bangladesh
 09 May 18, 01:16 AM
 7111             0

ছাত্রলীগের নতুন নেতৃত্বের আলোচনায়, কেন্দ্রে জয়-সুজন এবং ঢাবি'তে বিদ্যুৎ-সাদ্দাম এগিয়ে

ছাত্রলীগের নতুন নেতৃত্বের আলোচনায়, কেন্দ্রে জয়-সুজন এবং ঢাবি'তে বিদ্যুৎ-সাদ্দাম এগিয়ে

নিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সমর্থিত ছাত্রলীগের ২৯তম জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১১ ও ১২ মে। এইমূহুর্তে চলছে সন্মেলনের চুড়ান্ত প্রস্তুতির কাজ। আর পদ প্রত্যাশীরা চলেছেন নেতাদের দরজায় কড়া নেড়ে। এবার ছাত্রলীগের কমিটি গঠন নিয়ে কথিত সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী, আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা শক্ত অবস্থান নেওয়ায় একটি নিদৃষ্ট বলয়ের বাইরে নেতৃত্ব আসার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। আর তাই এই সম্মেলনকে ঘিরে সংগঠনটির নেতাকর্মীদের মধ্যে বাড়তি উৎসাহ-উদ্দীপনাও বিরাজ করছে। কেন্দ্রীয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চার শীর্ষ পদে জায়গা পেতে জোর তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন পদপ্রত্যাশীরা। পদের আশায় সম্ভবনাময় ছাত্রনেতারা শুধু দলীয় নেতাদের কাছেই যাচ্ছেন তেমনটা নয় উপরন্তু সরকারের গুরুত্বপূর্ন বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার কর্তা ব্যক্তিদের সাথেও যোগাযোগ রক্ষা করার চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছেন বিভিন্ন মাধ্যমে । কারন বাজারে রটনা রয়েছে ছাত্রলীগের এই চার শীর্ষ পদে প্রার্থী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী এবার দলীয় নেতাদের পাশাপাশি গোয়েন্দা তথ্যের সাহায্য নিতে পারেন।

তবে এবারের সন্মেলনকে ঘিরে হঠাৎকরে পদ-প্রত্যাশী ছাত্র নেতা ও তাদের অনুসারিদের মধ্যে শুরু হয়েছে নানান অনৈতিক প্রতিযোগিতা। যা সামগ্রিকভাবে সংগঠনের ভাবমূর্তি মারাত্মক ভাবে ক্ষতি করছে। একই পদের দাবীদার একজন আরেকজনের বিরুদ্ধে শুরু করেছে তীব্র বিষোদগার । পরিস্থিতি এতটাই নাজুক হয়েছে যে দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক সম্পর্ক ও শিষ্ঠাচার ভুলে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে কাঁদা ছোড়াছুড়িও চলছে। একজন-আরেকজনকে শিবির-ছাত্রদল, বিবাহিত, মাদক ব্যবসায়ী বানিয়ে ঘায়েল করার চেষ্টা চালাচ্ছে। আর এই প্রপগন্ডার ভয়ে আতঙ্কিত হয়ে উঠছেন পদ প্রত্যাশীদের অনেকেই। পরিস্থিতি যেদিকে যাচ্ছে তাতে এখনই লাগাম টানতে না পারলে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ভবিষ্যত নেতৃত্বের পাশাপাশি জাতির পিতার হাতে গড়া এই ঐতিহ্যবাহী ছাত্র সংগঠনটি ইমেজ সংকটে পড়তে পারে।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শীর্ষ পদে এবার নোয়াখালি ও বরিশাল অঞ্চলই বেশি প্রধান্য পাবে। এছাড়া রাজশাহী এবং ফরিদপুর অঞ্চলও গুরুত্ব পেতে পাবে। এজন্য এই চার অঞ্চলের পদপ্রত্যাশীদের মাঝ থেকে শর্টলিস্টও করা হয়েছে। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে এই শর্টলিস্ট থেকেই চূড়ান্ত করা হবে ছাত্রলীগের আগামীর কান্ডারী। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নিজেই তদারকি করবেন এই নেতা বানানোর কাজ। অতীতের তিক্ত অভিজ্ঞতার কারনে কোন ব্যক্তি বা নেতার একক ইচ্ছার গুরুত্ব আর দিতে চাননা তিনি। যদিও এত কিছুর পরও হাল ছাড়েনি পুরানো সিন্ডিকেট। সম্প্রতি তারা রাজধানীর গুলশানের ওয়েসটিন হোটেলে একটি ম্যারাথন বৈঠকে মিলিত হন। প্রধানমন্ত্রী ঘনিষ্ট কয়েকজন নেতাও সেখানে হাজির হন। যা নিয়ে আওয়ামীলীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত ক্ষুব্ধ হয়েছেন। এবং তার এক বিশেষ সহকারীর মাধ্যমে বৈঠকে অংশনেয়া এক নেতাকে ভৎসনাও করেছেন বলে জানাগেছে।

