bangladesh
 12 May 19, 04:03 PM
 593             0

রোহিঙ্গা ছেলেধরা ও গলাকাটা বাহিনীর গুজব॥আতঙ্কিত দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিস্তীর্ণ জনপদ

রোহিঙ্গা ছেলেধরা ও গলাকাটা বাহিনীর গুজব॥আতঙ্কিত দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিস্তীর্ণ জনপদ

নিউজ ডেস্কঃ রোহিঙ্গা ছেলেধরা নিয়ে গুজব-আতঙ্কে খুলনাসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিস্তীর্ণ জনপদ। মানুষের মুখে মুখে আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘ছেলেধরা’ আর ‘গলাকাটা’ বাহিনীর গুজব ছড়িয়ে পড়েছে খুলনা, সাতক্ষিরা, যশোর,বাগেরহাটসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জনপদে। গত কয়েক দিনে ছড়ানো এই গুজবের সূত্র ধরে নির্মমতার শিকার হচ্ছে বিভিন্ন কারনে এলাকায় অপরিচিত বহিরাগত মানুষ। খুলনার ডুমরিয়ায় গতকাল শনিবার ছেলেধরা সন্দেহে এক বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে এবং আহত করা হয়েছে পঞ্চাশোর্ধ্ব একা নারীকে। এছাড়াও খুলনার পাইকগাছা, সাতক্ষীরা জেলা সদর ও দেবহাটা এবং যশোরে জেলাতেও গত কয়েক দিনে নুন্যতম দশ ব্যক্তিকে পিটিয়ে আহত করা হয়েছে। সমগ্র জনপদে বর্তমানে এক ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। নিরাপত্তার স্বার্থ ইতিমধ্যেই অনেক এলাকায় স্থানীয় উদ্যোগে নৈশকালীন পাহারাও চালু করা হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে পুলিশের পক্ষ থেকে গুজবে কান না দিতে জনগনকে সচেতন করে মাইকিং করা হচ্ছে।

খুলনা থেকে আমাদের সংবাদদাতা জানিয়েছেন, ছেলেধরা রোহিঙ্গা সন্দেহে খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার ৬০ বছরের অজ্ঞাতপরিচয় এক বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে গত শুক্রবার রাতে। স্থানীয় মাগুরখালী ইউনিয়নের কাঁঠালিয়া বাজারে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে সাহস ঘোষগাতী গ্রামের চিংড়ি ঘের মালিক মেহেদী মোড়ল ও কাঁঠালিয়া বাজারের মুদি দোকানি মধুসুদন মণ্ডলকে আটক করেছে। একই রাতে উপজেলার আটলিয়া ইউনিয়নের নরনিয়া গ্রামে রোহিঙ্গা সন্দেহে পঞ্চাশোর্ধ্ব এক নারীকে গ্রামবাসী আটক করে পিটিয়ে আহত করে। এছাড়াও রোহিঙ্গা সন্দেহে গত বুধবার খুলনার পাইকগাছা উপজেলায় একজনকে পিটিয়ে গুরুতর আহত ও ৩জনকে মারপিট করে থানা পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে খুলনার পুলিশ সুপার মোঃ সফিউল্লাহ নিউজ৭১ ডটকমকে জানান সম্পূর্ন গুজবের উপর ঘটনা গুলো ঘটে চলেছে । পাইকগাছায় রোহিঙ্গা সন্দেহে আটক ব্যাক্তিদের বাড়ী দিনাজপুর জেলায় । তারা দরিদ্র হওয়ায় কাজের সন্ধানে এখানে এসে জনতার হাতে ধৃত হন। দিনাজপুর জেলা পুলিশের মাধ্যমে তাদের ঠিকানা যাচাই করে সত্যতা পাওয়া গেছে।তাই মানবিকতার খাতিরে পুলিশ আদালতের মাধ্যমে তাদের মুক্তির উদ্যোগ নিয়েছ। এছাড়াও গুরুতর আহত ব্যাক্তিটি একজন মানসিক ভারসাম্যহীন(পাগল) মানুষ । সে পাইকগাছা উপজেলারই বাসিন্দা। গুজবের কারনে অনুমান নির্ভর হয়ে তার উপর হামলার ঘটেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডুমুরিয়া থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বিপ্লব নিউজ৭১ ডটকমকে জানান, সম্পূর্ন গুজবের উপর নির্ভর করে এই অমানবিক ঘটনাগুলো ঘটে চলেছে। একটি বিশেষ মহল এলাকার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি ঘটানোর জন্য এই গুজবে মদত দিচ্ছে। পুলিশের পক্ষ থেকে গুজবে কান না দিতে বার বার অনুরোধ করা সত্বেও এই ধরনের ঘটনা ঘটে চলেছে। এই ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে আটক দুজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করে ডুমুরিয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছে। ভবিষ্যতে যাতে এলাকায় আর এ ধরনের ঘটনা না ঘটে তারজন্য জনগনকে সচেতন করার লক্ষ্যে থানা পুলিশের পক্ষ থেকে এলাকায় মাইকিং করা হয়েছে।বিভিন্ন প্রকার সোস্যাল মিডিয়ায় যারা এধরনের গুজব ছড়ানোর চেষ্টা করছে তাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করা হচ্ছে।

