বাংলাদেশ
 31 Mar 16, 12:21 PM
Print
 57771             5

আওয়ামিলীগের তৃণমূল নেতাদের মনের কথা শুনতে চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ।।

আওয়ামিলীগের তৃণমূল নেতাদের মনের কথা শুনতে চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ।।

নিউজ ডেস্কঃ আওয়ামিলীগের তৃণমূল নেতাদের মনের কথা শুনতে চান প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জানতে চান জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া এই সংগঠনের মাঠ পর্যায়ের বর্তমান চিত্র। যে কারণে আসন্ন সম্মেলনে সব সাংগঠনিক জেলার একজন করে নেতার বক্তব্য রাখার সুযোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। সিদ্ধান্ত হয়েছে সম্মেলনের সময় একদিন থেকে বাড়িয়ে দু’দিন করার।

দেশের ঐতিহ্যবাহী ও অন্যতম প্রাচীন রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন প্রথমে ২৮শে মার্চ অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত হয়েছিল। সেই অনুযায়ী প্রস্তুতিও এগিয়ে নেওয়া হচ্ছিল। কিন্তু দেশে চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের কারণে ক্ষমতাসীন এই দলটি গত ২০শে মার্চ অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে সম্মেলন সাড়ে তিন মাসের মতো পিছিয়ে আগামী ১০ ও ১১ই জুলাই পুনর্নির্ধারণ করে। আগের সময়সূচি অনুযায়ী সম্মেলন একদিনে হওয়ার সিদ্ধান্ত হলেও তারিখ পরিবর্তনের পাশাপাশি সেটা বাড়িয়ে একদিনের স্থলে দু’দিন করা হয়েছে। এর পেছনের একমাত্র কারণ সম্মেলনে তৃণমূল নেতাদের বক্তব্য দেওয়ার সুযোগ সৃষ্টি করা বলে দলের নেতারা মনে করেন।

আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা  বলছেন, সম্মেলন দু’দিন করার বিষয়টি মূলত দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার ইচ্ছায়ই হয়েছে। সম্মেলনে তৃণমূল নেতাদের বক্তব্য দেওয়ার সুযোগ করে দিতে এটা করেছেন বলে মনে করেন তারা। কেন্দ্রীয় নেতারা বলছেন, কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে প্রতিটি সাংগঠনিক জেলার সভাপতি কিংবা সাধারণ সম্পাদককে সম্মেলনে বক্তব্যের সুযোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আওয়ামী লীগের নেতাদের মতে, প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকার কারণে দলীয় সভাপতি অনেক সময় সংগঠনে ভালোভাবে সময় দিতে পারেন না। এ কারণে তৃণমূল সংগঠনের বাস্তব চিত্র তার কাছে অনেক সময় স্পষ্ট থাকে না। বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও মাঝে মধ্যে দুই-একটি জেলার নেতারা তার সঙ্গে সাক্ষাতে এলে সেখান থেকেই কেবল মাঠ পর্যায়ের সংগঠনের খবর জেনে থাকেন। যে কারণে তৃণমূলের সঙ্গে তার খানিকটা দূরত্ব তৈরি হয়েছে। এই দূরত্ব গুছিয়ে সংগঠনের মাঠ পর্যায়ের বাস্তব চিত্র জানতেই তিনি সব জেলার নেতাদের সাথে কথা বলতে চাচ্ছেন।

এর আগে বিরোধী দলে থাকার সময় শেখ হাসিনা ২০০৫ ও ২০০৬ সালে প্রতিটি জেলা ও উপজেলার নেতাদের ডেকে সিরিজ বৈঠক করেন। ওই সময় তৃণমূলের নেতাদের কাছে থেকে জানতে পারেন মাঠ সংগঠনের বাস্তব অবস্থা। শেখ হাসিনার সঙ্গে ওই বৈঠকের সূত্র ধরে তৃণমূল সংগঠন চাঙ্গা হয়ে ওঠে। যার কারণে তৎকালীন বিএনপি জামায়াত জোট সরকারবিরোধী আন্দোলনসহ প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে বিজয়ী হয়ে ২০০৮ সালের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যা গরিষ্ঠতা অর্জন করে দল ক্ষমতায় আসে ।