ছাত্র রাজনীতি নিয়ে কাজ করছে সরকারের এমন একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা ও দলীয় সুত্রে জানা গেছে, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির শীর্ষ নেতৃত্বের দৌড়ে চট্টগ্রাম-নোয়াখালি অঞ্চল থেকে আলোচনায় আছেন- কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দিদার মুহাম্মদ নিজামুল ইসলাম, স্কুল ছাত্রবিষয়ক উপ-সম্পাদক খাজা খায়ের সুজন, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম শামীম, স্যার এ এফ রহমান হলের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান তুষার ও কেন্দ্রীয় স্কুলছাত্র বিষয়ক উপ-সম্পাদক সৈয়দ আরাফাতের নাম । তবে প্রাথমিক তদন্তে আলোচিত প্রার্থীদের মধ্যে মধ্যে খাজা খায়ের সুজন যথেষ্ট সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে । নেয়াখালি জেলার সেনবাগ থানার দেবিশিংহপুর গ্রামের খাজা খায়ের সুজনের নানা মরহুম আব্দুস সোবহান নোয়াখালি-২ আসন থেকে আওয়ামীলীগের এমপি ছিলেন।

অপরদিক বরিশাল অঞ্চল থেকে আলোচনায় আছেন কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি মো. রুহুল আমিন, আইন বিষয়ক সম্পাদক আল-নাহিয়ান খান জয়, কৃষি শিক্ষা সম্পাদক বরকত হোসেন, প্রচার বিষয়ক উপ-সম্পাদক সাইফুর রহমান সাইফ, সহ-সম্পাদক খাদেমুল বাশার জয়, ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক ইয়াজ আল রিয়াদ। তবে এই অঞ্চলের প্রার্থীদের মধ্যে মেধাবী ও মিষ্টভাষি হিসেবে সকলের কাছে গ্রহনযোগ্য বর্তমান কেন্দ্রীয় কমিটির আইন সম্পাদক আল নাহিয়ান খান জয় সবচেয়ে সবচেয়ে বেশী সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে । ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়র পাশাপাশি সারাদেশের ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের কাছে সে অত্যন্ত জনপ্রিয় ও গ্রহনযোগ্য । তার পিতা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ওবায়দুল কাদের- বাহালুল-মজনুন- চুন্নু কমিটির নেতা ছিলেন এবং ১৯৯৬ সালে বরিশাল -২ ( বাবুগঞ্জ-উজিরপুর) সংসদীয় আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। দীর্ঘদিন ধরে তিনি মেধাবী ছাত্রদের পড়াশুনায় সহযোগীতা করতে ছাত্র বৃত্তি প্রদানসহ বিভিন্ন সেবামুলক কাজের সাথে জড়িত।

যদিও সম্প্রতি বরিশাল অঞ্চলের সম্ভবনাময় ছাত্রনেতা আল নাহিয়ান খান জয়কে নিয়ে কিছু নেতিবাচক আলোচনা বাজারে এসেছে। তবে এবিষয়ে জয় এবং তার পরিবারের দাবী এটা নিছকই অপপ্রচার । তাদের এক প্রতিবেশী ব্যক্তিগত প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে জয় ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে অপপ্রচারে লিপ্ত । এই প্রতিবেশীর পাশাপাশি রবিশাল অঞ্চল থেকে ছাত্রলীগের কথিত সিন্ডিকেটের এক প্রভাবশালী নেতার পছন্দের অপর একজন প্রার্থী রয়েছে। ঐ পক্ষটিও সাম্ভব্য প্রতিদন্ধি আল নাহিয়ান খান জয়ের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা করে চলেছে। জয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে এই সকল অপপ্রচারকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য ছাত্রলীগের বিগত তিনটি কমিটির সভাপতি-সম্পাদক যেসব অঞ্চল থেকে নির্বাচিত হয়েছেন এবার তার বাইরে থেকে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত হবে বলে বাজারে জোর প্রচার রয়েছে। সংগঠনের বর্তমান সোহাগ-জাকির কমিটির সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ফরিদপুর অঞ্চলের ছেলে তার বাড়ী মাদারীপুর জেলায় আর জাকিরের বাড়ী বৃহওর সিলেট অঞ্চলের। তার আগের সোহাগ-নাজমুল কমিটির সভাপতি বদিউজ্জামান সোহাগের বাড়ী বৃহত্তর খুলনার বাগেরহাট জেলায় আর সিদ্দীকি নাজমুল আলমের বাড়ী বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলে। তার আগের কমিটির রিপন-রোটন কমিটির রিপনের বাড়ী রংপুর অঞ্চলে আর রোটনের বাড়ী চট্টগ্রাম অঞ্চলে। তাই এবার এই সকল অঞ্চল থেকে নতুন নেতৃত্ব আসার সম্ভবনা নেই বললেই চলে। সেই হিসেবে বরিশাল অঞ্চল থেকে সভাপতি পদে আল নাহিয়ান খান জয়ের উঠে আসার সম্ভবনা প্রবল ।কারন ১৯৯৪-১৯৯৮ সালে ইসহাক আলী খান পান্নার পর আর এই অঞ্চল থেকে কোন গুরুত্বপূর্ণ নেতৃত্ব আসেনি। অপরদিকে বৃহত্তর নোয়াখালি অঞ্চল থেকে বর্তমান আওয়ামী লীগ সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ১৯৭৬-১৯৮২ পর আর কোন নেতৃত্ব আসেনি তাই এবার এই অঞ্চল থেকে খাজা খায়ের সুজনের কেন্দ্রের নেতৃত্বে আসার সম্ভবনা বেশি।