আমাদের সাতক্ষীরা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, সাতক্ষীরায় গুজবের উপর নির্ভর করে এক মোটরসাইকেল চালককে রোহিঙ্গা ছেলেধরা সন্দেহে পিটিয়ে আহত করেছে এলাকাবাসী। গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে সদর উপজেলার বাঁকাল তিন রাস্তার মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় আহত রিয়াজ উদ্দীন মোড়ল (৪০) দেবহাটা উপজেলার গোবরাখালী গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে। সে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতার ভাতিজা। আহত রিয়াজ সাংবাদিকদের জানান, তিনি মোটরসাইকেল চালিয়ে বাড়ি থেকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে বাঁকাল কোল্ড স্টোর মোড় এলাকায় কিছু যুবক তাঁর মোটরসাইকেল থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে তাঁকে ছেলেধরা রোহিঙ্গা সন্দেহ করে মারধর শুরু করে। ইটাগাছা ফাঁড়ির পুলিশ খবর পেয়ে তাঁকে উদ্ধার করে জিজ্ঞাসাবাদ করে। সাতক্ষিরা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল মেরিনা আক্তার নিউজ৭১ ডটকমকে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান গুজবের উপর ভিত্তি করে ঘটনাটি ঘটেছে।এ বিষয়ে জনগনকে সচেতন করার জন্য ইতিমধ্যেই এলাকায় মাইকিং করা হয়েছে।

আমাদের যশোর সংবাদদাতা জানান, তিন-চার দিন ধরে ‘ছেলেধরা’ আর ‘গলাকাটা’ বাহিনীর গুজব ছড়িয়ে পড়ায় যশোরে অনেক গ্রামের মানুষ লাঠিসোঁটা নিয়ে রাত জেগে গ্রাম পাহারা দিচ্ছে। গ্রামে অপরিচিত লোক দেখলেই গণপিটুনি দেওয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে মানসিক প্রতিবন্ধী ও ভবঘুরে ধরনের ১০ জনকে ছেলেধরা সন্দেহে পিটিয়ে জখম করা হয়েছে। এদের মধ্যে কয়েকজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। প্রশাসন থেকে বিষয়টিকে স্রেফ গুজব বলা হলেও ছোট শিশুরা বাড়ি থেকে বের হচ্ছে না। গ্রামের সাধারণ মানুষ গলা কেটে নেওয়ার ভয়ে বারান্দা কিংবা খোলা জায়গায় ঘুমাচ্ছে না। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, গুরুত্বসহকারে এই গুজবের লাগাম টেনে না ধরলে বড় ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে।

আমাদের বেনাপোল প্রতিনিধি জানান, গত শুক্রবার সকালে বেনাপোল মাছ বাজারের পেছনে জনৈক প্রদীপ দাসের ছেলে কুমার (৫) ও আলেক হোসেনের ছেলে মুনছুরকে (৪) বুলু (৪৮) নামের এক নারী ভুলিয়ে নিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয়রা আটক করে। প্রথমে তাকে রোহিঙ্গা বলে দাবি করা হলেও পরে জানা যায়, ওই নারী মানসিক ভারসাম্যহীন। তার বাড়ি যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার শালবরাত গ্রামে। স্বামীর নাম অরবিন্দ। এর আগে জনতার হাতে আটক হয় সিলেটের ছাতক উপজেলার দক্ষিণসার গ্রামের জমসের আলীর ছেলে গিয়াসউদ্দিন (৩৩), সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার শ্রীকলস গ্রামের রুহুল আমিনের স্ত্রী হাফিনা বেগম (৪৪) ও গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার রামদিয়া গ্রামের সঞ্জিতের স্ত্রী নমিতা। তাদের মারধর করে পুলিশে দেওয়ার পর পুলিশ তাদের ঠিকানার সঠিকতা যাচাই পূর্বক উপযুক্ত লোকের জামিনে তাদের ছেড়ে দেয়।

Comments

Pranto mondal

2019-05-12 04:37:56 PM


এক সাথে এতো পাগল?

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')