃণা ও বিক্রয়ের মতো অপকর্ম রোধে মাদক ব্যবসায়ীর বাড়িকে গণশৌচাগার তৈরীর কড়া হুমকি দেয়া এমন সাইনবোর্ডে সকলের দৃষ্টি কাড়ছে।


উল্লেখ্য সারাদেশের মত নাটরেও মাদক নির্মূলে এতোদিন শুধু অভিযানই পরিচালিত হয়ে আসছিল। কিন্ত জেলার পুলিশ সুপার হিসেবে যোগ দিয়েই মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন সাইফুল্লাহ আল মামুন বিপিএম-পিপিএম (বার)। যিনি বিশ্বাস করেন, মাদক নির্মূলে সচেতনতার চেয়ে বড় অস্ত্র কিছু নেই। তাই সবার আগে তিনি জোর দেন ব্যক্তি সচেতনতা সৃষ্টিতে। তার নির্দেশে প্রথা ভেঙ্গে রাস্তায় নামে খোদ পুলিশ সদস্যরা। পুলিশ ভ্যানে মাইক লাগিয়ে জেলার ৭টি উপজেলার আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে দেন মাদকবিরোধী বার্তা। প্রাথমিকভাবে অনেকের কাছে এটি হাস্যকর মনে হলেও পুলিশ সুপারের এমন পরিকল্পনা এখন বাস্তবায়নের পথে, এমনটাই মনে করছেন সচেতন নাটোরবাসী।


এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাটোরের জেলা পুলিশ সুপার সাইফুল্লাহ আল মামুন নিউজ৭১ ডটকমকে বলেন, আমাদের অভিনব প্রচারণায় এখন মাদক বিরোধী অভিযানে এখন সম্পৃক্ত হচ্ছে নাটোরের সাধারণ মানুষ। আমি চেয়েছিলাম মানুষ মন থেকেই মাদককে ঘৃণা করতে শিখুক এবং সেই ঘৃণা ছড়িয়ে দিক সর্বত্র। এই স্বল্প সময়ে আমাদের কাজে কিছুটা হলেও সফলতা মিলেছে ।আমার জেলায় মাদক এখানে পুরোপুরি নির্মূল না হলেও দুষ্প্রাপ্য হয়েছে আগের চেয়ে। কোন মাদক ব্যবসায়ী বা সেবনকারী যদি নিজের ভুল বুঝতে পারে, তবে পুলিশ তার জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবে।


উল্লেখ্য, নাটোর জেলা পুলিশ গত ৪ মাসে জেলায় ৫৬০ টি মাদক মামলা দায়ের করেছে । এসব মামলায় ৯১ লাখ ৬৯ হাজার ৪১০ টাকা মূল্যের ২২ হাজার পিস ইয়াবা, ৪৩২ বোতল ফেন্সিডিল, ২৫৪ লিটার চোলাই মদ, ৩১ কেজি গাঁজা, ৩০৮.৫১ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার করা হয়েছে। এসব অভিযান চলমান থাকা অবস্থায় ৮৮৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বর্তমানে মানুষ অনেক সচেতন হয়েছে। তারা নিয়মিত পুলিশকে মাদক সংক্রান্তে নানান তথ্য দিয়ে সহযোগীতা করছে।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')