অপরদিকে এবার ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব নির্বাচনে বরিশাল ও নোয়াখালি অঞ্চল প্রাধান্য পেলেও বৃহত্তর ফরিদপুর ও রাজশাহী অঞ্চল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়র মুল নেতৃত্বে আসার সম্ভবনা রয়েছে।এবার ফরিদপুর অঞ্চল থেকে সহ-সভাপতি বিদ্যুৎ শাহরিয়ার কবির ও আরেফিন সিদ্দিক সুজন, শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক গোলাম রাব্বানী, কর্মসূচি ও পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পাদক রাকিব হোসাইন ও স্যার এ এফ রহমান হলের সভাপতি হাফিজুর রহমানের নাম শোনা যাচ্ছে। এদের মধ্যে বিদ্যুৎ শাহরিয়ার কবির সার্বিক বিচারে যোগ্য নেতা হিসেবে অনেকটাই এগিয়ে । এই অঞ্চলের অপর সম্ভবনাময় প্রার্থী গোলাম রাব্বানী ফেসে গেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়া একটি বিশেষ অডিও ক্লিপে । পাশাপাশি রাজশাহী অঞ্চল থেকে নেতৃত্বের দৌড়ে আলোচনায় আছেন বর্তমান কেন্দ্রের দফতর সম্পাদক দেলোয়ার শাহজাদা, আইন বিষয়ক উপ-সম্পাদক হোসাইন সাদ্দাম ও কর্মসংস্থান সম্পাদক রাকিবুল হাসান। তবে এদের মধ্যে সৎ যোগ্য গ্রহনযোগ্য হিসেবে সবচেয়ে এগিয়ে আছেন কুড়িগ্রামের আইন বিষয়ক উপ-সম্পাদক হোসাইন সাদ্দাম। তবে এসকল প্রার্থীর বাইরেও কেন্দ্রের ভাইটাল পদের দাবীদার হিসেবে জোর তদবির চালাচ্ছেন ঢাবি’র বর্তমান সাধারণ সম্পাদক বাগেরহাটের মোতাহের হোসেন প্রিন্স এবং সিলেট অঞ্চল থেকে জিয়া হল শাখা সভাপতি মো. ইউছুপ উদ্দিন খাঁন।

এদিকে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার শীর্ষ দু’পদে নতুন নেতৃত্ব আসা নিয়ে সম্ভবনাময় পদপ্রত্যাশীরা রয়েছেন ব্লেইম আতঙ্কে। একই পদের দাবীদার প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী যাতে নেতৃত্বে আসতে না পারে সেজন্য অভিনব পন্থার আশ্রয় নিচ্ছেন ছাত্রলীগেরই একটি পক্ষ। তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীদেরকে শিবির-ছাত্রদল বানিয়ে স্ট্যাটাস দিচ্ছেন। যা প্রকারন্তরে নেতাকর্মীদের নিজ ইমেজের পাশাপাশি জাতির জনকের হাতে গড়া সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ইমেজকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। যদিও বেশীরভাগ ক্ষেত্রে তদন্তের সময় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বললে মিলছে না সত্যতা। শুধু জামাত-বিএনপি সংশ্লিষ্টতা নয় ছাত্রলীগের পদ প্রত্যাশী বেশকিছু নেতার বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসা, বিবাহিত ও টেন্ডারবাজ এসব অভিযোগও উঠেছে। আর এই সকল তথ্য জনসমক্ষে আনছে ছাত্রলীগেরই একটি পক্ষ ।

Comments

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন

')