উল্লেখ্য যে, দল ক্ষমতায় আসার পরও ২০১০, ২০১১ ও ২০১৩ সালে প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবনে প্রায় সব জেলা নেতাদের ডেকে ধারাবাহিকভাবে বৈঠক করেছেন। কিন্তু এরপর গত ৩ বছরে সেই ধরনের কোনও কর্মসূচি দলের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়নি। অবশ্য ২০১৩ ও ১৪ সালে শেখ হাসিনা রাষ্ট্রীয় কর্মসূচি অংশ হিসেবে বিভিন্ন জেলা সফর করেন।

এদিকে, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর ২০০৯ সালের জুলাই ও ২০১২ সালের ডিসেম্বরে জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। দুটি সম্মেলনের ব্যাপ্তিকালই ছিল একদিন করে। সময়-স্বল্পতার কারণে এ সম্মেলন দুটিতে তৃণমূলের নেতাদের মধ্যে প্রতিটি সাংগঠনিক বিভাগ থেকে মাত্র একজন করে নেতারা বক্তব্য দেওয়ার সময় পেয়েছিলেন।

আওয়ামী লীগের বর্তমানে ৭৭টি সাংগঠিক জেলা রয়েছে। ফলে প্রতি জেলা থেকে একজন করে ৭৭জন বক্তাই বক্তব্য দেওয়ার সুযোগ পাবেন । সম্মেলনের প্রথম দিনে দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভাষণ দেবেন। এর পর সাধারণ সম্পাদকের রিপোর্ট উপস্থাপন করবেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে বক্তৃতা করবেন তৃণমূল নেতারা। সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে কাউন্সিল অধিবেশনের আগ পর্যন্ত তারা বক্তৃতার সুযোগ পাবেন ।

দলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবউল আলম হানিফ বলেন, সংক্ষিপ্ত সম্মেলন হলে দেখা যায় নেত্রীর বক্তব্য বা রিপোর্ট পেশ ছাড়া অন্য বক্তব্যের সুযোগ হয় না। জেলা পর্যায়ের যেসব নেতা আসেন তারাও কথা বলার সুযোগ পান না। এজন্য এবার সিদ্ধান্ত হয়েছে কাউন্সিলের যে আসল নিয়ম প্রত্যেক জেলা পর্যায়ের নেতাদের কাছ থেকে তাদের সঠিক বক্তব্যটা শোনা। সংগঠনের চিত্র, এলাকার পরিবেশ পরিস্থিতি জানা, এলাকার উন্নয়ন ও জনগণের সম্পৃক্ততা এই সব বিষয়গুলো জানার জন্য প্রত্যেক জেলা থেকে একজন করে নেতা বক্তব্য রাখবেন। তাদের সাংগঠনিক চিত্র তুলে ধরবেন। সংশ্লিষ্ট জেলার মানুষের চিন্তা চেতনার বিষয়গুলো তুলে ধরবেন ।

Comments

আমার বাবা ম

2016-07-21 11:05:47


delwarntk@gmail.com

s.m.abdul matin

2016-07-20 04:53:27


আমরা পাটি করি সভায় যোগ দিই.কিনতু পাটিতে কোন নাম নেই যে আমি আওয়ামিলীগ করি.01619605807

হিরু

2016-06-28 09:07:23


আমি শ্রমিক নেতা হিসেবে বক্তব্য দিতেচাই । কি ভাবে ধ্বংশ হচ্ছে বাংলাদেশ আওয়ামিলীগ কিছু আংশ তুলে ধরব ।

নাজমুল

2016-06-05 01:16:51


কি বলবো কতো কথা আছে বলার সময়। ৩/৪ টা টিসু রাখতে হবে পাসে চোখের পানি মোছার জন্য। ওনেক অসুবিদাই আছি

নিচের ঘরে আপনার মতামত দিন